কন্ডিশনার ব্যবহারের নিয়ম এবং ঘরেই কিভাবে তৈরি করবেন

যখনই আমরা আমাদের চুলে শ্যাম্পু করি, আমাদের চুল ভালোভাবে পরিষ্কার হয়ে যায়। কিন্তু আপনি কি চুল শ্যাম্পু করার পর কন্ডিশনার ব্যবহার করেন? এটি এমন একটি প্রশ্ন যার উত্তর দেওয়া দরকার। আমরা অনেকেই কন্ডিশনার ব্যবহার করি কিন্তু জানি না এটি আমাদের চুলের জন্য কী করে।

কন্ডিশনার কেন প্রয়োজন? কেন এটি আপনার চুলের যত্নের একটি প্রধান উপাদান? কেন আমাদের চুলে শ্যাম্পু করার পর কন্ডিশনার লাগাতে বলা হয়? এই সব প্রশ্নের উত্তর পাবেন আজ এই পোস্টে ।

কন্ডিশনার কি?

কন্ডিশনার হল একটি মাস্কের মতো ক্রিমযুক্ত পণ্য, যা আপনার চুলের গঠন উন্নত করে। এটি আপনার চুলকে হাইড্রেট করে এবং আপনার চুলকে নরম করে। এটি আপনার চুলের মধ্যে ঘর্ষণকেও কমিয়ে দেয় যাতে আপনি এটি ধোয়ার পরে আপনার চুল আঁচড়াতে কোনও সমস্যার সম্মুখীন না হন।

এটি সূর্যের কারণে চুলকে প্রতিরোধ করে যাতে আপনার চুল ভেঙ্গে না যায়। যখনই আপনি আপনার চুলে কন্ডিশনার লাগান, আপনার চুলে একটি স্তর তৈরি হয়, যা চুলকে নরম ও চকচকে করে।

চুল শ্যাম্পু করার পরই কন্ডিশনার প্রয়োগ করতে হয়। এটি কয়েক মিনিটের জন্য রেখে দিতে হয় যাতে এটি আপনার চুলের গভীরে প্রবেশ করে এটিকে নরম এবং পরিচালনাযোগ্য করে তোলে। কন্ডিশনারের প্রধান কাজ হল সিবাম ধরে রাখা । কন্ডিশনার সিন্থেটিক সেবাম তৈরি করে এবং আপনার চুলের প্রাকৃতিক তেলের ভারসাম্য বজায় রাখে ।

একটি হেয়ার মাস্ক সাধারণত পুষ্টিকর তেল, একাধিক ময়শ্চারাইজিং এবং কন্ডিশনিং এজেন্ট যেমন গ্লিসারল, প্রোপিলিন গ্লাইকল, প্যানথেনল, এরিথ্রিটল, সোডিয়াম পিসিএ, অ্যামিনো অ্যাসিড, উদ্ভিদ তেল, খনিজ পদার্থ ইত্যাদি দিয়ে গঠিত। এছাড়াও আপনি প্রাকৃতিক উপাদান থেকে বাড়িতে আপনার নিজের চুল কন্ডিশনার তৈরি করতে পারেন।

কন্ডিশনার ব্যবহারের নিয়ম – How to use conditioner

চলুন জেনে নিই কন্ডিশনার কিভাবে ব্যবহার করবেন,

Washed Conditioner: এটি সবচেয়ে সাধারণ ধরনের কন্ডিশনার, যা বেশিরভাগ লোকেরা ব্যবহার করেন। সাধারণত শ্যাম্পুর পর ভেজা চুলে রিন্স-আউট কন্ডিশনার প্রয়োগ করা হয়।

এই কন্ডিশনারটি চুলে কয়েক মিনিটের জন্য রেখে দেওয়া উচিৎ, তারপরে এটি পরিষ্কার করা উচিৎ।

এই ধুয়ে ফেলা কন্ডিশনারগুলি আপনার চুল পরিচালনা করা সহজ করে এবং আপনার চুলকে নরম রাখে। ধুয়ে ফেলা কন্ডিশনারগুলি তাপ দ্বারা সৃষ্ট ক্ষতি থেকে আপনার চুলের কিউটিকলকে রক্ষা করে।

Deep Conditioner: ডিপ কন্ডিশনারগুলিতে হাইড্রেটিং বৈশিষ্ট্য রয়েছে, যা শুষ্ক এবং ক্ষতিগ্রস্ত চুল মেরামত করে । এতে অপরিহার্য তেল, মাখন এবং অন্যান্য ময়শ্চারাইজিং উপাদান রয়েছে যা শুষ্ক ও ক্ষতিগ্রস্ত চুল মেরামত করতে সাহায্য করে। গভীর কন্ডিশনারটি প্রায় 30 মিনিটের জন্য চুলের মাস্ক হিসাবে রেখে দেওয়া হয় এবং তারপরে পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলা হয়।

