চুল থেকে খুশকি দূর করার উপায়

এই ঋতুতে খুশকির সমস্যা যতটা সাধারণ, তা থেকে পুরোপুরি মুক্তি পাওয়া ততটাই কঠিন। মাথার ত্বকের মরা স্তর যাকে আমরা খুশকি বলি, তা অনেক বড় চুলের সমস্যার কারণ। এটি শুষ্ক ত্বক, তৈলাক্ত ত্বক, মাথার ত্বকে ব্যাকটেরিয়া এবং ছত্রাকের বৃদ্ধি এবং এই জাতীয় অন্যান্য কারণগুলোর কারণে হয়। খুশকির কারণেও মাথার ত্বকে অতিরিক্ত চুলকানি হয়।

কিন্তু নিয়মিত চুলের যত্নে খুশকি নিয়ন্ত্রণ করা যায়। এছাড়াও আপনি কিছু সহজ প্রাকৃতিক ঘরোয়া প্রতিকারের সাহায্য নিতে পারেন। এটা সত্য যে প্রাকৃতিক প্রতিকারগুলি ফলাফল দেখাতে সময় নেয়, তবে এই প্রতিকারগুলি কার্যকরভাবে অনেক সমস্যার সমাধান করে।

চুল থেকে খুশকি দূর করার ঘরোয়া উপায়

গ্রিন টি

গ্রিন টি-তে উপস্থিত ক্যাটেচিনগুলিতে অ্যান্টিফাঙ্গাল বৈশিষ্ট্য রয়েছে। এর পলিফেনল, যা একটি অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট, আপনার মাথার ত্বককে সুস্থ রাখতে সাহায্য করে। গ্রিন টি চুলে ব্যাবহারের নিয়মঃ

উপাদানঃ

  • দুটি সবুজ চা ব্যাগ।
  • এক কাপ গরম পানি।

পদ্ধতিঃ প্রথমে গ্রিন টি পানিতে 20 মিনিটের জন্য গরম করুন এবং তারপর কিছু সময়ের জন্য এটি ঠান্ডা করুন।
এবার এই মিশ্রণটি তুলো দিয়ে মাথার ত্বকে লাগান বা তা দিয়ে চুল ধুয়ে ফেলুন। তারপর এভাবে আধা ঘণ্টা রেখে দিন। এবার পানি দিয়ে চুল ধুয়ে ফেলুন। সকালে গোসল করার আগে এই প্রতিকারটি ব্যবহার করুন।

তুলসী

তুলসী পাতা অনেক প্রাকৃতিক উপাদানের মধ্যে একটি যা খুশকি নিরাময়ে সাহায্য করে। এর অ্যান্টিফাঙ্গাল এবং অ্যান্টিব্যাকটেরিয়াল বৈশিষ্ট্য খুশকির চিকিৎসা করে এবং মাথার ত্বকের শক্তিও উন্নত করে।

উপাদানঃ

  • কয়েকটি তুলসী পাতা।
  • আমলা গুঁড়া দুই চা চামচ ।
  • পানি দুই চামচ।

পদ্ধতিঃ প্রথমে সব উপকরণ একসঙ্গে মিশিয়ে নিন যাতে একটি মসৃণ পেস্ট তৈরি করা যায়। এই পেস্টটি আপনার মাথার ত্বকে ঘনিষ্ঠভাবে লাগান এবং আধা ঘন্টার জন্য এভাবে রেখে দিন। তারপর নতুন পানি দিয়ে চুল ধুয়ে ফেলুন। সকালে গোসল করার আগে এই প্রতিকারটি ব্যবহার করুন।

মেহেদি

মেহেদির শুকনো পাতা খুশকি সহ চুলের অনেক সমস্যার চিকিৎসায় ব্যবহৃত হয়। মেহেদির সক্রিয় উপাদান যেমন ট্যানিক এবং গ্যালিক অ্যাসিড লসন এবং মিউকিলেজ খুশকির চিকিৎসায় গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। মেহেদি চুলের কেরাটিনের সাথে আবদ্ধ হয়, যার সাহায্যে এটি একটি প্রতিরক্ষামূলক স্তর তৈরি করে এবং মাথার ত্বকের জ্বালা থেকে মুক্তি দেয়। এটি মাথার ত্বক থেকে তেল দূর করে এবং কন্ডিশনার হিসেবে কাজ করে। মেহেদি খুশকি দূর করতে সাহায্য করে।

উপাদানঃ

  • এক চা চামচ মেহেদি।
  • আমলুকি গুঁড়া এক চা চামচ।
  • এক চা চামচ চায়ের গুঁড়া।
  • এক চা চামচ লেবুর রস।
  • এক চা চামচ নারিকেল তেল।

পদ্ধতিঃ

প্রথমে একটি পাত্রে সব উপকরণ মিশিয়ে নিন। এবং একটি পেস্ট তৈরি না হওয়া পর্যন্ত মেশান। এবার এই পেস্টটি মাথার ত্বকে লাগান এবং লাগানোর পর কয়েক মিনিট রেখে দিন। এরপর শ্যাম্পু দিয়ে চুল ধুয়ে ফেলুন। সকালে গোসল করার আগে এই প্রতিকারটি ব্যবহার করুন।

আপেল

কাঁচা আপেলে প্রোসায়ানিডিন বি২ থাকে। এই প্রাকৃতিক যৌগ চুলের বৃদ্ধিতে সাহায্য করে। খুশকির কারণে চুল পড়ে, তাই চুল পড়া রোধ করতে আপেল আপনার চুলকে সুস্থ রাখতে সাহায্য করবে।

উপাদানঃ

  • আপেলের রস দুই চামচ।
  • পানি দুই চামচ।

পদ্ধতিঃ প্রথমে দুই চামচ আপেলের রস ও পানি সমপরিমাণে মিশিয়ে নিন। এই মিশ্রণটি আপনার মাথার ত্বকে লাগান। লাগানোর পর এভাবে ১৫ মিনিট রেখে দিন। তারপর শ্যাম্পু দিয়ে ত্বক ও চুল ভালো করে ধুয়ে ফেলুন। সকালে গোসল করার আগে এই প্রতিকারটি ব্যবহার করুন।

নিম পাতা

নিম পাতা অ্যান্টিফাঙ্গাল এবং অ্যান্টিব্যাকটেরিয়াল বৈশিষ্ট্য খুশকির পাশাপাশি মাথার ত্বকে ফুসকুড়ি, চুলকানি এবং চুল পড়ার মতো অন্যান্য চুলের সমস্যাগুলির চিকিৎসায় সহায়তা করে।

উপাদানঃ

এক মুঠো নিম পাতা।

পদ্ধতিঃ এক মুঠো নিম পাতা চার কাপ পানিতে ফুটিয়ে রাখুন। এই দ্রবণটিকে ঠান্ডা করে ফিল্টার করুন। এবার চুল ধোয়ার জন্য ব্যবহার করুন। এই দ্রবণটি বেশিরভাগই মাথার ত্বকে ঢেলে দিন। সপ্তাহে দুই বা তিনবার চুল ধোয়ার জন্য এই সমাধানটি ব্যবহার করুন।

আপেল সিডার ভিনেগার

আপেল সিডার ভিনেগারে থাকা অ্যাসিড মাথার ত্বকের পিএইচ স্তর উন্নত করতে সাহায্য করে, যা ফলস্বরূপ খামির প্রতিরোধে সহায়তা করে।

উপাদানঃ

  • আপেল সিডার ভিনেগার
  • জল

পদ্ধতিঃ প্রথমে একটি পাত্রে সমপরিমাণ আপেল সিডার ভিনেগার এবং জল মিশিয়ে নিন। এবার চুল ভালো করে ধুয়ে নিন, তারপর এই মিশ্রণটি আপনার চুলে ঢেলে এবং মাথার ত্বকে ম্যাসাজ করুন। 15 মিনিটের জন্য রেখে দিন এবং তারপর জল দিয়ে চুল ধুয়ে ফেলুন। সকালে গোসল করার সময় এই প্রতিকারটি ব্যবহার করুন। এক সপ্তাহের জন্য প্রতিদিন এই প্রতিকার পুনরাবৃত্তি করুন।

সতর্কতাঃ খেয়াল রাখবেন এই মিশ্রণ যেন আপনার চোখে না লাগে। এর পাশাপাশি যেকোনো আঘাত বা আঁচড়ে লাগালে জ্বালাপোড়া হতে পারে। সেক্ষেত্রে আক্রান্ত স্থান আবার পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন।

বেকিং সোডা

বেকিং সোডা এমনই একটি এক্সফোলিয়েন্ট যা মৃত কোষ দূর করতে সাহায্য করে। এটি মাথার ত্বক থেকে অতিরিক্ত তেল দূর করে (যা খুশকির আরেকটি কারণ)। তবে বেকিং সোডা ব্যবহারে আপনার চুল শুষ্ক হয়ে যাবে। তাই চিন্তা করার দরকার নেই কারণ দুই সপ্তাহের মধ্যে আপনার মাথার ত্বকে প্রাকৃতিক তেল তৈরি হতে শুরু করবে যা শুষ্কতা দূর করে দেবে। বেকিং সোডা ছত্রাক দূর করতেও পরিচিত যা খুশকির বৃদ্ধি ঘটায়।

উপাদানঃ

  • এক চা চামচ বেকিং সোডা।

পদ্ধতিঃ প্রথমে আপনার চুল ভিজিয়ে তারপর মাথার ত্বকে এবং চুলে বেকিং সোডা ঘষুন। বেকিং সোডা লাগিয়ে কয়েক মিনিট রেখে তারপর পানি দিয়ে চুল ধুয়ে ফেলুন। এছাড়া শ্যাম্পুতে বেকিং সোডা মিশিয়ে চুল ধোয়ার জন্য ব্যবহার করেন। সকালে গোসল করার সময় এই প্রতিকারটি ব্যবহার করুন। এছাড়াও, সপ্তাহে দুবার এই প্রতিকারটি পুনরাবৃত্তি করুন।

সতর্কতাঃ মনে রাখবেন বেকিং সোডা বেশিক্ষণ চুলে রাখবেন না, এতে আপনার চুল শুকিয়ে যেতে পারে।

সাদা ভিনেগার

ভিনেগার ছত্রাক ও ব্যাকটেরিয়া মারতে সাহায্য করে। এটি মাথার ত্বক শুষ্ক করে এবং খুশকি দূর করে। ভিনেগারের অ্যাসিড বৈশিষ্ট্য মাথার ত্বকের চুলকানি কমায় এবং স্ক্যাবসও দূর করে।

উপাদানঃ

  • ভিনেগার দুই কাপ।
  • এক কাপ জল

পদ্ধতিঃ প্রথমে দুই কাপ ভিনেগার গরম করে নামিয়ে ঠান্ডা করতে রাখুন। এবার এতে এক থেকে আদা কাপ পানি দিন। এই মিশ্রণটি ভালোভাবে মেশানোর পর তুলো দিয়ে মাথার ত্বকে লাগান বা এই মিশ্রণ দিয়ে ত্বক ও চুল ধুয়ে ফেলুন। এরপর কিছুক্ষণ মাথার ত্বকে ম্যাসাজ করুন। এবার শ্যাম্পু দিয়ে চুল ধুয়ে ফেলুন। এ ছাড়া শ্যাম্পু দিয়ে চুল ধোয়ার পর অবশেষে এক মগ পানিতে এক চামচ ভিনেগার মিশিয়ে চুল ধুয়ে ফেলতে পারেন। সকালে শ্যাম্পু করার আগে এই প্রতিকারটি ব্যবহার করে দেখুন।

সতর্কতাঃ খেয়াল রাখবেন ভিনেগার যেন আপনার চোখে না লাগে। এটি আপনার চোখ জ্বালা করতে পারে।

লেবু

লেবু খুশকির জন্য দায়ী ছত্রাক দূর করে।

উপাদানঃ

লেবুর রস তিন চামচ।
তিন চা চামচ বেকিং সোডা।
এক বাটি আপেল সিডার ভিনেগার।

পদ্ধতিঃ প্রথমে একটি পাত্রে সমস্ত উপাদান মিশিয়ে নিন এবং তারপর এই পেস্টটি আপনার মাথার ত্বকে লাগান। তারপর দশ মিনিট এভাবে রেখে দিন যতক্ষণ না মাথার ত্বকে চুলকানি শুরু হয়। এবার পানি দিয়ে চুল ধুয়ে ফেলুন। কন্ডিশনার হিসেবে আপেল সিডার ভিনেগার ব্যবহার করতে পারেন। লেবু সকালে গোসল করার আগে এই প্রতিকারটি ব্যবহার করুন।

অ্যাসপিরিন

অ্যাসপিরিনে স্যালিসিলেট থাকে যা মাথার ত্বককে এক্সফোলিয়েট করে এবং খুশকির চিকিৎসা করে।

উপাদানঃ

  • দুটি অ্যাসপিরিন ট্যাবলেট।

পদ্ধতিঃ প্রথমে অ্যাসপিরিন ট্যাবলেট গুঁড়ো করুন এবং এবার এই পাউডারটি একটি পাত্রে রাখুন। এই পাউডারে কিছু পরিমাণ শ্যাম্পু যোগ করুন। এবার ভালো করে মেশানোর পর এই মিশ্রণ দিয়ে চুল ধুয়ে ফেলুন। এই মিশ্রণটি কয়েক মিনিট রেখে তারপর পানি দিয়ে চুল ধুয়ে ফেলুন। সকালে গোসল করার সময় এই প্রতিকারটি ব্যবহার করুন।

মেথির বীজ

মেথির বীজে বেশ কিছু ভিটামিন এবং খনিজ রয়েছে যা খুশকির চিকিৎসায় অত্যন্ত কার্যকরী।

