মুখের উজ্জ্বলতা বৃদ্ধির উপায় 15 টি ঘরোয়া প্রতিকার

মুখের উজ্জ্বলতা বৃদ্ধির উপায় নিয়ে এসেছি এই পোস্টে এবং এগুলো আপনার ঘরে থাকা উপাদান ব্যবহার করেই উজ্জ্বল মুখ পেতে পারেন।

‘মুখ’ আমাদের ব্যক্তিত্বের আয়না। এই কারণেই প্রতিটি মানুষের মুখের উজ্জ্বলতা এবং সৌন্দর্য অনেক গুরুত্বপূর্ণ। একজন পুরুষ বা মহিলা যেই হোক না কেন, সবাই ‘স্কিন গ্লোয়িং’ করার উপায় খুঁজতে থাকে। গ্লোয়িং স্কিনের কথা বলতে গেলে, মুখের উজ্জ্বলতা বাড়ানোর উপায় হিসেবে আজকাল বাজারে অনেক ধরনের কসমেটিক ও বিউটি প্রোডাক্ট বিক্রি হচ্ছে। তবে এতে উপস্থিত রাসায়নিক ত্বককে উজ্জ্বল করতে পারে, কিন্তু পার্শ্বপ্রতিক্রিয়ার ঝুঁকিও বাড়িয়ে দেয়।

মুখের উজ্জ্বলতা বাড়ানোর ঘরোয়া উপায়গুলো জানার আগে চলুন জেনে নেওয়া যাক মুখের উজ্জ্বলতা হারানোর কারণগুলো।

Content Highlights

শুষ্ক এবং প্রাণহীন ত্বকের প্রধান কারণ

মুখ যদি তার উজ্জ্বলতা হারাতে শুরু করে বা ত্বক প্রাণহীন দেখাতে শুরু করে তাহলে এর পেছনে অনেক কারণ থাকতে পারে। এর মধ্যে কিছু প্রাকৃতিক এবং কিছু হতে পারে শারীরিক। নিচে মুখের উজ্জ্বলতা হারানোর প্রধান কারণগুলো তুলে ধরা হলো, যা নিম্নরূপ:

  • বেশি চাপ নেওয়া
  • দূষণের সংস্পর্শে আসা
  • সূর্যের ক্ষতিকর রশ্মির এক্সপোজার
  • সৌন্দর্য পণ্যের অতিরিক্ত ব্যবহার
  • পর্যাপ্ত না ঘুমানো
  • খুব গরম পানি দিয়ে গোসল করলে ত্বক শুকিয়ে যায়
  • আবহাওয়ার পরিবর্তনের কারণে

এখন সময় এসেছে মুখের উজ্জ্বলতা বৃদ্ধির উপায় জানার। পোস্টের এই অংশে পড়ুন কীভাবে মুখকে উজ্জ্বল করা যায়।

মুখের উজ্জ্বলতা বৃদ্ধির উপায়

আমরা বৈজ্ঞানিক প্রমাণ সহ ব্যাখ্যা করার চেষ্টা করব কীভাবে ঘরোয়া প্রতিকার মুখের উজ্জ্বলতা আনতে কাজ করে।

1. বাদাম ফেসপ্যাক বা বাদাম তেল

উপাদান: বাদামের তেল প্রয়োজনমতো

কিভাবে ব্যবহার করবেন: রাতে ঘুমানোর আগে মুখে ও ঘাড়ে বাদামের তেল লাগিয়ে ঘুমান।

এটা কিভাবে উপকারী?

মুখের উজ্জ্বলতা বাড়ানোর প্রতিকারের এই তালিকায় সবার আগে বাদাম তেলের নাম আসে। মানুষ বহু বছর ধরে মুখের উজ্জ্বলতার টিপস হিসেবে বাদাম তেল ব্যবহার করে আসছে। NCBI (ন্যাশনাল সেন্টার ফর বায়োটেকনোলজি ইনফরমেশন) ওয়েবসাইটে প্রকাশিত একটি সমীক্ষা অনুসারে, বাদাম তেল ত্বকের টোন উন্নত করতে সহায়ক।

এর অ্যান্টি-এজিং প্রভাব বার্ধক্যের প্রভাব কমাতে পারে। এছাড়াও, এটিতে অ্যান্টি-ইনফ্লেমেটরি এবং অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট বৈশিষ্ট্যও রয়েছে, যা ত্বকের ক্ষত নিরাময়ে সাহায্য করে। এভাবে মুখের উজ্জ্বলতা বাড়াতে বাদামের তেল গুরুত্বপূর্ণ।

আরো পড়ুনঃ ত্বকের যত্নে বাদাম তেলের উপকারিতা, বাদামের উপকারিতা

2. টমেটো

টমেটোর-উপকারিতা
টমেটোর-উপকারিতা

উপাদান: অর্ধেক টমেটো, এক চা চামচ চন্দন গুঁড়া, এক চিমটি হলুদ

ব্যবহারের নিয়মঃ টমেটো কেটে তার টুকরো থেকে বীজ সরিয়ে আলাদা করে রাখুন। এক টুকরো বীজহীন টমেটোতে চন্দনের গুঁড়া এবং হলুদ মিশিয়ে পেস্ট তৈরি করুন। এই পেস্টটি মুখে লাগিয়ে পনের মিনিট রেখে তারপর পানি দিয়ে মুখ ধুয়ে ফেলুন। এই পেস্ট সপ্তাহে একবার থেকে দুইবার নিয়মিত লাগাতে পারেন।

এটা কিভাবে উপকারী?

