ত্বকের উজ্জ্বলতা বৃদ্ধির খাবার তালিকাঃ কমপ্লিট ডায়েট প্ল্যান

বিউটি এক্সপার্টদের কাছ থেকে আমরা ত্বকের উজ্জ্বলতা বৃদ্ধির খাবার তালিকাটি সংগ্রহ করেছি।

বলা হয়ে থাকে মুখের সৌন্দর্য ভেতর থেকে আসে। অতএব, বিভিন্ন ধরণের ক্রিম এবং প্রেসক্রিপশন গ্রহণ করার চেয়ে সঠিক খাবার খাওয়া আরও গুরুত্বপূর্ণ। তাই আজকের আর্টিকেলে আমরা নিয়ে এসেছি ত্বকের উজ্জ্বলতা বৃদ্ধির জন্য ডায়েট প্ল্যান। এছাড়াও জেনে নিন ত্বকের উজ্জ্বলতা বাড়ানোর জন্য ডায়েটে কী কী অন্তর্ভুক্ত করা উচিত নয়।

ত্বকের উজ্জ্বলতা বৃদ্ধির জন্য ডায়েট প্ল্যান

যদি মনে প্রশ্ন থাকে যে ত্বকের উজ্জ্বলতা বাড়ানোর জন্য কী খাবেন, তাহলে এই ডায়েট প্ল্যানটি আপনার জন্য। যাইহোক, তার আগে, আমরা এটি পরিষ্কার করতে চাই যে এখানে উল্লিখিত ডায়েট চার্টটি বয়স, স্বাস্থ্য এবং আপনার ত্বকের ধরন অনুসারে পরিবর্তিত হতে পারে।

সময়খাদ্য উপাদান
খুব ভোরে (6:00 থেকে 6:30)এক গ্লাস পানিতে দুই থেকে তিন ফোঁটা লেবুর রস অথবা এক গ্লাস পানিতে এক থেকে দুই চা চামচ অ্যালোভেরার রস
প্রাতঃরাশ (সকাল 8:00 থেকে সকাল 9:00 পর্যন্ত)1 কাপ পেঁপে + 1 কাপ দুধ / সয়া দুধ / সবুজ চা + 4টি বাদাম বা 2টি পুরো গমের রুটি + 1 কাপ রিকোটা পনির / সেদ্ধ ডিম / ওটমিল
খাবার (12:00 থেকে 1:00)শাকসবজির সাথে চারটি লেটুস মোড়ানো এবং আধা বাটি মুরগি/মাশরুম/টোফু + এক কাপ বাটারমিল্ক বা হালকা সেদ্ধ করা সবজি + আধা বাটি গ্রিলড ফিশ/চিকেন/মসুর ডালের স্যুপ + এক কাপ বাদামী চাল
সন্ধ্যার নাস্তা (4:30-5:30 PM)এক কাপ সবুজ চা বা এক কাপ তাজা ফল/সবজির রস
রাতের খাবার (8:00-9:00 pm)আধা বাটি সবুজ সবজি/চিকেন স্টু + এক কাপ রাইতা বা আধা বাটি মিশ্র সবজির তরকারি + দুটি ফ্ল্যাট রুটি
শোবার আগে (রাত ১০টা)1 কাপ উষ্ণ দুধ/পানি + এক চিমটি হলুদ

টিপস: মুখের উজ্জ্বলতা বাড়াতে স্বাস্থ্যকর খাবারের পাশাপাশি যোগাসন করাও প্রয়োজন। তাই প্রতিদিন সকালে ঘুম থেকে উঠে কপালভাতি ও অনুলোম বিলোমের মতো প্রাণায়াম করুন।

See also  চুলে তেল দেয়ার সঠিক নিয়ম - How To Apply Hair Oil

ত্বকের উজ্জ্বলতা ধরে রাখতে খাবার

আসুন এবার জেনে নেই ত্বকের উজ্জ্বলতা ধরে রাখতে যেসব খাবার খেতে হবে:

এলোভেরাঃ উজ্জ্বল ত্বক পাওয়ার জন্য ডায়েটে অ্যালোভেরা অন্তর্ভুক্ত করুন। এটি বলিরেখা কমিয়ে ব্রণ নিরাময় করতে পারে। এছাড়াও, এটি ত্বককে স্বাস্থ্যকর এবং কোমল করে তুলতে পারে এবং একটি নতুন আভা দেয়।

আরো পড়ুনঃ এলোভেরা দিয়ে ফর্সা হওয়ার উপায়, এলোভেরা দিয়ে মুখের যত্ন নেয়ার নিয়ম

হলুদঃ কয়েকশ বছর ধরে ত্বকের জন্য হলুদ ব্যবহার হয়ে আসছে। আসলে হলুদে পলিফেনল থাকে। এটি ত্বকে মেলানিনের উৎপাদন কমাতে পারে, যার ফলে মুখের উজ্জ্বলতা বজায় থাকে। এটিতে এন্টিব্যাকটেরিয়াল, এন্টিসেপটিক এবং এন্টি-ইনফ্ল্যামেটরি বৈশিষ্ট্য রয়েছে, যা ব্রণের বিরুদ্ধে লড়াই করতে এবং ত্বকের উজ্জ্বলতা বজায় রাখতে সাহায্য করে।

পানিঃ পানি পান করাও ত্বকের উজ্জ্বলতা ধরে রাখার জন্য উপকারী। গবেষণা অনুসারে, প্রতিদিন অন্তত ৮ থেকে ১০ গ্লাস পানি পান করা উচিত। এটি ত্বক থেকে বিষাক্ত পদার্থ বের করে দেয়। এই প্রক্রিয়াটি ত্বকের উজ্জ্বলতা বজায় রাখতে সাহায্য করে।

ফলঃ ফল খেলেও ত্বকের উজ্জ্বলতা বজায় থাকে। ফলের মধ্যে ভিটামিন-সি-এর মতো গুরুত্বপূর্ণ পুষ্টি উপাদান রয়েছে, যা ত্বককে নানাভাবে রক্ষা করে। সূর্যের ক্ষতিকর রশ্মি থেকে রক্ষা করার পাশাপাশি এটি মেলানিনের উৎপাদনও কমাতে পারে।

আরো পড়ুনঃ আপনার ত্বকের জন্য লিচুর আশ্চর্যজনক উপকারিতা, ত্বকের উজ্জ্বলতা বাড়ানোর জন্য সেরা ১০টি ফল

আপনি কি জানেন?
রাত জাগার কারণেও মুখের উজ্জ্বলতা নষ্ট হয়ে যেতে পারে। অতএব, আপনি যদি উজ্জ্বল ত্বক পেতে চান, তাহলে অবশ্যই কমপক্ষে 8 ঘন্টা ঘুমান।

মাছের তেলঃ ভাল স্বাস্থ্য ছাড়াও, মাছের তেল খাওয়া ত্বকের উজ্জ্বলতা বাড়াতে উপকারী। মাছের তেল এলার্জি, ব্রণ এবং পিগমেন্টেশনের সমস্যা কমিয়ে ত্বকের উজ্জ্বলতা বজায় রাখতে পারে।

গাজরঃ উজ্জ্বল ত্বকের জন্য খাবারের তালিকায় গাজর অন্তর্ভুক্ত করুন। গাজরে প্রচুর পরিমাণে বিটা-ক্যারোটিন থাকে। এটি স্বাস্থ্যকর ত্বকের বিকাশে সহায়তা করে। এছাড়াও, গাজর সূর্যের ক্ষতিকর রশ্মি থেকে ত্বককে রক্ষা করে, যা বার্ধক্যের প্রভাব কমায় এবং ত্বককে তারুণ দেখায়।

See also  দুধ দিয়ে ত্বকের যত্ন এবং চুলের যত্ন নেয়ার নিয়ম

আরো পড়ুনঃ গাজর খাওয়ার উপকারিতা ও অপকারিতা এবং নিয়ম

দইঃ দই অনেক গুণে সমৃদ্ধ। এই কারণেই এর সেবন শুধুমাত্র স্বাস্থ্য নয় ত্বকের জন্যও উপকারী। দই ত্বকের স্থিতিস্থাপকতা বাড়ায়। উপরন্তু, এটি ডিটক্সিফিকেশন প্রক্রিয়াতে একটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। এর ফলে শরীরের টক্সিন বেরিয়ে আসে এবং ত্বক উজ্জ্বল হতে থাকে।

আরো পড়ুনঃ টক দই দিয়ে ফর্সা ও উজ্জ্বল ত্বক পেতে ৫টি ফেসপ্যাক, দই খাওয়ার উপকারিতা ও অপকারিতা এবং নিয়ম, টক দই মুখে মাখার উপকারিতা এবং নিয়ম, টক দই রেসিপি কমপ্লিট টিউটোরিয়াল

ব্রকলিঃ ব্রকলিকে সুপারফুড হিসেবে গণ্য করা হয়। এটি শুধু এন্টিঅক্সিডেন্টই নয় ভিটামিন সিও সমৃদ্ধ। এতে জিঙ্ক ও কপারও ভালো পরিমাণে থাকে। এই সব পুষ্টিগুণ ত্বককে সুস্থ রাখে। এছাড়াও, ব্রকলিতে সংক্রমণের বিরুদ্ধে লড়াই করার ক্ষমতাও রয়েছে। এই সমস্ত বৈশিষ্ট্য ত্বকের উজ্জ্বলতা বাড়াতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে।

ডালিমঃ ডালিম ত্বককে পুনরুজ্জীবিত করতে সাহায্য করে। আসলে, ডালিমের হাইপারপিগমেন্টেশনের পাশাপাশি দাগ প্রতিরোধ করার ক্ষমতা রয়েছে। এর অ্যান্টি-এজিং বৈশিষ্ট্য মুখের বলিরেখা কমাতে সাহায্য করে। এছাড়াও, ডালিমের রস ত্বকের রঙ বাড়াতে উপকারী।

করলাঃ করলা খাওয়ার উপকারিতা ও অপকারিতা আপনি জানেন নিশ্চয়ই? করলা স্বাদে তেতো হতে পারে, তবে এটি ত্বকের উজ্জ্বলতা বাড়াতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করতে পারে। করলার নির্যাসের এন্টিঅক্সিডেন্ট প্রভাব রয়েছে, যা ত্বককে ফ্রি র‍্যাডিক্যাল থেকে রক্ষা করে। এছাড়াও, করলাতে এন্টি-পিগমেন্টেশন প্রভাব পাওয়া গেছে, যা ত্বকের উজ্জ্বলতা বজায় রাখতে সাহায্য করে।

লাউঃ ত্বকের উজ্জ্বলতা বাড়াতে লাউ খাবারে অন্তর্ভুক্ত করুন। প্রকৃতপক্ষে, লাউ অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট বৈশিষ্ট্যে সমৃদ্ধ। এর এই বৈশিষ্ট্যটি ত্বককে ফ্রি র‍্যাডিক্যাল থেকে রক্ষা করার পাশাপাশি বার্ধক্যের প্রভাব কমাতে পারে। এটি সূর্যের ক্ষতিকারক রশ্মি থেকে ত্বককে রক্ষা করে উজ্জ্বলতা বজায় রাখতে পারে।

গ্রিন টিঃ ওজন কমানোর পাশাপাশি, ত্বকের উজ্জ্বলতা বাড়াতে প্রতিদিনের রুটিনে গ্রিন টি অন্তর্ভুক্ত করুন। সবুজ চায়ে পলিফেনল নামক যৌগ থাকে যা ত্বকে রক্ত সঞ্চালন এবং অক্সিজেন বাড়াতে সাহায্য করে। এছাড়া এটি সূর্যের ক্ষতিকর রশ্মি থেকেও ত্বককে রক্ষা করতে পারে। এই প্রক্রিয়াটি ত্বকের উজ্জ্বলতা ধরে রাখতে সাহায্য করে।