এর কাজ:- গভীর কন্ডিশনার ক্ষতিগ্রস্থ চুলকে হাইড্রেট করে মেরামত করে। আপনার যদি স্বাভাবিক বা তৈলাক্ত চুল থাকে তবে এটি আপনার জন্য একটি দুর্দান্ত বিকল্প নয়। এগুলি আপনার চুলকে আরও আঠালো এবং ভারী করে তোলে।

Leave in Conditioner: লিভ-ইন কন্ডিশনার ভারী নয় এবং এটি আপনার চুলে একটি প্রতিরক্ষামূলক স্তর তৈরি করে। এগুলো গোসলের পর চুলে লাগানো হয় এবং চুল নরম রাখতে সাহায্য করে। এগুলি সহজেই চুলকে বিচ্ছিন্ন করে, যা আপনার চুলের স্টাইল করা সহজ করে তোলে।

এর কাজ: এই কন্ডিশনারগুলি ময়েশ্চারাইজার হিসাবে কাজ করে এবং অন্যান্য আক্রমনাত্মক পণ্য থেকে আপনার চুলকে রক্ষা করে।

চুলের মাস্কঃ হেয়ার মাস্ক অনেকটা ফেস মাস্কের মতো, যা আপনার চুলকে হাইড্রেট করার পাশাপাশি পুষ্টি জোগায়। পণ্যটি আপনার চুলের কিউটিকেলে পৌঁছায়, এটিকে প্রোটিন এবং হাইড্রেটিং উপাদান দিয়ে পুষ্ট করে। বিভিন্ন ধরণের চুলের জন্য বিভিন্ন ধরণের হেয়ার মাস্ক পাওয়া যায়। সপ্তাহে দুবার চুলে হেয়ার মাস্ক লাগাতে পারেন। চুল ধোয়ার আগে 15-20 মিনিট চুলে লাগিয়ে রাখতে হবে।

এর কাজ: হেয়ার মাস্কের কাজ হল চুলকে পুষ্টি দেওয়া। এই মাস্কগুলি আপনার চুলকে ময়েশ্চারাইজ করে এবং মেরামত করে। এভাবে চুল সুস্থ ও ঘন হয়।

ঘরেই কীভাবে কন্ডিশনার তৈরি করবেন?

আপনি যদি আপনার চুলের জন্য প্রাকৃতিক জিনিস পছন্দ করেন এবং আপনি প্রাকৃতিক জিনিসগুলি প্রয়োগ করতে চান তবে আপনি নিচের প্রাকৃতিক উপাদানগুলি দিয়ে আপনার চুলকে কন্ডিশনার করতে পারেন। এই হেয়ার কন্ডিশনারগুলি আপনার চুলকে স্বাস্থ্যকর এবং চকচকে করে তোলবে।

দই ডিম এবং ভিনেগার কন্ডিশনার

ডিম একটি দুর্দান্ত কন্ডিশনার এজেন্ট, যা শুধুমাত্র চুলের পুষ্টি যোগায় না বরং এতে চকচকে কাজ করে। এতে রয়েছে ভিটামিন এ, ভিটামিন ই, বায়োটিন এবং ফোলেট যা চুলকে মজবুত করে। এছাড়াও ভিনেগার চুলকে পুষ্ট ও মজবুত করে।

ব্যবহারবিধি:-
২-৩টি ডিম ভেঙ্গে তাতে ১ চা চামচ ভিনেগার যোগ করুন।
এই মিশ্রণে আপনি ১ চা চামচ অলিভ অয়েল যোগ করুন এবং ভালো করে মিশিয়ে নিন।
এর পরে, 1 চা চামচ লেবুর রস এবং একই পরিমাণ মধু যোগ করুন।
সব উপকরণ ভালোভাবে মিশে গেলে চুলে লাগান।
১৫ মিনিট পর চুল ধুয়ে ফেলুন।

কলা হেয়ার মাস্ক

কলা আপনার চুলকে সুন্দর রাখতে সাহায্য করে। এতে মধুও যোগ করা হয়, যা ত্বকের কোষের বিকাশে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে।

ব্যবহারবিধিঃ-
একটি কলা নিন এবং ভাল করে ম্যাশ করুন।
এতে 3-3 চামচ মধু, অলিভ অয়েল এবং দুধ যোগ করুন।
ভালো করে মেশানোর পর ১টি ডিম ফাটিয়ে দিন।
সবগুলো মিশিয়ে একটি সূক্ষ্ম পেস্ট তৈরি করুন।
এই মিশ্রণ চুলে লাগান।
20-30 মিনিট পর চুল ধুয়ে ফেলুন।

দই এবং ডিম কন্ডিশনার

দই প্রোটিন এবং ল্যাকটিক অ্যাসিড সমৃদ্ধ, যা এটিকে একটি দুর্দান্ত স্ক্যাল্প ক্লিনজার করে এবং আপনার চুলকে নরম রাখতে পুষ্টি জোগায়।

ব্যবহারবিধিঃ-

1টি ডিম সিদ্ধ করুন এবং এতে 6 চামচ দই যোগ করুন।
মিশ্রণটি ভালোভাবে মিশে গেলে আলতো করে আপনার মাথার ত্বকে এবং তারপর চুলে লাগান।
20 মিনিট পর চুল ধুয়ে ফেলুন।

আরো পড়ুনঃ টক দই রেসিপি, দই খাওয়ার উপকারিতা ও অপকারিতা এবং নিয়ম

নারকেল তেল এবং মধু কন্ডিশনার

নারকেল তেল একটি প্রাকৃতিক ইমোলিয়েন্ট যা আপনার চুলকে ময়েশ্চারাইজ করে। এটি আপনার চুলকেও নরম ও চকচকে করে।

ব্যবহারবিধিঃ-

১ চা চামচ নারকেল তেল এবং সমপরিমাণ মধুলেবুর রস নিন।
এই মিশ্রণে 2 চামচ দই যোগ করুন।
এবার চুলে লাগান।
১৫ মিনিট পর চুল ধুয়ে ফেলুন।

চুলে কন্ডিশনার কীভাবে প্রয়োগ করবেন?

আপনার চুলের শ্যাম্পুটি জল দিয়ে ভালভাবে ধুয়ে ফেলুন।

আপনি যে ব্র্যান্ডের কন্ডিশনার ব্যবহার করেন তার পণ্যের লেবেল পড়ুন এবং নির্দেশিত পরিমাণে কন্ডিশনার ব্যবহার করুন।

কখনই সরাসরি মাথার ত্বকে কন্ডিশনার লাগাবেন না। বরং মাথার ত্বক থেকে দূরে চুলে কন্ডিশনার লাগান, তারপর ধীরে ধীরে চুলের শেষ প্রান্তে যান।

এবার পুরো চুলে চওড়া দাঁতের চিরুনি বা আঙ্গুল চালান।

কন্ডিশনারটি চুলে 2 মিনিটের জন্য বসতে দিন।

এবার ভালো করে পরিষ্কার করে নিন। আপনার চুলে কন্ডিশনার ছেড়ে দেওয়া উচিত নয়।

অনেকে আবার উল্টোটাও করেন যেমন প্রথমে কন্ডিশনার লাগান তারপর শ্যাম্পু করুন। একে বলা হয় রিভার্স ওয়াশিং।

আরেকটি পদ্ধতি হল কো-ওয়াশিং, যেখানে আপনি শ্যাম্পু করা এড়িয়ে যেতে পারেন। আপনি শুধু কন্ডিশনার দিয়ে চুল পরিষ্কার করুন। এই দুটি পদ্ধতিই তাদের জন্য উপযুক্ত যাদের চুল খুব শুষ্ক।

কন্ডিশনার এর উপকারিতা

চুলের কন্ডিশনার একটি খুব সহজ জিনিস, যা তরল আকারে আসে। এটি আপনার চুলের আর্দ্রতা ধরে রাখতে কাজ করে এবং আরও ক্ষতি প্রতিরোধ করে। শ্যাম্পু সিবাম তেল শুকিয়ে গেলে, কন্ডিশনার আপনার চুলকে হাইড্রেট করার জন্য সিন্থেটিক সেবাম তেল তৈরি করে।

হেয়ার কন্ডিশনার নিয়মিত ব্যবহার আপনার চুল পরিচালনা করা সহজ করে তোলে। এর ক্রমাগত ব্যবহারে, আপনার চুলের গঠনও উন্নত হয় এবং চুল নরম এবং চকচকে হয়ে ওঠে। সবচেয়ে ভালো দিক হল এর প্রভাব হেয়ার কন্ডিশনার ব্যবহারের সাথে সাথেই দেখা যায়।

আরো পড়ুনঃ চুল থেকে খুশকি দূর করার উপায়, তৈলাক্ত চুলের যত্ন

কন্ডিশনার ব্যবহার কি গুরুত্বপূর্ণ?