টমেটো পেস্ট মুখের উজ্জ্বলতা আনতে খুব কার্যকরি। টমেটোতে লাইকোপিন নামক রাসায়নিক যৌগ থাকে, যা সূর্যের ক্ষতিকর রশ্মি থেকে ত্বককে রক্ষা করে। এর এই প্রভাব রোদে পোড়া দাগ দূর করে ত্বককে পুনরুজ্জীবিত করতে সাহায্য করে। আগেই বলা হয়েছে সূর্যের ক্ষতিকর রশ্মি শুষ্ক ও প্রাণহীন ত্বকের কারণ।

আরো পড়ুনঃ প্রতিদিন মুখে টমেটো লাগানোর উপকারিতা, চন্দন পাউডার ব্যবহারের নিয়মঃ চন্দন দিয়ে রূপচর্চা

3. আলু

উপাদান: একটি ছোট কাঁচা আলু

কিভাবে ব্যবহার করবেন: খোসা ছাড়া কাঁচা আলুর পাল্প প্রস্তুত করুন। এবার এই তৈরি পেস্ট মুখে লাগান। ১৫ মিনিট পর পরিষ্কার ও ঠান্ডা পানি দিয়ে মুখ ধুয়ে ফেলুন। এই পেস্ট সপ্তাহে একবার থেকে দুইবার নিয়মিত লাগাতে পারেন।

এটা কিভাবে উপকারী?

একটি গবেষণায় বলা হয়েছে, কাঁচা আলুর পাল্প ব্রণ ও মুখের দাগ দূর করে। এটি ত্বক পরিষ্কার এবং নরম করতেও সহায়ক। এছাড়াও, আলু বা আলুর খোসা দিয়ে তৈরি ফেস মাস্ক প্রয়োগ করলে মুখের অতিরিক্ত তেল পরিষ্কার করা যায়। এভাবে মুখের উন্নতিতে আলুর ফেসপ্যাক উপকারী।

আরো পড়ুনঃ ব্রণ দূর করার উপায়ঃ ঘরোয়া পদ্ধতি, 10টি কারণে ময়শ্চারাইজ করার পরেও আপনার ত্বক শুষ্ক থাকে

4. হলুদ এবং টক দই

উপাদান: এক চা চামচ হলুদ গুঁড়ো, দুই চামচ দই

ব্যবহারবিধি: একটি পাত্রে টক দই ও হলুদ মিশিয়ে পেস্ট তৈরি করুন। তারপর এটির একটি স্তর মুখে লাগান। শুকিয়ে গেলে বা ২০ মিনিট পর হালকা গরম পানি দিয়ে মুখ ধুয়ে ফেলুন। এই পেস্ট সপ্তাহে দুই থেকে তিনবার লাগাতে পারেন।

এটা কিভাবে উপকারী?

ত্বক সংক্রান্ত অনেক সমস্যায় হলুদের উপকারিতা রয়েছে, যা আপনারা আমাদের আগের পোস্টগুলোতে জেনেছেন। এটি ফটোজিং এবং সোরিয়াসিস থেকে রক্ষা করে। উপরন্তু, এটি ব্রণ এবং পিম্পলের চিকিৎসা করে। হলুদে অ্যান্টিসেপটিক, অ্যান্টি-ইনফ্লেমেটরি এবং অ্যান্টি-অ্যালার্জিক প্রভাব রয়েছে, যা ত্বককে হালকা করতে পারে। এছাড়াও, এটি বার্ধক্যজনিত বলিরেখার সমস্যাও দূর করে। হলুদের কারকিউমিন প্রভাব কোলাজেন গঠনে সাহায্য করে, যা ত্বকের টোন উন্নত করে।

এছাড়াও যদি আমরা এই ফেস প্যাকে উপস্থিত ত্বকের জন্য দইয়ের উপকারিতা সম্পর্কে কথা বলি, তাহলে দইয়ের ফেসপ্যাকটি ত্বকের উন্নতি করতে পারে, ময়শ্চারাইজ করতে পারে এবং ত্বকের স্থিতিস্থাপকতা উন্নত করে। তাই দই এবং হলুদযুক্ত একটি ফেসপ্যাক প্রাণহীন ত্বককে পুনরুজ্জীবিত করতে ব্যবহার করুন।

আরো পড়ুনঃ টক দই দিয়ে ফর্সা ও উজ্জ্বল ত্বক পেতে ৫টি ফেসপ্যাক, টক দই মুখে মাখার উপকারিতা এবং নিয়ম, টক দই রেসিপি কমপ্লিট টিউটোরিয়াল

5. নারিকেল তেল

নারিকেল তেল
নারিকেল তেল

উপাদান: প্রয়োজন অনুযায়ী নারিকেল তেল

কিভাবে ব্যবহার করবেন: সামান্য নারিকেল তেল নিয়ে সারা মুখে ও ঘাড়ে লাগান। প্রতিদিন রাতে ঘুমানোর আগে এটি ব্যবহার করে দেখুন।

এটা কিভাবে উপকারী?

