রাগ কেন হয়

আমরা প্রায়ই সবাই কারণে অকারণে রেগে থাকি। এর মধ্যে কেউ কেউ হুটহাট রেগে যায়,আবার কেউবা রাগ মনের মধ্যে পুষে রাখে যা আমাদের শরীর ও মনের জন্য বেশি ক্ষতিকর।যারা অল্পতে রেগে যায় এবং সেই রাগ বহুদিন পুষে রাখে, রাসুল (সা.) তাদের নিকৃষ্ট মানুষ বলে আখ্যা দিয়েছেন। (তিরমিজি, হাদিস : ২১৯১)

রাগ কেন হয়ঃ খুবই জটিল একটি বিষয় , রাগ কেন পায়? এক কথায় এর উওর দেয়া সম্ভব নয়।বিজ্ঞানীদের মতে, আমাদের মস্তিষ্কের এক বিশেষ অঞ্চল লিম্বিক সিস্টেম। মাস্টার গ্ল্যান্ড বা পিট্যুইটারি আর হাইপোথ্যালামাসের সমন্বয়ে গড়ে উঠেছে লিম্বিক হাইপোথ্যালামাস পিট্যুইটারি অ্যাক্সিস। এ অ্যাক্সিসের বৃদ্ধির কারণেই সৃষ্টি হয় ক্রোধ বা রাগ। রাগ, দুঃখ, ভয়ের পেছনেই রয়েছে মূলত দু’টো নিওরো-হরমোনের নির্দিষ্ট মাত্রার ওঠা-নামা। হরমোন দু’টো হলো- অ্যাড্রিনালিন ও এরঅ্যাড্রিনালিন। এদের মাত্রা বেড়ে যাওয়ায় মানুষ রেগে ওঠে। আর ক্রমাগত চাপা রাগ এ দুই হরমোনের মাত্রা আরও উর্ধ্বমুখী করে তোলে।

আলবার্ট বান্দুরার মতো মনোবিজ্ঞানীরা ধারণা করেন, ব্যক্তির অনিয়ন্ত্রিত রাগ মূলত তিনি পরিবেশ থেকেই শেখেন। অন্য দিকে

 ইসলাম রাগকে একটি মানবীয় ত্রুটি হিসেবে উল্লেখ করে তাকে দমন করতে বলেছে। ইসলামী শরিয়তে বর্ণিত আছে-

নবী করিম (সা.) ইরশাদ করেন, ‘নিশ্চয় রাগ শয়তানের পক্ষ থেকে। (সুনানে আবি দাউদ, হাদিস : ৪৭৮৬)

শয়তানের শত্রুতা হতে নিরাপত্তার জন্য আল্লাহ তাআলা তাঁরই নিকট আশ্রয় চাইতে বলেছেন। কারণ শয়তান মানুষের বিনাশ ও ধ্বংসের মধ্যে দিয়ে আনন্দ পায়।  শয়তানের যাবতীয় কুমন্ত্রণায় মানুষ সর্বপ্রকার অন্যায়ে লিপ্ত হয়। প্রচণ্ড রাগ বা ক্রোধ তার একটি। আর রাগ ও ক্রোধ আপনার জীবনে বিপর্যয় ডেকে আনতে পারে। 

এছাড়াও আরেকটি হাদিসে বর্নিত আছে  রাসুল (সা.) বলেছেন, প্রকৃত বীর সে নয়, যে কুস্তিতে মানুষকে হারিয়ে দেয়; বরং সেই প্রকৃত বীর, যে রাগের সময় নিজেকে নিয়ন্ত্রণ করতে পারে। (বুখারি, হাদিস : ৬১১৪)।

ইসলামী শরিয়তে রাগ নিয়ন্ত্রণ করার উপায়ঃ রাসুল (সা.) তাঁর সাহাবিদের রাগ নিয়ন্ত্রণের তাগিদ দিতেন। আবু হুরায়রা (রা.) বলেন, ‘এক ব্যক্তি রাসুল (সা.)-এর কাছে বলল, আপনি আমাকে উপদেশ দিন। তিনি (নবীজি) বলেন, তুমি রাগ করো না। লোকটি কয়েকবার তা বললেন, নবীজি (সা.) প্রত্যেকবারই বললেন, রাগ করো না।’ (বুখারি, হাদিস : ৬১১৬)

প্রচণ্ড রাগ বা ক্রোধের সময় করণীয় সম্পর্কে রাসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উত্তম আমল করার কথা উল্লেখ করেছেন। আমলটি হচ্ছে-

আরবিঃ اَعُوْذُ بِاللهِ مِنَ الشّيْطَانِ الرَّجِيْمِ

উচ্চারণঃ আউজুবিল্লাহি মিনাশ শাইত্বানির রাজিম।

অর্থঃ ‘আমি অভিশপ্ত শয়তান হতে আল্লাহর নিকট আশ্রয় চাচ্ছি।’

– (বুখারি, তিরমিজি ও মুসনাদে আহমদ)

উপকারঃ সুলাইমান ইবনে সুরাদ (রা.) বলেন, আমি নবী (সা.)-এর সঙ্গে উপবিষ্ট ছিলাম। তখন দুজন লোক গালাগালি করছিল। তাদের একজনের চেহারা লাল হয়ে গিয়েছিল এবং তার রগগুলো ফুলে গিয়েছিল। তখন নবী (সা.) বলেন, আমি এমন একটি দোয়া জানি, যদি এ লোকটি পড়ে তবে তার রাগ দূর হয়ে যাবে। তারপর তিনি এই দোয়া বলেন। (বুখারি, হাদিস : ৩২৮২)

নবী করিম (সা.) ইরশাদ করেন, ‘নিশ্চয় রাগ শয়তানের পক্ষ থেকে। আর শয়তান আগুনের তৈরি। নিশ্চয় পানির দ্বারা আগুন নির্বাপিত হয়। সুতরাং তোমাদের কেউ যখন রাগান্বিত হয় সে যেন অজু করে।’ (সুনানে আবি দাউদ, হাদিস : ৪৭৮৬)

আবদুল্লাহ ইবনে আব্বাস (রা.) থেকে বর্ণিত, রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেন, ‘তোমরা শিক্ষা দাও এবং সহজ করো। কঠিন করো না। যখন তুমি রাগান্বিত হও তখন চুপ থাকো; যখন তুমি রাগান্বিত হও তখন চুপ থাকো; যখন তুমি রাগান্বিত হও তখন চুপ থাকো।’ (মুসনাদে আহমদ, হাদিস : ৪৭৮৬)

রাগের কুফলঃ অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনায় রাগ একটি স্বাভাবিক আবেগ হলেও এর প্রকাশ যদি অনিয়ন্ত্রিত বা অন্যের জন্য ক্ষতিকারক অথবা অপ্রীতিকর হয়, তখন এটি নিঃসন্দেহে অগ্রহণযোগ্য। রাগের কারণে সম্পর্কের বিচ্ছেদ, বড় ধরনের শারীরিক ক্ষতি, অঙ্গহানি বা এমনকি কারও মৃত্যুর খবরও উঠে আসে সংবাদমাধ্যমে। তবে রাগের কারণে সবচেয়ে ক্ষতিগ্রস্ত হয় ব্যক্তি নিজেই। দূরত্ব তৈরি হয় তার পারস্পরিক সম্পর্কে, কমে যায় এর গুণগত মান অথবা তার প্রতি অন্যদের সম্মানবোধ, আগ্রহ। বিষণ্নতা, হীনম্মন্যতা বা অপরাধবোধে আক্রান্ত হয় ব্যক্তি। শুধু তা-ই না, অতিরিক্ত রাগ কমিয়ে দিতে পারে আমাদের দৈনন্দিন জীবনযাপনের স্বাভাবিক দক্ষতা অথবা উৎপাদনশীলতা। বিঘ্ন ঘটায় সার্বিক জীবনছন্দে।

“হার্ভার্ড ডিসিশন সায়েন্স ল্যাবরেটরির জেনিফার লারনার” গবেষণায় দেখেছেন মানুষ যখন রেগে যায় তখন সিদ্ধান্ত নেবার আগে সে খুব বেশি ভাবতে চায় না, বোকাদের মতো চিন্তা করে এবং উদ্ভুত পরিস্থিতির জন্যে যৌক্তিক কারণ নয় ব্যক্তি নিজেকেই দোষারোপ করে। রেগে গেলে মনোযোগ কমে যায় এবং শুধু রাগের বিষয় ছাড়া আর কোনো কিছু মাথায় থাকে না।

১৩০০ বছর আগেই ইসলামের চতুর্থ খলিফা হযরত আলী (রা) রাগান্বিত অবস্থায় চারটি কাজ থেকে বিরত থাকতে উপদেশ দিয়েছেন। ১. সিদ্ধান্ত গ্রহণ, ২. শপথ গ্রহণ, ৩. শাস্তি প্রদান, ৪. আদেশ প্রদান।

আমাদের জীবনের মান আমরা নিয়ন্ত্রণ করবো, রাগ নয়। কথায় তো আছেই—রেগে গেলেন তো হেরে গেলেন। রাগ প্রকাশ করে হেরে যাওয়ার তো কোনো মানে নেই। তাই আমাদের রাগ নিয়ন্ত্রণ করে নিজেকে সকল প্রকার পরিস্থিতিতে মানিয়ে নিতে হবে।ইতিবাচক চিন্তাধারায় নিজেকে সর্বক্ষণ সমুন্নত রাখতে।

5/5 - (19 Reviews)

One comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.