সুস্বাস্থে ভাতের মাড়ের উপকারিতা

বাংলাদেশের প্রায় ৮০% পরিবার কৃষিজীবী। সুষম খাদ্যের অভাবে গ্রামীণ পরিবারের সদস্যদের সিংহভাগ অপুষ্টিতে ভুগছে। এটি এমন মানুষ নয় যারা দিনে দুবার খেতে পারে না তারা অপুষ্টিতে ভোগে। যারা সুস্থ আছেন তারাও পুষ্টির অভাবে অপুষ্টিতে ভোগেন। এদেশের লক্ষ লক্ষ মানুষ অপুষ্টিজনিত কারণে বিভিন্ন রোগে ভুগছে এবং তাদের মধ্যে কেউ কেউ স্বাস্থ্যহীনতায় ভুগছে এবং কেউ কেউ মারা যাচ্ছে।

আমাদের অজ্ঞতা বা অসাবধানতার কারণে রান্নার সময় খাবারের মূল্যবান পুষ্টি নষ্ট হয়। কিন্তু একটু সচেতন হলে আমরা খাবারের পুষ্টি থেকে সম্পূর্ণ উপকৃত হতে পারি। আপনি কি জানেন ভাত সিদ্ধ করার পর যে অংশ আপনি খারাপ বলে ফেলে দেন, তা আপনার অনেক কাজে আসতে পারে। আপনি নিজের সৌন্দর্য তৈরি করতে পারেন। এখানে ভাতের মাড়ের উপকারিতা এবং এর পুষ্টিগুণ সম্পর্কে কিছুটা আলোচনা করা হলোঃ

ধনীরা ভাতের মাড় দেখলেই নাক ছিটকান। কিন্তু এই ভাতের মাড় পুষ্টিতে দরিদ্র নয় বরং ধনী । ভাতের মাড় হচ্ছে চালের নির্যাস। ধাব ছাঁটাইয়ের সময় চালের পুষ্টিমান নষ্ট হয়, সর্বশেষ অপচয় হয় ভাতের মাড় নিংরানোর সময়। এভাবে ভাত তার পুষ্টি গুন অনেকটাই হারিয়ে ফেলে। চিন্তার বিষয় হল আমরা আসল জিনিসটা ফেলে দিয়ে ভাত খাই। এর চেয়ে মূর্খতা আর কি হতে পারে।

ভাতের মাড়ের পুষ্টিগুণ

ভাতের মাড়ে রয়েছে হরেক রকমের পুষ্টি উপাদান। গবেষণায় দেখা গেছে যে ভাতের মাড়ে উল্লেখযোগ্য পরিমাণে ভিটামিন-বি এবং ভিটামিন-ই রয়েছে। এতে কার্বস, শর্করা, আয়রন, ফসফরাস এবং অন্যান্য পুষ্টি উপাদান রয়েছে। যদিও আমরা ভাতের মাড়ে নিয়ে চিন্তা করি না কিন্তু বিশ্বের বিভিন্ন দেশ বিভিন্ন গবেষণা পরিচালনা করছে এই ভাতের মাড় নিয়ে । চীনা বিজ্ঞানী মি. লিন ফেলে দেওয়া ভাতের মাড় নিয়ে গবেষণা করে দেখেছেন যে ভাতের মাড় ছয়টি উপাদান রয়েছেঃ

  • ক্যালসিয়াম
  • আয়রন
  • জিংক
  • ম্যাঙ্গানিজ
  • তামা এবং
  • মেলেনিয়াম রয়েছে।

তিনি বিশ্লেষণ করেছেন যে ভাতের মাড়ে 10 গুণ লোহা, 4 গুণ ক্যালসিয়াম, 12 গুণ ম্যাঙ্গানিজ, 8 গুণ তামা এবং 2 গুণ মেলানিয়াম রয়েছে। এছাড়াও রয়েছে টোকোট্রিনল এবং অন্যান্য প্রাকৃতিক উপাদান।

ভাতের মাড়ের উপকারিতা

  • দেহের শক্তি ও কার্বোহাইড্রেট বৃদ্ধি করতে পারে এই ভাতের মাড়। আপনি যদি প্রতিদিন নিয়ম করে ভাতের মাড় খান তাহলে আপনি দেহের শক্তি সঞ্চয় করতে পারবেন এবং আপনার শরীরের ভেতর কার্বোহাইড্রেটের পরিমাণ বৃদ্ধি করবে।
  • পেটের সমস্যায় ভোগে না এরকম মানুষ নেই বললেই চলে। এই পেটের সমস্যা যদি রোধ করতে চান তাহলে অবশ্যই ভাতের মাড় নিয়ম করে খেতে হবে৷
  • ভাতের মাড় যদি আপনি নিয়ম করে খেতে পারেন তাহলে ক্যান্সার এর মতো রোগ হওয়ার ঝুঁকিও অনেকটাই কমে যাবে৷
  • হাই ব্লাড প্রেশার কে নিয়ন্ত্রণে রাখে ভাতের মাড়।
  • আপনার দেহের তাপমাত্রাকে নিয়ন্ত্রণে রাখতে পারে এই ভাতের মাড়।
  • ভাতের মাড় খেলে আমাদের স্বাস্থ্য সামগ্রিকভাবে সুস্থ থাকে। এতে রয়েছে ৮ ধরনের অত্যাবশ্যকীয় অ্যামাইনো এসিড যা দেহের কোষ এবং পেশীকে পুনর্জীবিত করতে সাহায্য করে থাকে। এতে থাকা উচ্চ শর্করা দেহকে রাখে কর্মচঞ্চল।
  • আপনি ভাতের মাড় কে আপনার সৌন্দর্য গোপন করতে পারেন কারণ এটি ত্বকের জন্য খুবই উপকারী। এটি সপ্তাহে 1-2 বার ব্যবহার করলেও অনেক উপকার পাওয়া যাবে। বিশেষ করে যাদের ত্বকে ট্যান পড়ে গেছে তারা ভাতের মাড় লাগালে উপকার পাবেন। এক্ষেত্রে প্রথমে ভাতের মাড় ঠান্ডা করে নিন। তারপর ট্যান পড়া ত্বকে মাড় ভাল করে লাগিয়ে নিন। এতে ত্বকে জেল্লা আসবে, সঙ্গে ত্বক ট্যানমুক্তও হবে।
  • ভাতের মাড় চুলে কন্ডিশনার হিসেবে কাজ করে থাকে । প্রথমে ভাতের মাড় ভাল করে পানির সাথে মিশিয়ে কিছুটা পাতলা করে নিতে করে নিতে হবে । এবার শ্যাম্পু করার পরে সেই মাড় গোলা পানি দিয়ে চুল ধুয়ে নিতে হবে। এই প্রক্রিয়ায় চুলের ডগা ফাটা সমস্যাও সহজেই দূর হয়। আমাদের চুলের গোড়া মজবুত রাখতেও এর জুড়ি মেলা ভার।

মুখ পরিষ্কার করতে ভাতের মাড়ঃ

ভাতের মাড় দারুণ ফেসওয়াশ হিসেবে কাজ করে। মুখ পরিষ্কার করতে চালের আটা ঠাণ্ডা হতে দিন এবং তারপর মুখে লাগিয়ে হালকা হাতে ম্যাসাজ করুন ১০ মিনিট। 10 মিনিট ম্যাসাজ করার পর, চালের জল দিয়ে আপনার মুখ ধুয়ে ফেলুন এবং একটি শুকনো কাপড় দিয়ে মুখ মুছুন। এতে আপনার মুখ পরিষ্কার হবে।

মৃত চামড়া কোষ অপসারণ করতে ভাতের মাড়ঃ

চালের আটা মুখকে সুন্দর করে কারণ এর ব্যবহারে ত্বকের মৃত কোষ দূর হয় এবং নতুন কোষ তৈরি হয় দ্রুত। ভাতে প্রোটিন এবং কার্বোহাইড্রেট বেশি থাকায় এটি ত্বকে পুষ্টি জোগায়।

মুখে দাগ দূর করতে ভাতের মাড়ঃ

চালের তুষও সহজেই মুখের দাগ দূর করে এবং এটি ব্যবহার করে আপনি নিশ্ছিদ্র উজ্জ্বল ত্বক পান। ভাতে উপস্থিত প্রচুর অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট এবং খনিজগুলির কারণে, এর স্টার্চ আপনার মুখের ভেতর থেকে পুষ্টি জোগায় এবং ধীরে ধীরে দাগ নিরাময় করে।

ব্রণ এবং ব্রণ থেকে মুক্তিঃ

আপনি যদি মুখে ব্রণ ও ব্রণের সমস্যায় ভুগে থাকেন তাহলে একবার ভাতের মাড়ও ব্যবহার করুন। ভাতের এই মাড়যুক্ত পানি আপনার মুখের ব্রণ কমিয়ে দেবে এবং এর দাগও দূর হবে সহজেই।

চুলের যত্নে ভাতের মাড়ঃ

পুরনো দিনে রাজকুমারীদের চুল যেমন সুন্দর ছিল তেমনি লম্বাও ছিল। আর আজকাল কে রাজকন্যার মতো চুল পেতে চায় না। চুলের যত্নে অনেক উপাদান ব্যবহার করা হলেও ভাতের মাড় ব্যবহার খুব একটা প্রচলিত নয়।

চুলের যত্নে ফ্যান বা ভাতের মাড় খুবই গুরুত্বপূর্ণ। যারা খুশকিতে ভুগছেন, তারা প্রতিদিন চুল ভাতের দিয়ে ধুয়ে ফেলেন। আপনি সপ্তাহ খানেক ভাতের মাড় ব্যবহার করলেই চুলের সমস্যা থেকে মুক্তি পাওয়া শুরু করবেন। আপনি ভাতের মাড় এবং অ্যাভোকাডো দিয়েও মিশ্রণ তৈরি করতে পারেন। সুন্দর চুল পেতে আপনাকে অবশ্যই সেই মিশ্রণটি ব্যবহার করতে হবে।

এই ফেলনা ভাতের মাড়ের মতো একটি উপাদান যা চুলের যত্নে কার্যকর হতে পারে, এটা অনেকেরই অজানা।আসুন চুলের যত্নে ভাতের মাড়ের অবদান কি কি তা জেনে নেয়া যাক~

প্রাকৃতিক কন্ডিশনারঃ

শ্যাম্পু করার পর অবশ্যই কন্ডিশনার ব্যবহার করা উচিৎ । অন্যথায় চুল সহজেই শুষ্ক এবং রুক্ষ হয়ে যায়। কন্ডিশনার ব্যবহারের ফলে চুল প্রাণ ফিরে পায়। কিন্তু কন্ডিশনারগুলিতে প্রচুর রাসায়নিক উপাদান থাকে, তাই অনেকেই কন্ডিশনার ব্যবহার এড়াতে চান। সেক্ষেত্রে ভাতের মাড় ব্যবহার করা যেতে পারে। শ্যাম্পু করার পর, ভাতের মাড় ব্যবহার করে চুলের শুষ্কতা এবং রুক্ষতা দূর করে এবং চুলকে সুস্থ দেখায়।

চুল করবে কোমল ও উজ্জ্বলঃ

সবাই চায় নরম এবং চকচকে চুল, সেটা সোজা হোক বা কোঁকড়ানো হোক। এর জন্য একটি দীর্ঘ সময়ের ধরে চুলের মাস্ক ব্যবহারের প্রয়োজন নেই । ভাতের মাড় ব্যবহার করাই যথেষ্ট। যে কোন সময় ভাতের মাড় দিয়ে চুল ধুয়ে নিন, কিছুক্ষণ অপেক্ষা করুন এবং তারপর নরমাল পানি দিয়ে চুল ধুয়ে নিন।

চুলের বৃদ্ধি ত্বরান্বিত করেঃ

ভাতের মাড়ের মতো কোনো উপাদানই এতো ভালোভাবে দ্রুত চুল পড়া কমায় না ও চুলের বৃদ্ধি তরান্বিত করে না । অনেক উপাদানের মধ্যে, এতে থাকা অ্যামিনো অ্যাসিড সবচেয়ে ভালো কাজ করে।

ভাতের মাড় যে ভাবে ব্যবহার করবেন

গোসল করার সময় সবার প্রথমে শ্যাম্পু দিয়ে চুল ভালো করে ধুয়ে নিন । এর পরে, ওই ভাতের মাড় চুলে ভালো করে ম্যাসাজ করুন। এই ভাবে রেখে দিন ১০- ১৫ মিনিট পর্যন্ত। এরপর পরিষ্কার পানি দিয়ে চুল ধুয়ে ফেলুন। এইভাবে ব্যবহার করুন সপ্তাহে কমপক্ষে এক থেকে দুইবার। কয়েক মাসের মধ্যে আপনি নিজেই ফলাফল দেখতে পাবেন।

ভাতের মাড়ে রয়েছে কার্বোহাইড্রেট অর্থাৎ ইনোসিটল যা চুলের ঘর্ষণকে হ্রাস করে গোড়া থেকে শক্তিশালী করে তুলতে সাহায্য করে। এছাড়া এতে রয়েছে অনেক পুষ্টি উপাদান যা চুলকে চকচকে করে তোলে। এর পাশাপাশি নমনীয়ও হয়ে ওঠে।

5/5 - (12 Reviews)

Leave a Reply

Your email address will not be published.