তিসির উপকারিতা ও অপকারিতা এবং ব্যবহার | Food & Fitness

তিসির উপকারিতা ও অপকারিতা এবং ব্যবহার

তিসি বা ফ্ল্যাক্স সিডস কি?

তিসি (ইংরেজি Flaxseed:, বৈজ্ঞানিক নামঃ Linum usitatissimum) তেল ও আঁশ উৎপাদনকারী গুল্ম।

তিসি এক ধরনের ওষুধ, একে শণের বীজ ও বলা হয়। বিভিন্ন স্থানের কারণে এর আকৃতি, রং ও রূপ ভিন্ন হয়। তিসির আঁশ থেকে দড়ি, মোটা কাপড় এবং চটের কাপড় তৈরি করা যায়। এই বীজ লাল,সাদা, হালকা কালো এবং হলুদ বর্ণের হয়। এর বীজ থেকে তেল বের করা হয়।

তিসি গাছের উচ্চতা দুই থেকে আড়াই ফুট হয়। উষ্ণ অঞ্চলে পাওয়া তিসি সবচেয়ে জনপ্রিয়। বেশিরভাগ ক্ষেত্রে তিসির বীজ এবং তেল ব্যবহার করা হয়।

তিসি বীজের উপকারিতা

তিসির বীজের মধ্যে লুকিয়ে আছে অনেক স্বাস্থ্য উপকারিতা। যেমন-

1) চোখের জন্যঃ চোখের সমস্যা যেমন চোখের লালভাব দূর করা, কনজাংটিভাইটিস হলে তিসি বীজের পানি চোখে দিলে উপকার পাওয়া যায়।

2) হার্টের স্বাস্থ্যঃ তিসির বীজ কোলেস্টেরলের পরিমাণ নিয়ন্ত্রণে সহায়ক। যার কারণে হার্ট অ্যাটাকের ভয় থাকে না, তাই এটি হার্টের স্বাস্থ্যের জন্য উপকারী।

3) পরিপাকতন্ত্রেঃ তিসির বীজে প্রচুর পরিমাণে ফাইবার থাকে যা হজম শক্তিকে উন্নত করে।

4) রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতেঃ তিসির বীজ ব্যবহারে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ে। কারণ তিসির বীজ অ্যান্টি ভাইরাল, অ্যান্টি ফাঙ্গাল, অ্যান্টি ব্যাকটেরিয়াল বৈশিষ্ট্যসম্পন্ন।

5) ওজন কমানোর ক্ষেত্রেঃ এটি ওজন কমাতে উপকারী কারণ এই বীজ সেবন করলে অনেকক্ষণ পেট ভরা অনুভব করায়।

6) কান ফোলা নিরাময় করেঃ পেঁয়াজের রসে ফ্ল্যাক্সসিড বা তিসি বীজ সিদ্ধ করে ছেঁকে নিন। কানে ১ থেকে ২ ফোঁটা দিলে কান ফোলা উপশম হবে।

৭) মুখের সৌন্দর্য বাড়ায়ঃ এতে পাওয়া অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট এবং ফাইটোকেমিক্যাল বৈশিষ্ট্য বার্ধক্যের প্রভাব কমায় এবং মুখকে রাখে তরুণ।

8) ডায়াবেটিসে উপকারীঃ তিসির বীজে থাকা লিগনিন রক্তে চিনির মাত্রা কমায়।

আরো পড়ুনঃ ডায়াবেটিস কি, ডায়াবেটিসের সাধারণ লক্ষণগুলো

9)মূত্র রোগেঃ তিসির বীজ সিদ্ধ করে বা লিকারের সাথে মিশিয়ে এর ক্বাথ পান করলে মূত্র রোগে উপকার পাওয়া যায়।

10) বডি ম্যাসাজঃ তিসির তেল দিয়ে শরীর মালিশ করলে শরীর শক্তিশালী হয়। মুখে ম্যাসাজ করলে ত্বকে উজ্জ্বলতা আসে।

11) মহিলাদের হরমোনঃ তিসির বীজে লিঙ্গান রয়েছে। এটি ইস্ট্রোজেন এবং অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট সমৃদ্ধ। যা মহিলাদের হরমোনের ভারসাম্য বজায় রাখে।

12) ওমেগা 3 এর উৎসঃ যারা নিরামিষভোজী তাদের জন্য তিসির বীজ ওমেগা 3 এর একটি ভাল উৎস।

13) জয়েন্টের ব্যথা উপশমঃ তিসির বীজ খেলে শরীরের শক্ততা দূর হয় এবং জয়েন্টের ব্যথা উপশম হয়।

14) পুরুষদের জন্য এর উপকারিতাঃ এটি পুরুষদের শরীরের ক্লান্তি ও দুর্বলতা দূর করতে সহায়ক। এটি পুরুষদের যৌন সমস্যা দূর করতে সহায়ক।

বন্ধ্যাত্বের সমস্যায় ভুগছেন এমন পুরুষদের জন্য তিসির বীজ খাওয়া উপকারী। এটি পুরুষের শুক্রাণুর সংখ্যা বাড়ায় এবং উর্বরতা বাড়াতে সাহায্য করে।

15) খালি পেটে তিসির বীজ খাওয়ার উপকারিতাঃ

তিসির বীজ স্তন ক্যান্সার, প্রোস্টেট ক্যান্সার এবং কোলন ক্যান্সারের ঝুঁকি কমায়। এর জন্য, সকালে খালি পেটে তিসির বীজ খেতে হবে।

মহিলাদের যদি অনিয়মিত পিরিয়ড হয় বা পিরিয়ডের সময় প্রচণ্ড ব্যথা হয়, তাহলে খালি পেটে তিসির বীজ খেলে উপকার পাওয়া যায়।

তিসি বীজ এর অপকারিতা

আপনি যদি বেশি ফ্ল্যাক্সসিড বা তিসির বীজ খান এবং কম পানি পান করেন তবে এটি অন্ত্রে বাধা সৃষ্টি করতে পারে।

সঠিক পরিমাণে তিসি বীজ খেলে কোষ্ঠকাঠিন্য নিরাময় হয়, যেখানে অতিরিক্ত পরিমাণে খেলে ডায়রিয়া হতে পারে।

আপনি যদি গর্ভবতী হতে চান তবে আপনাকে তিসির বীজ বা ফ্ল্যাক্সসিড খাওয়া এড়িয়ে চলতে হবে।

খুব বেশি তিসির বীজ খাওয়ার ফলে অ্যালার্জি হতে পারে। নিম্ন রক্তচাপ, শ্বাসকষ্টের মতো সমস্যারও সম্মুখীন হতে পারেন।

আপনি তিসির বীজ বা ফ্ল্যাক্সসিড ব্যবহার করে আপনার ডায়েটে আরও অনেক পুষ্টি যোগ করতে পারেন। প্রকৃতপক্ষে, প্রায় এক চা চামচ তিসির বীজ শরীরে 37 ক্যালোরি সরবরাহ করে, যার মধ্যে ফাইবার, প্রোটিন, কপার এবং জিঙ্কের মতো প্রয়োজনীয় পুষ্টি রয়েছে।

আরো পড়ুনঃ

5/5 - (7 Reviews)

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *