হৃদরোগের লক্ষণ | Food & Fitness

হৃদরোগের লক্ষণ

হৃদয় আমাদের বেঁচে থাকার জন্য সবচেয়ে প্রয়োজনীয় অঙ্গগুলির মধ্যে একটি। এটি আমাদের শরীরের ইঞ্জিন হিসেবে কাজ করে। হৃৎপিণ্ড রক্তনালীগুলির একানব্বই-সাত হাজার কিলোমিটার দীর্ঘ নেটওয়ার্কের মাধ্যমে রক্ত ​​পাম্প করে। এটি দিনে 100,000 বারের বেশি স্পন্দিত হয় যা গড়ে জীবনকাল ধরে তিন বিলিয়নেরও বেশি হৃদস্পন্দন বন্ধ করে দেয়। এটি সমস্ত টিস্যুতে অক্সিজেন সমৃদ্ধ রক্ত ​​সরবরাহ করে এবং ক্ষতিকারক বর্জ্য দূর করে।

আমাদের হৃদয়কে ভাল অবস্থায় রাখা আমাদের জন্য অপরিহার্য । হৃদয়কে ভাল অবস্থায় রাখা দুটি সবচেয়ে প্রভাবশালী উপায় হলঃ

  • একটি স্বাস্থ্যকর জীবনধারা বজায় রাখা
  • অন্তর্নিহিত হৃদরোগের সংকেত হতে পারে এমন লক্ষণগুলির বোঝা

হৃদরোগের মধ্যে বেশ কিছু শর্ত রয়েছে যা আপনার হৃদয়কে প্রভাবিত করে। তাদের মধ্যে হলোঃ

  • করোনারি আর্টারি ডিজিজ – হৃৎপিণ্ডের রক্তনালীগুলির সাথে জড়িত রোগ
  • অ্যারিথমিয়াস- হার্টের ছন্দের সমস্যা (অ্যারিথমিয়াস)
  • জন্মগত হৃদপিন্ডের ত্রুটি বা ত্রুটি জন্ম থেকেই উপস্থিত
  • হার্টের ভালভ রোগ যেমন অ্যাট্রিয়াল স্টেনোসিস, মিট্রাল ভালভ স্টেনোসিস
  • হার্ট পেশী রোগ বা কার্ডিওমায়োপ্যাথি
  • সংক্রামক এন্ডোকার্ডাইটিসের মতো হার্টের সংক্রমণ

হৃদরোগের লক্ষণ

হৃদরোগের লক্ষণগুলি আপনার রোগের ধরন এবং তীব্রতার উপর নির্ভর করে। আসুন আমরা হৃদরোগের কিছু লক্ষণ আবিষ্কার করার চেষ্টা করিঃ

হার্টের রক্তনালীর রোগের লক্ষণঃ এথেরোস্ক্লেরোসিস বা ধমনীতে চর্বিযুক্ত ফলক জমা হৃৎপিণ্ড ও রক্তনালীকে ক্ষতিগ্রস্ত করে। এথেরোস্ক্লেরোসিস রক্তনালী সংকুচিত করে যা বুকে ব্যথা বা হার্ট অ্যাটাক বা স্ট্রোক হতে পারে।

করোনারি আর্টারি ডিজিজ (অথবা হৃদপিণ্ডের রক্তনালী জড়িত রোগ) পুরুষ এবং মহিলাদের জন্য বিভিন্ন উপসর্গ প্রদর্শন করতে পারে। করোনারি ধমনী রোগে আক্রান্ত পুরুষদের প্রধান লক্ষণ হিসেবে বুকে ব্যথা হওয়ার সম্ভাবনা বেশি থাকে। অন্যদিকে, করোনারি ধমনী রোগে আক্রান্ত মহিলাদের বুকে অস্বস্তি সহ অন্যান্য উপসর্গ যেমন বমি বমি ভাব, শ্বাসকষ্ট এবং চরম ক্লান্তি হওয়ার সম্ভাবনা বেশি থাকে।

করোনারি ধমনী রোগের লক্ষণ ও উপসর্গগুলি অন্তর্ভুক্ত করা হলোঃ

  • বুকে ব্যথা এবং অস্বস্তি
  • বুকে চাপ এবং চাপ অনুভব করা।
  • নিঃশ্বাসের দুর্বলতা
  • বাহুতে ব্যথা
  • অসাড়তা এবং শীতলতা
  • চোয়াল, ঘাড়, গলা, পিঠে বা উপরের পেটে ব্যথা

অনেক ক্ষেত্রে, একজনের হার্ট অ্যাটাক, হার্ট ফেইলিউর বা স্ট্রোক না হওয়া পর্যন্ত করোনারি আর্টারি ডিজিজ সনাক্ত করা যায় না। করোনারি ধমনী রোগের লক্ষণ সম্পর্কে সচেতনতা প্রাথমিক পর্যায়ে এটি মোকাবেলা করতে আমাদের সাহায্য করে।

অস্বাভাবিক হৃদস্পন্দন বা অ্যারিথমিয়াস জড়িত হৃদরোগের লক্ষণঃ অ্যারিথমিয়া আপনার হৃদস্পন্দনকে খুব দ্রুত বা খুব ধীর বা অনিয়মিত করে তুলতে পারে। একটি অ্যারিথমিয়ার লক্ষণ এবং উপসর্গগুলি অন্তর্ভুক্ত করা হলোঃ

  • টাকাইকার্ডিয়া বা দ্রুত হার্টবিট
  • ব্র্যাডিকার্ডিয়া বা ধীর হৃদস্পন্দন
  • বুকের মধ্যে ধুকপুক করছে
  • বুকে ব্যথা বা অস্বস্তি
  • নিঃশ্বাসের দুর্বলতা
  • হালকা মাথাব্যথা
  • মাথা ঘোরা বা অজ্ঞান হয়ে যাওয়া

জন্মগত হার্টের ত্রুটি জড়িত হৃদরোগের লক্ষণঃ সাধারণত, জন্মের পরপরই ডাক্তার জন্মগত হৃদপিন্ডের গুরুতর রূপগুলি লক্ষ্য করতে পারেন।

  • ত্বকের নীলাভ বা ধূসর বিবর্ণতা (সায়ানোসিস)
  • চোখের চারপাশে ফোলাভাব
  • পা বা পেট ফুলে যাওয়া
  • নিঃশ্বাসের দুর্বলতা
  • দুর্বল ওজন বৃদ্ধি

জন্মগত হার্টের ত্রুটির হালকা রূপগুলি শৈশব বা প্রাপ্তবয়স্ক হওয়ার শেষ পর্যন্ত নির্ণয়ের এড়াতে পারে।

জন্মগত হার্টের ত্রুটির মৃদু রূপের লক্ষণ এবং উপসর্গগুলি যা জীবন-হুমকিপূর্ণ নয়ঃ

  • ব্যায়াম বা কার্যকলাপের সময় শ্বাসকষ্ট
  • ক্লান্তি এবং অস্থিরতা
  • হাত, গোড়ালি বা পায়ে ফোলাভাব
  • হৃদপিন্ডের পেশী জড়িত রোগের লক্ষণ (কার্ডিওমায়োপ্যাথি)

কার্ডিওমায়োপ্যাথির প্রাথমিক পর্যায়ে হালকা থেকে কোনো লক্ষণ ও উপসর্গ থাকতে পারে না। কিন্তু রোগের বিকাশের সাথে সাথে লক্ষণগুলি আরও তীব্র হয়।

কার্ডিওমায়োপ্যাথির কিছু লক্ষণঃ

  • শ্বাসকষ্ট
  • পায়ের গোড়ালি ও পায়ে ফোলাভাব
  • ক্লান্তি
  • অনিয়মিত হৃদস্পন্দন
  • দ্রুত, ধাক্কাধাক্কি, বা ফ্লাটারিং হার্টবিট
  • মাথা ঘোরা,
  • হালকা মাথাব্যথা
  • মূর্ছা যাওয়া

এন্ডোকার্ডাইটিস (এন্ডোকার্ডিয়ামের সংক্রমণ) হার্টের চেম্বার এবং ভালভের ভিতরের আস্তরণকে প্রভাবিত করে।

হার্ট ইনফেকশনের লক্ষণ এবং উপসর্গগুলি অন্তর্ভুক্ত করা হলোঃ

  • জ্বর
  • নিঃশ্বাসের দুর্বলতা
  • ক্লান্তি এবং দুর্বলতা
  • পা বা পেট ফুলে যাওয়া
  • অনিয়মিত হৃদস্পন্দন
  • শুষ্ক বা ক্রমাগত কাশি
  • ত্বকে অস্বাভাবিক দাগ বা ফুসকুড়ি

হার্টের ভালভ রোগের লক্ষণঃ

চারটি হৃৎপিণ্ডের ভালভ। যেমনঃ

  • মহাধমনী
  • মাইট্রাল
  • পালমোনারি
  • ট্রিকাসপিড

ভালভ হৃৎপিণ্ডের মধ্য দিয়ে সরাসরি রক্ত ​​​​প্রবাহ করে। হার্ট ভালভ জড়িত সাধারণ অবস্থার কিছু লক্ষণঃ

  • হার্টের ভালভ সংকুচিত হওয়া (স্টেনোসিস)
  • হার্টের ভালভ ফুটো (রিগারজিটেশন বা অপর্যাপ্ততা)
  • ভালভের অনুপযুক্ত বন্ধ (প্রল্যাপস)।

ভালভুলার হৃদরোগের কিছু সাধারণ লক্ষণঃ

  • ক্লান্তি এবং অস্থিরতা
  • অনিয়মিত হৃদস্পন্দন
  • বুক ব্যাথা
  • নিঃশ্বাসের দুর্বলতা
  • পা বা গোড়ালি ফুলে যাওয়া

সর্বদা মনে রাখবেন প্রাথমিক সনাক্তকরণ একটি ভাল পূর্বাভাসের দিকে পরিচালিত করে। আপনার হার্টের বিষয়ে কোনো উদ্বেগ থাকলে সবসময় একজন কার্ডিওলজিস্টের সাথে কথা বলুন। আপনার যদি হৃদরোগের পারিবারিক ইতিহাস থাকে, এখনই হার্ট-স্বাস্থ্যকর অভ্যাস শুরু করুন। যদি আপনি মনে করেন যে লক্ষণগুলির উপর ভিত্তি করে আপনার হৃদরোগ হতে পারে, অবিলম্বে কার্ডিওলজিস্টের সাথে অ্যাপয়েন্টমেন্ট করুন।

আরো পড়ুনঃ

Rate this post

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *