দই খাওয়ার উপকারিতা ও অপকারিতা এবং নিয়ম

আজকের পোস্টে আপনারা জানবেন দই খাওয়ার উপকারিতা ও অপকারিতা সম্পর্কে। আরো জানবেন দই কখন খাবেন এবং দই খাওয়ার সঠিক নিয়ম।

দইয়ের অনেক উপকারিতার কারণে এটি সারা বিশ্বে একটি প্রিয় খাদ্য উপাদান। বলা হয়ে থাকে দুধের চেয়ে দই বেশি উপকারী। দই স্বাস্থ্য ও সৌন্দর্য উভয়ের জন্যই খুব ভালো।

আমাদের দেশ ছাড়াও বিদেশের লোকেরা দিনের বেলায় খাবারে এটি গ্রহণ করে। চিকিৎসক এবং সমস্ত ডায়েটিশিয়ানরা দুপুরের খাবারে 1 বাটি দই খাওয়ার পরামর্শ দেন।

তাজা দইয়ে অনেক পুষ্টি উপাদান রয়েছে যা আমাদের শরীরের জন্য উপকারী। দুধে চর্বি বেশি থাকে, যার কারণে এক সময় শরীরে এর পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া দেখা দেয়। কিন্তু দইয়ে ফ্যাট অনেক কম, কম ফ্যাট দুধ দিয়ে তৈরি দইয়ে ফ্যাট একেবারেই নেই।

দই খাওয়ার উপকারিতা ও অপকারিতা

দই আমাদের শহরের জন্য খুবই উপকারী একটি উপাদান। এখানে আমরা আপনাকে এর উপকারিতা ও অপকারিতা সম্পর্কে তথ্য দিতে যাচ্ছি।

দইয়ের পুষ্টিগুণ

পুষ্টি উপাদানপ্রতি ১০০ গ্রাম
ক্যালোরি100-150
চর্বি2 গ্রাম
চিনি20 গ্রাম
প্রোটিন8-9 গ্রাম
ভিটামিন ডি20 গ্রাম
ক্যালসিয়াম20 গ্রাম

এছাড়াও এতে ফসফরাস, আয়রন, ল্যাকটোজ রয়েছে। দইয়ের অনেক উপকারিতা রয়েছে, যেগুলো সম্পর্কে আজ আমি আপনাদের বলব এবং কখন খেতে হবে তাও জানাব।

দইয়ের উপকারিতা ও বৈশিষ্ট্য

হার্টের জন্য উপকারীঃ আজকাল হার্ট সংক্রান্ত সমস্যা বয়সের কারণে হয় না, আজকের ডায়েটের কারণে অল্প বয়সেই এই সমস্যার সম্মুখীন হতে হয়। এটি এড়াতে আপনার দই খাওয়া উচিত, প্রতিদিন দই খেলে আপনার হার্টের যত্ন নেয়া হয়। দই খেলে কোলেস্টেরল কমে এবং উচ্চ রক্তচাপও নিয়ন্ত্রণে থাকে।

রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়ঃ দইয়ে উপস্থিত ব্যাকটেরিয়া আমাদের শরীরের ভিতরে থাকা জীবাণু এবং চারপাশের ছোট ছোট জীবাণুর সাথে লড়াই করার ক্ষমতা বাড়ায়। দই খেলে শরীরে চাঞ্চল্য আসে এবং অনেক রোগ দূরে থাকে।

হাড় মজবুত করেঃ দইয়ে ক্যালসিয়াম থাকে যা হাড়ের জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ। এটি হাড় ও দাঁত মজবুত করে।

পাচনতন্ত্রকে শক্তিশালী করেঃ দই খেলে হজম ঠিকমতো হয়, কোষ্ঠকাঠিন্য, গ্যাস, অ্যাসিডিটির মতো সমস্যা দূর হয়।

আলসার নিরাময় করেঃ পাকস্থলীর আলসার ও ক্যান্সার থেকে শরীরকে রক্ষা করে দই।

ওজন কমাতে সহায়কঃ দই খেলে অনেকক্ষণ পেট ভরা থাকে যা ক্ষুধা কমিয়ে দেয়। এতে প্রচুর পরিমাণে প্রোটিন এবং ক্যালসিয়াম থাকে যা ওজন নিয়ন্ত্রণে সহায়ক। দইতে ক্যালরিও কম। দই শরীরের অতিরিক্ত চর্বি দূর করে।

দই ত্বকের জন্য উপকারীঃ দই মুখে উজ্জ্বলতা আনে, ট্যানিং ও মুখের ময়লা দূর করে। এটি ব্রণ, দাগ এবং দাগও দূর করে।

দইয়ে বেসন, লেবুর রস মিশিয়ে মুখে ও বাগানে ১৫ মিনিট লাগিয়ে রাখুন। সপ্তাহে দুবার এটি করলে মুখ পরিষ্কার হবে।

প্রতিদিন গোসলের আগে ১ চা চামচ তাজা দই মুখে লাগান। শুষ্কতা ও ট্যানিং চলে যাবে।

কমলার খোসার গুঁড়া এবং দই মিশিয়ে মুখে লাগান।

হলুদ, দই ও গোলাপজল মিশিয়ে মুখে লাগিয়ে রাখুন ১০ মিনিট।

দই চুলের জন্য উপকারী

দই চুলের জন্য একটি প্রাকৃতিক কন্ডিশনার, যা চুলকে আর্দ্রতা দেয়।

চুলে 30 মিনিটের জন্য তাজা দই লাগান তারপর জল দিয়ে ধুয়ে ফেলুন, আপনি এটি মেহেদি এবং ডিমের সাথে মিশিয়েও লাগাতে পারেন। এটি চুলকে স্বাস্থ্যকর, লম্বা, কালো করে।

সপ্তাহে দুবার দইয়ে বেসন ও কালো গোলমরিচের গুঁড়া লাগালে চুল পড়া কমে এবং খুশকিও দূর হয়।

দইয়ের সঙ্গে মেথির গুঁড়া মিশিয়ে লাগালে চুল উজ্জ্বল হয়।

অন্যান্য উপকারিতা

গরমকালে প্রতিদিন দই খাওয়া উচিত। এর সাথে, আপনি তাপ, তাপ থেকে দূরে থাকুন। এতে পেটের তাপ ঠান্ডা হয়।

মুখে ঘা হলে বাটার মিল্ক দিয়ে ধুয়ে ফেললে মুখের ভাল হয়।

দই সম্পর্কিত অন্যান্য তথ্য

রাতে দই খেলে স্বাস্থ্যের ওপর খারাপ প্রভাব পড়ে।

আপনি যদি রাতে দই খান তবে লবণ, কালো মরিচ বা চিনি মিশিয়ে খান। আর ঘুমানোর আগে ব্রাশ করুন।

শীতকালে দই খাওয়ার পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া আছে।

খালি পেটে দই খাবেন না।

রোদ থেকে আসার পরপরই দই খাওয়া উচিত নয়।

দই কখনই গরম করা উচিত নয়।

পাইলসের রোগীদের দই এড়িয়ে চলতে হবে।

প্রতিদিন দই খেলেও ওজন বাড়তে পারে, তাই যারা ওজন কমাতে চান তাদের বিশেষ খেয়াল রাখতে হবে যে দই তৈরি হয় কম চর্বিযুক্ত দুধ থেকে।

দই এর অপকারিতা

বাতের সমস্যা হতে পারেঃ বাতের সমস্যায় আক্রান্তদের জন্য দই খাওয়া বিষের মতো। কারণ এই মানুষদের দই খেলে জয়েন্টের ব্যথার সমস্যা আরও বেড়ে যায়। যার কারণে নানা সমস্যার আশঙ্কা রয়েছে। তাই তারা দই খেতে চাইলে চিকিৎসকের পরামর্শ নিতে হবে।

ডায়াবেটিস রোগীদের দই সাবধানে খাওয়া উচিতঃ আপনি যদি ডায়াবেটিক রোগী হন তবে আপনার জন্য সতর্ক হওয়া খুবই জরুরী।

কারণ আপনি যদি অতিরিক্ত পরিমাণে দই খান তাহলে তা আপনার স্বাস্থ্যের অবনতি ঘটাতে পারে। যার কারণে আপনার সমস্যা হতে পারে, আপনার ডায়াবেটিস বাড়তে পারে। তাই সাবধানে দই খাওয়া উচিত।

গলায় টনসিল হতে পারেঃ অতিরিক্ত দই সেবন আপনার গলার জন্য ক্ষতিকর হতে পারে, তা ঠাণ্ডা হোক বা গ্রীষ্ম, কারণ এটি আপনার গলার পেশীতে ফুলে যেতে পারে, যার কারণে আপনার গলায় টনসিল হতে পারে, তাহলে তা সেবন করুন তবে অল্প পরিমাণে।

অত্যধিক টক দই খাবেন নাঃ অত্যধিক টক দই আপনার জন্য খুব ক্ষতিকারক কারণ। এর সেবনে বুকজ্বালা এবং গ্যাসের সমস্যা হতে পারে, তাই অল্প পরিমাণে বা একেবারেই দীর্ঘ সময় ধরে রাখা দই খাবেন না।

কখন দই খাবেন

আপনার সকালে বা বিকেলে দই খাওয়া উচিত কারণ এই সময়ে দই আপনাকে উপকার করে। প্রোটিন, জিঙ্ক, ক্যালসিয়াম ইত্যাদি যাই থাকুক না কেন, আপনার শরীর তা ভালোভাবে পায়।

যার কারণে কোনো ধরনের সমস্যায় পড়তে হবে না। তাই আমাদের প্রবীণরাও বলে থাকেন যে আপনি যদি দিনে দই খান তাহলে গলার সমস্যা বা বাতের মতো সমস্যা হবে না। এছাড়াও এটি আপনাকে ঠান্ডা রাখবে।

দই খাওয়ার সময় এর সাথে সম্পর্কিত সমস্ত বিষয় মাথায় রাখুন। এটি শুধুমাত্র সীমিত পরিমাণে খান, অতিরিক্ত পরিমাণ স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর। সব সময় খেয়াল রাখবেন দই যেন সবসময় টাটকা থাকে।

FAQ

প্রশ্নঃ কি কি উপায়ে দই খাওয়া যায়?

উত্তর: টক দই, মিষ্টি দই এবং অন্য কিছু যোগ করে খেতে পারেন।

প্রশ্নঃ কোন সময়ে দই খাওয়া ভালো?

উত্তর: আপনি যদি বিকেলে দই খান, তাহলে তা আপনার জন্য খুবই উপকারী প্রমাণিত হবে।

প্রশ্নঃ দই খাওয়ার অসুবিধাগুলো কি কি?

উত্তর: দই খেলে আর্থ্রাইটিস, গলায় টনসিলের মতো সমস্যা হতে পারে।

প্রশ্নঃ দই বানানোর সঠিক উপায় কি?

উত্তর: দই সেট করতে হলে দুধকে একটু গরম করতে হবে, তাতে কিছু দই মিশিয়ে সারারাত রেখে দিন, দই জমে যাবে।

প্রশ্নঃ কোন সময়ে দই খাওয়া উচিত নয় ?

উত্তর : রাতে দই খাওয়া উচিত নয়, এতে আপনার গলায় অনেক সমস্যা হতে পারে।

আরো পড়ুনঃ

5/5 - (14 Reviews)

Leave a Reply

Your email address will not be published.