নামাজ পড়লে অনেক উপকার পাওয়া যায়, জেনে নিন আপনিও

মুসলিম ব্যক্তি ছাড়াও, আপনি আপনার ওয়ার্কআউট রুটিনে নামাজকেও অন্তর্ভুক্ত করতে পারেন কারণ এর অনেক স্বাস্থ্য উপকারিতা রয়েছে, এখানে জেনে নিন। 

বাংলাদেশে, সমস্ত ধর্মের লোকেরা তাদের আল্লাহ বা ঈশ্বরের উপাসনা করে, কারণ প্রতিটি ধর্মেই সমস্ত কিছুর বৈজ্ঞানিক কারণ রয়েছে, যা মানুষকে মানসিক এবং শারীরিকভাবে বিভিন্নভাবে উপকার করে।

আপনি অবশ্যই মুসলমানদের নামাজ পড়তে দেখেছেন কারণ দিনে পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ ইসলামের একটি মৌলিক অংশ। কারণ ইসলামে আল্লাহ ও তাঁর রাসূলের প্রতি ঈমান আনার পর নামাজ ফরজ হয়ে যায় সকল মানুষের উপর, সে নর-নারী, গরীব বা ধনী, সকল মানুষের জন্যই নামাজ পড়া আবশ্যক। 

কিন্তু আপনি কি জানেন যে কোন ব্যক্তি সহজেই নামাজ পড়তে পারেন। কারণ প্রতিদিন নামাজ পড়ার অনেক আধ্যাত্মিক ও শারীরিক এবং অনেক বৈজ্ঞানিক উপকারিতা রয়েছে। হ্যাঁ, নামাজ পড়া শুধু আপনার শরীরকে ওয়ার্কআউট করে না বরং আপনাকে অনেক স্বাস্থ্য উপকারিতাও দেয়। এ বিষয়ে বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকরা বলেন, নামাজ ও এর প্রতিটি অবস্থান পাঠ করলে শরীরে পরিপূর্ণ ব্যায়াম হয়।

একই সাথে, এটি শরীরের প্রতিটি অংশের প্রসারিত করারও সুযোগ দেয়, যেমন- নামাজের দাঁড়ানো অবস্থায়, ফুসফুস এবং রক্ত ​​​​সঞ্চালন ব্যবস্থা নিয়ন্ত্রণে থাকে এবং পিছনের পেশীগুলি রুকুতে গিয়ে নমনীয় থাকে। নামাজের আরও অনেক উপকারিতা রয়েছে, চলুন এখানে ৪টি উপকারিতা দেখে নিই।

১. নামাজে স্থির অবস্থানের উপকারিতা

নামায পড়ার প্রথম অবস্থান হল যেখানে ব্যক্তি সোজা হয়ে দাঁড়ায় এবং এতে ব্যক্তি তার সমস্ত শরীরকে শক্ত রাখে। এই অবস্থানে থাকার অনেক উপকারিতা রয়েছে যেমন- আপনি যখন আপনার বুকে আপনার হাত রাখেন তখন এটি আপনার হৃৎপিণ্ড, ফুসফুস এবং রক্ত ​​​​সঞ্চালন ব্যবস্থা নিয়ন্ত্রণে রাখে। এই অবস্থান হ্যামস্ট্রিং প্রসারিত করতে সাহায্য করে। এই প্রার্থনার ভঙ্গি হ্যামস্ট্রিংগুলিকে প্রসারিত করতে কার্যকর এবং যেকোন শারীরিক চাপের ঝুঁকি প্রতিরোধ করে।

আরো পড়ুনঃ ধূমপান এবং ফুসফুসের ক্যান্সার, ক্যান্সারের চিকিৎসা

২. রুকুতে অবস্থানের উপকারিতা

নামাযের রুকুর অবস্থান অর্ধ-উত্তনাসনের অনুরূপ। আপনি এই অবস্থানে আসার সাথে সাথে আপনার পিছনের পেশীগুলি নমনীয় হয় এবং আপনার কিডনিও সামনে বাঁকিয়ে সঠিকভাবে কাজ করে। এছাড়াও, এই ভঙ্গির নিয়মিত অনুশীলন পিঠের নীচের অংশকে শক্তিশালী করতে সহায়তা করে এবং নিম্ন পিঠে ব্যথা এবং অন্যান্য চাপের সূত্রপাত হ্রাস করে এবং সঠিক রক্ত ​​​​সঞ্চালন বজায় রাখে।

৩. সিজদায় অবস্থানের উপকারিতা

যখন আপনি সিজদায় যাবেন, তখন এই অবস্থানটি ঠিক বজ্রাসনের ভঙ্গির মতো হবে, যেখানে আপনাকে আপনার উভয় পা পিছনের দিকে বাঁকিয়ে বসতে হবে। এটি আমাদের পরিপাকতন্ত্রকে নানাভাবে সাহায্য করে। এটি আমাদের পা এবং উরুতে রক্ত ​​​​প্রবাহকে বাধা দেয় এবং এটি আমাদের পেটের অংশকে বৃদ্ধি করে, এইভাবে আমাদের অন্ত্রের গতিবিধি উন্নত করে এবং কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করে।

আরো পড়ুনঃ অতিরিক্ত গ্যাস্ট্রিক থেকে মুক্তির উপায়

৪. শেষ বসার অবস্থানের উপকারিতা

নামাজ শেষে আপনাকে বসতে হবে, যার কারণে আপনার নিতম্ব, উরু ও কোমরের ভেতরের অংশে প্রসারিত হয়ে আসে। এছাড়াও, এই অবস্থানটি শরীরের আঁটসাঁট অঙ্গগুলি খুলতে সাহায্য করে আরামের অনুভূতি তৈরি করতে এবং অঙ্গগুলি খোলা মেরুদণ্ড এবং পিঠের জন্য খুব উপকারী। এই অবস্থানটি আপনাকে এবং আপনার মনে শান্তি আনতে সাহায্য করে এবং পুনর্জীবনের অনুভূতি দেয়।
 
এছাড়াও, আপনি যদি ওজন কমাতে চান, তাহলে প্রার্থনা আপনার জন্য খুব উপকারী প্রমাণিত হবে। কারণ আপনি যখন সিজদায় যান, তখন তা আপনার পেটে চাপ দেয় এবং আপনার পেটের চর্বি আপনাআপনি কমে যায়। এজন্য আপনি নিয়মিত আপনার রুটিনে নামাজ অন্তর্ভুক্ত করতে পারেন। 

এভাবে নামায পড়লে আপনি এই শারীরিক উপকার পাবেন।

আরো পড়ুনঃ

5/5 - (11 Reviews)

Leave a Reply

Your email address will not be published.