নারিকেল তেল ত্বকের ময়েশ্চারাইজার হিসেবে ব্যবহার করা যেতে পারে। এটি শুষ্ক ত্বকের সমস্যা দূর করতে পারে। এছাড়াও, নারিকেল তেল ত্বককে ঠান্ডা করতে এবং ছোটখাটো ক্ষত বা কাটার চিকিৎসার জন্য উপকারী।

এছাড়াও, নারিকেল তেল ত্বককে দূষণ এবং সূর্যের আলোর সমস্যা থেকে রক্ষা করতে পারে এবং ত্বকের বার্ধক্যের প্রভাবও কমাতে পারে। তাই, নারিকেল তেল ত্বককে তরুণ রাখতে একটি কার্যকর প্রতিকার।

6. বেসন এবং গোলাপ জল

উপাদান: দুই চামচ বেসন, প্রয়োজন মতো গোলাপ জল

কিভাবে ব্যবহার করবেনঃ বেসন ও গোলাপজল মিশিয়ে পেস্ট তৈরি করুন। এই পেস্ট মুখে এবং ঘাড়ে লাগান। পেস্ট শুকিয়ে যাওয়ার পর পানি দিয়ে ত্বক ধুয়ে ফেলুন। এই পেস্টটি 10 ​​দিনে একবার প্রয়োগ করা যেতে পারে।

এটা কিভাবে উপকারী?

মুখের সৌন্দর্য বাড়াতে শত শত বছর ধরে উবটান ব্যবহার হয়ে আসছে, যাতে বেসনের উল্লেখও পাওয়া যায়। বেসনের ফেসপ্যাক ত্বকের জন্য টনিক হিসেবে কাজ করে। এটি মুখের ত্বক পরিষ্কার এবং এক্সফোলিয়েট করতে পারে। এছাড়াও, এটি ত্বক থেকে অতিরিক্ত তেল পরিষ্কার করতে পারে এবং ত্বকের টোন উন্নত করে।

এই ফেসপ্যাকের অন্তর্ভুক্ত গোলাপ জলের উপকারিতা সম্পর্কে বলতে গেলে, এটি ত্বকের পিএইচ ভারসাম্য বজায় রাখতে, অতিরিক্ত তেলের ভারসাম্য বজায় রাখতে এবং ব্রণ এবং ব্রণ দূর করতে সহায়ক। ত্বককে হাইড্রেটিং এবং ময়শ্চারাইজ করার পাশাপাশি, এটি সূক্ষ্ম রেখা এবং বলি থেকে রক্ষা করে ত্বককে তারুণ্যময় এবং উজ্জ্বল করে তোলে।

7. দুধের চিকিৎসা / দুধ

উপাদান: দুই থেকে চার টেবিল চামচ কাঁচা দুধ

কিভাবে ব্যবহার করবেন: তুলোর বলের সাহায্যে সারা মুখে দুধ লাগান। শুকিয়ে গেলে পরিষ্কার পানি দিয়ে মুখ ধুয়ে ফেলুন। এটি সপ্তাহে একবার বা দুইবার ব্যবহার করা যেতে পারে।

এটা কিভাবে উপকারী?

দুধ ত্বককে হাইড্রেট করতে পারে এবং শুষ্ক ত্বকের সমস্যা দূর করতে পারে। এ জন্য দুধে উপস্থিত ভিটামিন-এ মুখের উজ্জ্বলতা বাড়াতে উপকারী। গবেষণা অনুসারে, যদি প্রতিদিন দুধের ফেসপ্যাক ব্যবহার করা না যায়, তবে প্রতিদিন দুধ বা দুধ সমৃদ্ধ খাবার খাওয়াও ত্বকের উজ্জ্বলতা বাড়াতে পারে।

আরো পড়ুনঃ দুধের পুষ্টি উপাদান কি কি, দুধের উপকারিতা

8. সবুজ চা

উপাদান: এক চা চামচ গ্রিন টি বা এক ব্যাগ গ্রিন টি, এক কাপ পানি, দুই চা চামচ ব্রাউন সুগার, 1 টেবিল চামচ দুধের ক্রিম বা ক্রিম

ব্যবহারের নিয়ম: পানিতে গ্রিন টি ফুটিয়ে ছেঁকে নিন এবং তারপর ঠান্ডা হতে দিন। ঠান্ডা হলে গ্রিন টি-তে ব্রাউন সুগার এবং ক্রিম দিন। এই মিশ্রণটি স্ক্রাবের মতো মুখে লাগান। ১০ মিনিট পর ঠান্ডা পানি দিয়ে মুখ ধুয়ে ফেলুন। এই মিশ্রণ সপ্তাহে একবার বা দুইবার লাগাতে পারেন।

এটা কিভাবে উপকারী?

স্বাস্থ্যের জন্য গ্রিন টি-এর উপকারিতা অনেক, তবে এটি ত্বকের জন্যও উপকারী। সবুজ চায়ে উপস্থিত পলিফেনল সূর্যের ক্ষতিকর রশ্মি থেকে ত্বককে রক্ষা করতে এবং ত্বকের ক্যান্সারের মতো সমস্যার ঝুঁকি কমাতে সহায়ক বলে প্রমাণিত হয়েছে। শুধু তাই নয়, এটি অকাল বার্ধক্যের সমস্যাও প্রতিরোধ করতে পারে।

আরেকটি গবেষণায় প্রকাশিত হয়েছে যে গ্রিন টি ত্বক থেকে নিঃসৃত তৈলাক্ত পদার্থ সিবাম নিয়ন্ত্রণ করতে পারে এবং ব্রণ এবং পিম্পল প্রতিরোধ করতে পারে। অতএব, ত্বকের টিপস হিসাবে গ্রিন টি প্যাক ব্যবহার করা কার্যকরি।

আরো পড়ুনঃ ঘরে বসে পেডিকিউর করার নিয়ম– How To Do Pedicure at Home

9. মুলতানি মাটি

উপাদান: দুই চামচ মুলতানি মাটি, প্রয়োজনমতো কাঁচা দুধ বা গোলাপ জল

কিভাবে ব্যবহার করবেন: কাঁচা দুধ বা গোলাপ জল ব্যবহার করে একটি মুলতানি মাটির ফেসপ্যাক তৈরি করুন। তারপর সারা মুখে লাগান। 20 মিনিট পর কুসুম গরম পানি দিয়ে মুখ ধুয়ে ফেলুন। সপ্তাহে এক বা দুইবার এই ফেসপ্যাকটি ব্যবহার করুন।

এটা কিভাবে উপকারী?

এটি ত্বকে অতিরিক্ত সিবামের উৎপাদন কমাতে পারে, ত্বককে মসৃণ এবং সতেজ করে তোলে। এছাড়া আরেকটি গবেষণায় উল্লেখ করা হয়েছে যে মুলতানি মাটি ত্বকের মৃত কোষ এবং ময়লা পরিষ্কার করে ত্বকের উন্নতিতেও সহায়ক ভূমিকা পালন করে।

আরো পড়ুনঃ মুলতানি মাটি দিয়ে ফর্সা হওয়ার উপায়, ঠোঁট গোলাপি করার উপায় Home Remedies

10. কমলার খোসা

উপাদান: এক থেকে দুটি কমলার খোসা (বাজারে কমলার খোসার গুঁড়াও পাওয়া যায়), প্রয়োজন মতো গোলাপ জল

কিভাবে ব্যবহার করবেন: কমলার খোসা পিষে পাউডার তৈরি করুন। এই পাউডারে পানি বা গোলাপ জল যোগ করে একটি পেস্ট তৈরি করুন। পেস্টটি মুখে লাগান এবং শুকিয়ে গেলে পানি দিয়ে মুখ ধুয়ে ফেলুন। এই পেস্ট সপ্তাহে একবার ব্যবহার করা যেতে পারে।

এটা কিভাবে উপকারী?

মুখ উজ্জ্বল করার রহস্য লুকিয়ে আছে কমলার খোসার মধ্যে। এটিতে অ্যান্টি-এজিং এবং অ্যান্টি-রিঙ্কেল বৈশিষ্ট্য রয়েছে, যা বলিরেখা কমাতে পারে। এছাড়াও, কমলার খোসার ব্যবহার মেলানিন উৎপাদনকে প্রভাবিত করে ত্বকের টোনকে হালকা করতে পারে। প্রকৃতপক্ষে, কমলার খোসায় পলিমেথক্সি ফ্ল্যাভোন নামক এক ধরনের ফ্ল্যাভোনয়েড থাকে, যা মেলানিনের উৎপাদনকে বাধা দিতে পারে।

আরো পড়ুনঃ ত্বকের উজ্জ্বলতা বাড়ানোর জন্য সেরা ১০টি ফল

11. কলা

উপাদান: একটি পাকা কলা, দুই থেকে চার টেবিল চামচ দুধ, এক টুকরো বরফ (ঐচ্ছিক)

কিভাবে ব্যবহার করবেন: দুধ ও কলা মিশিয়ে ঘন পেস্ট তৈরি করুন। এই পেস্টটি মুখে এবং ঘাড়ে লাগিয়ে পনের মিনিট রেখে দিন। এর পরে, পানি দিয়ে ত্বক ধুয়ে ফেলুন এবং আলতো করে বরফ ঘষুন।

এটা কিভাবে উপকারী?

কলা একটি অ্যান্টি-রিঙ্কেল চিকিৎসা হিসাবে ব্যবহৃত হয়। এটি একটি ময়শ্চারাইজিং ফেস প্যাক হিসাবে কাজ করতে পারে এবং ত্বককে প্রশমিত করতে পারে। শুধু তাই নয় , পাকা কলার উপকারিতা বাড়াতে এতে মুলতানি মাটি যোগ করে স্ক্রাব হিসেবে ব্যবহার করা যেতে পারে। এটি ত্বকের মৃত কোষ এবং ময়লা দূর করে ত্বককে উজ্জ্বল করে তুলে।

আরো পড়ুনঃ রূপচর্চায় কলার খোসার ব্যবহার

12. অ্যালোভেরা এবং শসা

উপাদান: এক চামচ অ্যালোভেরা জেল, আধা চা চামচ কুচি করা শসা

কিভাবে ব্যবহার করবেন: অ্যালোভেরা জেল এবং গ্রেট করা শসা মিশিয়ে নিন। এবার এই পেস্টটি মুখে ও ঘাড়ে লাগান। ১০ থেকে ১৫ মিনিট পর হালকা গরম পানি দিয়ে মুখ ধুয়ে ফেলুন।

এটা কিভাবে উপকারী?

অ্যালোভেরার উপকারিতা সম্পর্কে কথা বললে, এতে ত্বক সম্পর্কিত উপকারিতাও রয়েছে। এটিতে কেবল ক্ষত-নিরাময়ের বৈশিষ্ট্যই নেই, তবে এটি ত্বককে ময়শ্চারাইজ করতে পারে। অ্যালোভেরার অ্যান্টি-এজিং বৈশিষ্ট্য রয়েছে, যা ত্বকের স্থিতিস্থাপকতা উন্নত করতে পারে এবং বলিরেখা কমাতে পারে। এর ময়শ্চারাইজিং বৈশিষ্ট্য শুষ্ক ত্বকের সমস্যা কমাতে পারে এবং এর অ্যান্টি-একনে বৈশিষ্ট্য ব্রণ এবং পিম্পল প্রতিরোধ করতে পারে।

এছাড়াও, শসাতে অ্যান্টি-সেবাম, ব্লিচিং এবং ময়েশ্চারাইজিং এর মতো বৈশিষ্ট্য রয়েছে, যার কারণে এটির ব্যবহার ত্বকের জন্য ভাল।

আরো পড়ুনঃ এলোভেরা দিয়ে ফর্সা হওয়ার উপায়, এলোভেরা দিয়ে মুখের যত্ন নেয়ার নিয়ম

13. লেবু এবং মধু

উপাদান: তিন থেকে চার চা চামচ লেবুর রস, দুই চামচ মধু

কিভাবে ব্যবহার করবেন: লেবুর রস ও মধু মিশিয়ে পেস্ট তৈরি করুন। তারপর মুখে লাগিয়ে হালকা হাতে ম্যাসাজ করুন। ১৫ মিনিট পর হালকা গরম পানি দিয়ে মুখ ধুয়ে ফেলুন। এই পেস্টটি 10 ​​দিনে একবার ব্যবহার করা যেতে পারে।

এটা কিভাবে উপকারী?

কীভাবে মুখ উজ্জ্বল করবেন, তার উত্তর পাওয়া যাবে লেবুতে। প্রকৃতপক্ষে, লেবু একটি প্রাকৃতিক ত্বক সাদা করার এজেন্ট হিসাবে কাজ করে । এতে রয়েছে ভিটামিন-সি, যা মুখের উজ্জ্বলতার উন্নতিতে সহায়ক। অন্য একটি গবেষণা অনুসারে, লেবুর মতো সাইট্রাস ফলের অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট এবং অ্যান্টি-এজিং বৈশিষ্ট্য রয়েছে, যা অক্সিডেটিভ স্ট্রেসের কারণে অকাল বার্ধক্যের লক্ষণগুলি কমাতে পারে।

এছাড়াও, মধুর ব্যবহার মুখের উজ্জ্বলতা আনতে কার্যকর প্রমাণিত হয়েছে। এটি একটি গবেষণায় স্পষ্টভাবে বলা হয়েছে যে মধুর ফেস প্যাকে উপস্থিত এর ময়শ্চারাইজিং বৈশিষ্ট্যগুলি প্রাকৃতিকভাবে মুখের উজ্জ্বলতা বাড়াতে সাহায্য করে।

আরো পড়ুনঃ লেবু দিয়ে ফর্সা হওয়ার উপায়, লেবুর রসের উপকারিতা, মধু খাওয়ার নিয়ম

14. ক্লে মাস্ক / আর্গিলসিয়াস আর্থ

উপাদান: 2 চা চামচ আর্গিলসিয়াস আর্থ (কাদামাটি), জোজোবা তেল দুই টেবিল চামচ

কিভাবে ব্যবহার করবেন: একটি বাটিতে, আর্গিলাসিয়াস আর্থ এবং জোজোবা তেল মিশিয়ে পেস্ট তৈরি করুন। পেস্ট মুখে লাগান। 15-20 মিনিট পর স্বাভাবিক পানি দিয়ে মুখ পরিষ্কার করুন।
এই পেস্টটি 10 ​​দিনে একবার ব্যবহার করা যেতে পারে।

এটা কিভাবে উপকারী?

আর্গিলাসিয়াস মাটি হল এক ধরনের মাটি, যাতে অনেক ধরনের খনিজ এবং অন্যান্য প্রয়োজনীয় উপাদান রয়েছে। এই কারণে, এটি মুখের উজ্জ্বলতা পারে। এটি ব্রণের পাশাপাশি একজিমার সমস্যা দূর করতেও সহায়ক। এটির একটি ক্লিনজিং ইফেক্টও রয়েছে, যা ত্বক পরিষ্কার করতে সাহায্য করে।

এছাড়াও, ত্বকে কাদামাটির প্রভাব বাড়াতে জোজোবা তেল যোগ করে এটি ব্যবহার করুন। কাদামাটি এবং জোজোবা তেল থেকে তৈরি একটি মুখোশ ত্বকের ক্ষত এবং ব্রণের সমস্যা দূর করতে সাহায্য করে।

15. পেঁপে

উপাদান: এক কাপ পেঁপে, এক চামচ মধু

কিভাবে ব্যবহার করবেন: পেঁপে ম্যাশ করে পেস্ট তৈরি করুন। তারপর এতে মধু যোগ করুন। এবার এই পেস্টটি মুখে এবং ঘাড়ে লাগান। ১৫ মিনিট পর হালকা গরম পানি দিয়ে মুখ ধুয়ে ফেলুন।

এটা কিভাবে উপকারী?

পেঁপে ত্বকের বার্ধক্যজনিত সমস্যা দূর করতে পারে। এছাড়াও, পেঁপের অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট প্রভাব এবং এতে উপস্থিত বায়োফ্ল্যাভোনয়েডের মতো কিছু যৌগ ত্বককে পরিষ্কার করতে, ব্রণ থেকে মুক্তি পেতে এবং ত্বককে ময়শ্চারাইজ করতে সাহায্য করে।

পেঁপের পাল্প ছাড়াও, পেঁপের খোসাও মুখের উজ্জ্বলতা আনতে পারে। ত্বকের যত্ন নেওয়ার পাশাপাশি এটি ত্বকের দাগও কমাতে পারে। এতে উপস্থিত ভিটামিন-এ এর বৈশিষ্ট্য ক্ষতিগ্রস্ত ত্বক নিরাময়ে সাহায্য করে।

মুখের সৌন্দর্যের ঘরোয়া প্রতিকার জানার পরে, মুখের উজ্জ্বলতার আরও টিপস পড়ুন।

মুখের উজ্জ্বলতা বাড়ানোর টিপস

এই বিভাগে, আমরা মুখের উজ্জ্বলতা বাড়াতে কিছু কার্যকরী টিপস বলছি, যা সঠিক ত্বকের যত্নে সাহায্য করবে। নিচে জেনে নিন ত্বকের যত্নের জন্য আরও কিছু টিপস।

নিয়মিত ব্যায়াম করুন: নিয়মিত ব্যায়াম করা শরীর ও মন উভয়ের জন্যই উপকারী। গবেষণায় দেখা গেছে যে ব্যায়াম মেজাজ উন্নত করতে পারে, ভালো ঘুম আনতে পারে, শরীরে শক্তি সরবরাহ করতে পারে এবং রক্ত ​​​​প্রবাহ উন্নত করতে পারে।

মেডিটেশন করুন: কীভাবে মুখের উজ্জ্বলতা আনবেন, তাহলে এর প্রতিকারের মধ্যে মেডিটেশনও রয়েছে। মেডিটেশন ঘুমের সমস্যাগুলিকে উন্নত করতে পারে , যা ত্বকে সরাসরি প্রভাব ফেলতে পারে। ধ্যান মানসিক চাপও কমাতে পারে। এমতাবস্থায় মন শান্ত থাকলে তার প্রভাব অবশ্যই মুখে পড়বে।

স্বাস্থ্যকর খাবার গ্রহণ করুন: শুধু ঘরোয়া ফেসপ্যাক নয়, মুখের উজ্জ্বলতা বাড়াতে ভালো ও স্বাস্থ্যকর খাবার গ্রহণ করাও সমান জরুরি। এ জন্য ভিটামিন, মিনারেল ও প্রোটিনের মতো পুষ্টিসমৃদ্ধ খাবার খাদ্যতালিকায় অন্তর্ভুক্ত করুন। আম, পেঁপে, মিষ্টি আলু, মিষ্টি কুমড়া, মাছ, ডিম, সবুজ চা, গাজর, সাইট্রাস ফল, তরমুজ, টমেটো, সবুজ শাকসবজি, কমলা ও হলুদ শাকসবজি ইত্যাদি খাদ্যতালিকায় অন্তর্ভুক্ত করুন।

মানসিক চাপ থেকে নিজেকে দূরে রাখুন: শুষ্ক ও প্রাণহীন ত্বকের কারণ হতে পারে মানসিক চাপ। তাই নিজেকে চাপমুক্ত রাখুন। মানসিক চাপ দূর করতেও যোগব্যায়াম করা যেতে পারে।

এক্সফোলিয়েটিং/টোনিং/ক্লিনজিং/ময়েশ্চারাইজিং: ত্বকের যত্ন নেওয়া এবং ত্বকের যত্নের রুটিন অনুসরণ করাও উজ্জ্বল ত্বকের প্রতিকারের জন্য অপরিহার্য। এর জন্য এক্সফোলিয়েটিং, টোনিং, ক্লিনজিং এবং ময়েশ্চারাইজিং প্রয়োজন।

পানি পান: পানি শুধু শরীরের জন্যই নয়, ত্বক সুস্থ রাখতেও অপরিহার্য। ত্বক হাইড্রেটেড এবং ময়েশ্চারাইজড রাখতে প্রচুর পানি পান করুন। প্রতিদিন কমপক্ষে 2 লিটার বা তার বেশি পানি পান করা প্রয়োজন।

পর্যাপ্ত ঘুম: আপনি যদি আপনার মুখকে সুন্দর করার উপায় খুঁজছেন, তাহলে এর জন্য প্রতি রাতে ভালো ঘুম হওয়া উপকারী হতে পারে। মুখের পুষ্টিমান ধরে রাখতে ভালো ও পর্যাপ্ত ঘুম নেওয়া প্রয়োজন।

নিয়মিত ম্যাসাজ করুন: ম্যাসেজ ত্বকে রক্ত ​​সঞ্চালন উন্নত করতে পারে এবং এটি ত্বকের বর্ণ উন্নত করতে পারে। এছাড়াও ত্বক সুস্থ এবং উজ্জ্বল দেখতে পারে। এটি ত্বককে শিথিল করতে পারে।

খুব গরম পানি ব্যবহার এড়িয়ে চলুন: মুখের উজ্জ্বলতার প্রতিকারের চেষ্টা করার পাশাপাশি, কিছু জিনিসও মাথায় রাখা উচিত, যার মধ্যে রয়েছে খুব গরম পানি দিয়ে গোসল করা এড়িয়ে চলা।

আসলে গরম পানি দিয়ে গোসল করলে ত্বক শুষ্ক হয়ে যায়। অতিরিক্ত গরম পানির কারণেও ত্বকে ফুসকুড়ি বা ব্রণ হতে পারে। এছাড়াও, এটি ত্বককে ডিহাইড্রেট করতে পারে। এমন অবস্থায় গোসলের সময় খুব গরম পানি ব্যবহার করবেন না।

ধূমপান করবেন না: আপনার অবশ্যই ধূমপান ত্যাগ করা উচিৎ। প্রকৃতপক্ষে, ধূমপান ত্বকে বলিরেখার ঝুঁকি বাড়াতে পারে এবং ত্বকের দীপ্তি হারাতে পারে। তাই গ্লোয়িং স্কিনের জন্য কি করতে হবে তার একটি উত্তর হল ধূমপান পরিহার করা।

যোগব্যায়াম করুন: যোগব্যায়ামের উপকারিতা সম্পর্কে কথা বললে, যোগব্যায়াম একজন ব্যক্তিকে শারীরিক এবং মানসিকভাবে সুস্থ রাখতে সহায়ক হতে পারে। যখন মানুষ শারীরিক ও মানসিকভাবে সুস্থ থাকবে, তাহলে সেই আভা স্বয়ংক্রিয়ভাবে মুখে দেখা যাবে। কিছু আসন এবং প্রাণায়াম ত্বকে বার্ধক্যের প্রভাব কমাতে এবং ত্বকের উন্নতিতে সহায়ক হতে পারে। এর জন্য পদ্মাসন , শ্বাস-প্রশ্বাস, উত্তানাসনের মতো যোগাসন করা যেতে পারে।

ফেস ইয়োগা: মুখে উজ্জ্বলতা আনতে ফেস ইয়োগার নামও যোগ করা যেতে পারে। অন্যান্য যোগব্যায়াম থেকে আলাদা, মুখের উজ্জ্বলতা আনতে ফেস ইয়োগা হতে পারে একটি ভালো বিকল্প। এটি মুখের তারুণ্য এবং উজ্জ্বল করতে সহায়ক হতে পারে। উপরন্তু, এটি ত্বকের দাগ কমাতে পারে এবং ত্বকের গঠনেও উপকারী।

সানস্ক্রিন ব্যবহার করুন: সূর্যের ক্ষতিকর রশ্মির সংস্পর্শে ত্বকের ক্ষতি করতে পারে। এছাড়াও ত্বকের উজ্জ্বলতা নষ্ট হতে পারে। এমন পরিস্থিতিতে ত্বকের জন্য ভালো সানস্ক্রিন বেছে নিন এবং প্রতিদিন ঘর থেকে বের হওয়ার আগে ব্যবহার করুন।

ঘুমানোর আগে মুখ ধুয়ে নিন: ত্বকের পরিচ্ছন্নতার যত্ন নিতে রাতে ঘুমানোর আগে মুখ পরিষ্কার করতে ভুলবেন না। এ জন্য প্রথমে ক্লিনজার দিয়ে মুখের সমস্ত মেকআপ তুলে ফেলুন। এর পর হালকা ফেসওয়াশ দিয়ে মুখ ভালো করে পরিষ্কার করুন।

ঘষে মুখ পরিষ্কার করবেন না: কীভাবে মুখ সুন্দর করা যায় তার বিউটি টিপস হিসেবে সবসময় একটি পরিষ্কার তোয়ালে, রুমাল বা টিস্যু পেপার সঙ্গে রাখুন। কখনোই মুখ পরিষ্কার স্ক্রাব করবেন না। সবসময় তোয়ালে দিয়ে হালকা করে মুখ মুছে নিন।

এই ছিল মুখের উজ্জ্বলতা বৃদ্ধির ঘরোয়া উপায়, যা ব্যবহার করা সহজ। মুখের উজ্জ্বলতা আনতে শুধু ঘরোয়া উপায়ই নয়, সঠিক খাবার ও পানীয় থাকাটাও জরুরি। কী কী খাবার মুখের উজ্জ্বলতা বাড়ায় সে সম্পর্কেও তথ্য দেওয়া হয়েছে এই পোস্টে। তাই দেরি না করে, আজ থেকে আপনার মুখের উজ্জ্বলতা বাড়াতে এবং ত্বককে প্রাকৃতিকভাবে পুষ্ট করতে আপনার প্রিয় ঘরোয়া প্রতিকার গ্রহণ করুন।

সচরাচর জিজ্ঞাস্য

রাতারাতি উজ্জ্বল ত্বক পেতে কী ব্যবহার করবেন?

কোনোভাবেই ত্বকে রাতারাতি গ্লো আসতে পারে না। উজ্জ্বল ত্বক পেতে, একজন ব্যক্তির জন্য ধৈর্য সহকারে ঘরোয়া প্রতিকার এবং সঠিক জীবনধারা অনুসরণ করা প্রয়োজন। হ্যাঁ, ত্বক সুস্থ রাখতে বাদাম তেল এবং গোলাপ জলের মতো প্রাকৃতিক উপাদান রাতে ঘুমানোর আগে ব্যবহার করা যেতে পারে।

বেকিং সোডা কি মুখ উজ্জ্বল করতে সাহায্য করতে পারে?

হ্যাঁ, বেকিং সোডাও মুখের উজ্জ্বলতা বাড়াতে সহায়ক হতে পারে । বেকিং সোডা ত্বককে এক্সফোলিয়েট করে ত্বকের মৃত কোষ অপসারণ করতে সহায়ক। এটি ত্বককে উজ্জ্বল করতে পারে।

কীভাবে প্রাকৃতিক উপায়ে মুখ উজ্জ্বল করবেন?

মুখকে উজ্জ্বল করতে হলুদ, দুধ, লেবু, পেঁপে বা মুলতানি মাটি দিয়ে তৈরি ফেস মাস্ক লাগাতে পারেন। এর পাশাপাশি পুষ্টিকর খাবার যেমন ফলমূল ও সবুজ শাকসবজি খাদ্যতালিকায় অন্তর্ভুক্ত করাও জরুরি।

উজ্জ্বল মুখ পেতে কোন ভিটামিন উপকারী?

মুখের উজ্জ্বলতা আনতে, ডায়েটে নীচে উল্লিখিত প্রয়োজনীয় ভিটামিনগুলি অন্তর্ভুক্ত করুন:

ভিটামিন-এ: ত্বকে ভিটামিন এ (রেটিনল) ব্যবহার সূক্ষ্ম রেখা এবং বলিরেখা কমাতে সহায়ক।

ভিটামিন-সি: ভিটামিন-সি মুখ উজ্জ্বল করার অনেক প্রসাধনী পণ্যে ব্যবহৃত হয় । ভিটামিন-সি এর অভাবে স্কার্ভি হওয়ার সম্ভাবনা বেশি, একটি ত্বকের সমস্যা।

ভিটামিন-ই: এটি এক ধরনের অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট, যা ফ্রি র‍্যাডিক্যালের প্রভাব প্রতিরোধে সহায়ক। ভিটামিন ই এর ব্যবহার এরিথেমা (এক ধরনের ত্বকের প্রতিক্রিয়া), কোষে রোদে পোড়ার প্রভাব এবং সূর্যের ক্ষতিকর রশ্মির কারণে ত্বকের ক্ষতি কমায়।

মুখের উজ্জ্বলতা আনতে কোন যোগব্যায়াম করা উচিত?

মুখের উজ্জ্বলতা আনতে ফেস ইয়োগা করা যেতে পারে। এছাড়াও, পদ্মাসন, শবাসন এবং উত্তানাসনের মতো যোগাসনগুলিও মুখের উজ্জ্বলতা আনতে উপকারী।

মুখে উজ্জ্বলতা আনতে কী খাবেন?

মুখের উজ্জ্বলতা আনতে, আপনি আপনার ডায়েটে নিম্নলিখিত খাবারগুলি অন্তর্ভুক্ত করতে পারেন, যেমন:
আম
পেঁপে
মিষ্টি আলু
কুমড়া
মাছ
ডিমের কুসুম
সবুজ চা
লেবু জাতীয় ফল
গাজর
তরমুজ
চেরি
স্ট্রবেরি

উজ্জ্বল মুখের জন্য কোন ব্যায়াম করবেন?

সাইকেল চালানো, জগিং বা নাচ ইত্যাদি ব্যায়াম করে আপনি উজ্জ্বল ত্বক পেতে পারেন।

সুন্দর ত্বক পাওয়ার জন্য কী করবেন?

সুন্দর ত্বকের জন্য, আপনার খাদ্যতালিকায় স্বাস্থ্যকর খাবার অন্তর্ভুক্ত করা উচিত এবং প্রচুর ঘুমানো উচিত। এছাড়াও, মানসিক চাপ থেকে দূরে রাখা উচিত এবং নিয়মিত রুটিনে ব্যায়াম এবং যোগাসনের অভ্যাস অন্তর্ভুক্ত করা উচিত। এর পাশাপাশি ধূমপান বা গরম পানি দিয়ে গোসলের মতো অভ্যাসও বদলাতে হবে।

কিভাবে মুখে উজ্জ্বলতা আসে?

লেবু, মধু, দুধ, পেঁপে, মুলতানি মাটি বা কলা দিয়ে তৈরি ফেসপ্যাক লাগালে মুখে উজ্জ্বলতা আসে। যাইহোক, এর পাশাপাশি, আপনার একটি স্বাস্থ্যকর ডায়েট এবং ভাল জীবনযাত্রার অভ্যাসও গ্রহণ করা উচিত।

আরো পড়ুনঃ

5/5 - (26 Reviews)

Leave a Reply

Your email address will not be published.