উপাদানঃ

এক চা চামচ মেথি বীজ
দুই কাপ গরম পানি।

পদ্ধতিঃ প্রথমে মেথি দানা মুসলি দিয়ে পিষে নিন। এবার এই বীজগুলোকে দুই কাপ গরম পানিতে সারারাত ভিজিয়ে রাখুন। সকালে মিশ্রণটি ছেঁকে তারপর চুল ধুয়ে ফেলুন। সকালে গোসল করার আগে এই প্রতিকারটি ব্যবহার করুন।

ডিমের কুসুম

বায়োটিন খুশকির চিকিৎসার জন্য সেরা ভিটামিনগুলির মধ্যে একটি। ডিমের কুসুম বায়োটিনের একটি ভালো উৎস এবং এই প্রতিকারটি এই সমস্যার জন্য খুবই ভালো। ডিম আপনার চুলকে কন্ডিশন করে এবং তাদের স্বাস্থ্যকরও করে।

উপাদানঃ

  • এক বা দুটি ডিমের কুসুম।

পদ্ধতিঃ প্রথমে একটি পাত্রে ডিমের কুসুম বের করে নিন। ডিম লাগানোর আগে আপনার চুল শুষ্ক কিনা তা নিশ্চিত করুন। তারপর মাথার ত্বকে কুসুম লাগান।
একবার প্রয়োগ করার পরে, আপনার চুল ফয়েল দিয়ে ঢেকে দিন এবং এক ঘন্টা রেখে দিন। এরপর শ্যাম্পু দিয়ে চুল ভালো করে ধুয়ে ফেলুন। ডিমের গন্ধ না গেলে আবার শ্যাম্পু দিয়ে চুল ধুতে পারেন। সকালে গোসল করার এক ঘন্টা আগে এই প্রতিকারটি ব্যবহার করুন।

মুলতানি মাটি

মুলতানি মাটি মাথার ত্বক থেকে তেল, গ্রীস এবং ময়লা বের করে, যার কারণে খুশকি বৃদ্ধি পায়। এটি মাথার ত্বকের রক্ত ​​সঞ্চালনও উন্নত করে। এভাবে খুশকির সমস্যা একেবারেই শেষ হয়ে যায়।

উপাদানঃ

পদ্ধতিঃ প্রথমত, মুলতানি মাটিতে কিছু পরিমাণ জল যোগ করুন এবং একটি মসৃণ পেস্ট তৈরি করুন। তারপর এতে লেবুর রস যোগ করুন। এই মিশ্রণটি ভালোভাবে নাড়ার পর মাথার ত্বকে এবং চুলে ভালো করে লাগান। এবার এই মিশ্রণটি এভাবে 20 মিনিট থাকতে দিন। তারপর চুল ধুয়ে ফেলুন।

রসুন

রসুনের চমৎকার অ্যান্টিফাঙ্গাল বৈশিষ্ট্য রয়েছে যা জীবাণুকে মেরে ফেলে। জীবাণুর কারণে খুশকি বাড়ে, তাই এর জন্য রসুন খুবই কার্যকরী একটি ওষুধ।

উপাদানঃ

পদ্ধতিঃ প্রথমে রসুনের লবঙ্গ পিষে তারপর মধুর সঙ্গে গুঁড়ো রসুন মিশিয়ে একটি মসৃণ পেস্ট তৈরি করুন। এবার এই পেস্টটি আপনার মাথার ত্বকে লাগান। কয়েক মিনিট ম্যাসাজ করার পর। এর পরে এই পেস্টটি 15 মিনিটের জন্য রেখে দিন। এবার যথারীতি শ্যাম্পু দিয়ে চুল ধুয়ে ফেলুন।

আদা

আদার প্রদাহ বিরোধী বৈশিষ্ট্য রয়েছে এবং সেই বৈশিষ্ট্যগুলি চুলের বৃদ্ধিতে সাহায্য করে। উদ্বায়ী তেলের মতো আদার উদ্দীপক বৈশিষ্ট্য খুশকিকে দূরে রাখে।

উপাদানঃ

কিছু পরিমাণে আদা
তিলের তেল তিন থেকে চার চা চামচ।

পদ্ধতিঃ প্রথমে আদা খোসা ছাড়িয়ে তারপর ছেঁকে নিন। এবার একটি কাপড় নিয়ে তাতে আদা রাখুন এবং কাপড়টি ছেঁকে নিন যাতে তেল বেরিয়ে আসে। এবার আদার তেল ও তিলের তেল একসঙ্গে মিশিয়ে নিন। মেশানোর পর এই মিশ্রণটি মাথার ত্বকে লাগিয়ে আবার হালকাভাবে ম্যাসাজ করুন। মিশ্রণটি কিছুক্ষণ এভাবে থাকতে দিন। এরপর শ্যাম্পু দিয়ে চুল ধুয়ে ফেলুন।

আরো পড়ুনঃ

5/5 - (25 Reviews)

Leave a Reply

Your email address will not be published.