কন্ডিশনার আপনার জন্য শ্যাম্পুর মতোই গুরুত্বপূর্ণ। যেখানে শ্যাম্পু আপনার মাথার ত্বক পরিষ্কার করে, অন্যদিকে আপনার কন্ডিশনার আপনার চুলে আর্দ্রতা আনতে কাজ করে।

আপনার চুল হাইড্রেটেড এবং নরম রাখতে কন্ডিশনার ব্যবহার করা গুরুত্বপূর্ণ। এটি শুষ্ক ও প্রাণহীন চুল প্রতিরোধ করে, যার কারণে চুল অতিরিক্ত ভাঙ্গা শুরু করে।

কন্ডিশনার বেছে নেওয়ার আগে আপনার চুলের অবস্থা জেনে নেওয়া উচিত। আপনার চুলের ধরন বিবেচনা করে, আপনার চুলের যত্নের পণ্যগুলি বেছে নেওয়া উচিত যাতে তারা চুলকে শক্তিশালী করতে পারে এবং দীর্ঘমেয়াদে এর গঠন উন্নত করতে পারে।

অতিরিক্ত কন্ডিশনিং কি আপনার চুলের ক্ষতি করে? আপনার চুলের ওভার-কন্ডিশনিং কি খারাপ?

আপনি যখন আপনার চুলকে কন্ডিশন করেন, তখন চুলের খাদে একটি স্তর তৈরি হয়। এটি আপনার চুলকে চকচকে করে এবং এটি পরিচালনাযোগ্য করে তোলে।

পরিচালনাযোগ্য চুল চিরুনি বা ব্রাশ করা সহজ করে তোলে। যাইহোক, আপনার চুলের ওভার কন্ডিশনিং একেবারেই কন্ডিশনার না করার মতোই খারাপ।

অতিরিক্ত কন্ডিশনার অন্যান্য চুলের যত্নের পণ্যগুলির কার্যকারিতাকে দুর্বল করতে পারে। কারণ এই স্তরটি অন্যান্য পণ্য যেমন অপরিহার্য তেল এবং সিরামকে আপনার চুলের শ্যাফ্টের মধ্য দিয়ে প্রবেশ করতে বাধা দেয়।

আপনি যদি নিম্নলিখিত লক্ষণগুলি দেখতে পান তবে এর অর্থ হতে পারে যে আপনি আপনার চুলকে অতিরিক্ত কন্ডিশন করেছেন –

  • কম ভলিউম এবং ভারী চুল
  • পরিচালনা এবং স্টাইলিং অসুবিধা
  • চুল বাঁধার সময় পিন ব্যবহার করলেও চুল পড়া শুরু হয়।
  • অতিরিক্ত কন্ডিশনার চুল থেকে মুক্তি পাওয়াও গুরুত্বপূর্ণ নয়তো চুলের স্বাস্থ্যের অবনতি ঘটবে।

আপনি নিম্নলিখিত উপায়ে ওভার কন্ডিশন চুল থেকে মুক্তি পেতে পারেন-

ওভার কন্ডিশন থেকে মুক্তির উপায়

প্রাথমিকভাবে, চুল ধোয়ার সময় কম কন্ডিশনার ব্যবহার শুরু করুন।

আপেল সিডার ভিনেগার মেশানো পানি দিয়ে মাসে একবার চুল ধুয়ে নিন। এতে এক ভাগ আপেল সাইডার ভিনেগার এবং দুই ভাগ পানি থাকতে হবে।

কন্ডিশনারের অতিরিক্ত স্তর অপসারণ করতে একটি পরিষ্কার শ্যাম্পু ব্যবহার করুন।

আপনার চুল থেকে কন্ডিশনারের অতিরিক্ত স্তর অপসারণ না হওয়া পর্যন্ত আপনার চুলে খুব বেশি কন্ডিশনার ব্যবহার করবেন না।

আরো জানুনঃ চুলে আপেল সিডার ভিনেগার লাগানোর উপকারিতা, টাক পড়া বন্ধ করার উপায়: পরীক্ষিত সমাধান

উপসংহার

চুলের কন্ডিশনার আপনার চুলকে নরম ও চকচকে করে তুলতে পুষ্টি জোগায়। তাদের মেরামত করুন। বিভিন্ন ধরনের কন্ডিশনার রয়েছে যা আপনি আপনার চুলের ধরন অনুযায়ী বেছে নিতে পারেন। আপনার এমন একটি কন্ডিশনার বেছে নেওয়া উচিত যার pH মাত্রা 4.5 থেকে 7 এর মধ্যে।

5/5 - (15 Reviews)

Leave a Reply

Your email address will not be published.