See also  চন্দন দিয়ে রূপচর্চাঃ ব্রণ দূর করতে ব্যবহার করুন

শসাঃ ত্বকের উজ্জ্বলতা বাড়াতে এবং টানটান করতে শসা বহু বছর আগে থেকেই ব্যবহার হয়ে আসছে। শসার রসে প্রচুর পরিমাণে সিলিকা রয়েছে, যা বর্ণ উজ্জ্বল করতে এবং ত্বককে উজ্জ্বল করতে পরিচিত। এটি ত্বকের আর্দ্রতাও বজায় রাখে।

টমেটোঃ টমেটো খেলে ত্বকের উজ্জ্বলতা বাড়ানো যায়। আসলে টমেটোতে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট হিসেবে উপস্থিত লাইকোপিন প্রাকৃতিক সানস্ক্রিন হিসেবে কাজ করে। এটি সূর্যের ক্ষতিকর রশ্মি থেকে রক্ষা করে ত্বকের উজ্জ্বলতা বাড়াতে পারে। উপরন্তু, এর প্রাকৃতিক অ্যাস্ট্রিনজেন্ট বৈশিষ্ট্যগুলি খোলা ছিদ্রের আকার কমিয়ে দেয় এবং অতিরিক্ত তেলও দূর করে।

আরো পড়ুনঃ প্রতিদিন মুখে টমেটো লাগানোর উপকারিতা, টমেটোর উপকারিতা ও অপকারিতা এবং খাওয়ার নিয়ম

কি খাবেন না

উজ্জ্বল ত্বকের জন্য নিচে উল্লেখিত খাবারগুলো থেকে দূরে থাকা জরুরি:

• মশলাদার খাবার
• বেশি তৈলাক্ত বা জাঙ্ক ফুড
• উচ্চ সোডিয়াম এবং চিনিযুক্ত খাবার
• যেসব খাবার শরীরের অভ্যন্তরীণ তাপমাত্রা বাড়ায়

ত্বকের উজ্জ্বলতা ধরে রাখার জন্য ডায়েট টিপস

ত্বকের উজ্জ্বলতা ধরে রাখতে নিচের বিষয়গুলোও খেয়াল রাখা জরুরি।

• সবসময় সঠিক সময়ে খাবার খান।
• সকালের নাস্তা এড়িয়ে চলুন।
• আপনার খাদ্যতালিকায় দুধ, দই, নারকেল পানি, বাটারমিল্ক বা ফলের রস অন্তর্ভুক্ত করুন।
• অ্যালার্জিযুক্ত খাবার থেকে দূরে থাকুন।
• প্রচুর পানি পান করতে থাকুন।

সতর্কতাঃ ত্বকের উজ্জ্বলতা বাড়ানোর জন্য মুখে অতিরিক্ত রাসায়নিক সমৃদ্ধ পদার্থ ব্যবহার করবেন না। এতে ত্বকের ক্ষতি হতে পারে।

সচরাচর জিজ্ঞাস্য

উজ্জ্বল ত্বকের জন্য কোন ফল সবচেয়ে ভালো?

উজ্জ্বল ত্বকের জন্য পেঁপে, কমলা, অ্যাভোকাডো, কলা ইত্যাদি খাওয়া যেতে পারে।

ফর্সা হতে কোন ফলের রস পান করা উচিত?

উজ্জ্বল ত্বকের জন্য আপনি অ্যালোভেরা, পেঁপে, ডালিম, পালং শাক ইত্যাদির রস পান করতে পারেন।

উপসংহার

ত্বকের উজ্জ্বলতা পাওয়ার জন্য সঠিক খাদ্যাভ্যাস খুবই গুরুত্বপূর্ণ, এতে কোনো সন্দেহ নেই। অতএব, আজ থেকেই আপনার রুটিনে ত্বক উজ্জ্বল করার ডায়েট প্ল্যান অন্তর্ভুক্ত করুন। এছাড়াও, আপনার ত্বকের ক্ষতি করতে পারে এমন খাবার থেকে দূরে থাকুন। তাছাড়া, আপনার দৈনন্দিন রুটিনে যোগব্যায়াম এবং ব্যায়াম অন্তর্ভুক্ত করতে ভুলবেন না।

5/5 - (17 Reviews)
foodrfitness
foodrfitness
Articles: 234

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *