ক্লান্তি দূর করার উপায় - যেসব খাবার খেতে হবে | Food & Fitness

ক্লান্তি দূর করার উপায় – যেসব খাবার খেতে হবে

ক্লান্তি দূর করার উপায় হলো খাবারের নিয়ম মেনে বিশেষ কিছু খাবার খাওয়া। আজকে আমরা এমন ১০ টি খাবারের কথা বলব যেগুলো আপনাকে ক্লান্তি দূর করে সবসময় ফুরফুরে রাখবে।

আপনি যদি এই দিনগুলিতে শক্তি কম অনুভব করেন তবে এই 10টি খাবার আপনার খাবারে যোগ করুন যা আপনার শক্তির মাত্রা বাড়িয়ে ক্লান্তির সাথে লড়াই করতে সহায়তা করবে।

জীবনের দ্রুত গতির সাথে, ভারসাম্য না হারিয়ে একসাথে অনেক কিছু করা সত্যিই একটি সংগ্রাম। এতে শক্তির অভাব শুধু আপনার কাজকেই প্রভাবিত করে না বরং আপনাকে আপনার প্রিয়জনের সাথে জীবন উপভোগ করতে বাধা দেয়।

১০ টি খাবারে ক্লান্তি দূর করার উপায়

আমরা জানি যে আপনার “টু-ডু লিস্ট” বাড়তে থাকে। এমন পরিস্থিতিতে নিজেকে উজ্জীবিত রাখতে অন্তর্ভুক্ত করতে পারেন এমন কিছু খাবার। চলুন জেনে নিই সেই খাবারগুলোঃ-

ওটসঃ ওটস শক্তির একটি স্থির উৎস সরবরাহ করে। তারা প্রোটিনের স্বাস্থ্যকর ডোজ সহ দ্রবণীয় ফাইবার এবং জটিল কার্বোহাইড্রেট একত্রিত করে। এই সংমিশ্রণটি চিনির অবিচ্ছিন্ন শোষণ বজায় রাখে। যার কারণে আপনি দীর্ঘ সময় ক্লান্তি অনুভব করেন না।

চিয়া বীজঃ ডিহাইড্রেশন ক্লান্তির একটি অন্তর্নিহিত কারণ হতে পারে। অনেক লোকের জন্য, সাধারণ পানি পান করা যথেষ্ট, অন্যদের জন্য এটি কঠিন। যেখানে চিয়া বীজের নিজস্ব ওজনের 10 গুণ জল শোষণ করে হাইড্রেশন বজায় রাখার ক্ষমতা রয়েছে। এছাড়াও এতে প্রোটিন, ফ্যাট এবং ফাইবারের সঠিক অনুপাত রয়েছে।

পালং শাকঃ পালং শাক ভিটামিন কে এবং ম্যাগনেসিয়াম সমৃদ্ধ। এটি ফোলেট এবং আয়রনের একটি দুর্দান্ত উৎস। পর্যাপ্ত পরিমাণে এই ভিটামিন এবং খনিজগুলি শক্তি উৎপাদনের জন্য প্রয়োজন। তাই পালং শাককে উপেক্ষা করবেন না।

আরো পড়ুনঃ ভিটামিন সি জাতীয় খাবার, এর উপকারিতা, অভাবের কারণ ও লক্ষণ

তরমুজঃ ডিহাইড্রেশন আমাদের শক্তির স্তরকে সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্থ করে। যেখানে তরমুজ নিজেকে হাইড্রেট করার একটি সুস্বাদু উপায়। এগুলি 92% জল এবং এছাড়াও ভিটামিন সি, ভিটামিন এ এবং অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট রয়েছে, যা বিনামূল্যে র‍্যাডিক্যাল ক্ষতির বিরুদ্ধে লড়াই করার সময় আমাদের দেহকে পুনরুজ্জীবিত করতে পারে। তরমুজে উপস্থিত অ্যামিনো অ্যাসিড পেশীর ব্যথা কমাতে সাহায্য করে। যা এটিকে ফিটনেস ফ্রিকদের জন্য একটি সুপারফুড করে তোলে।

বাদামঃ বাদাম উচ্চ মানের প্রোটিন, ফাইবার এবং স্বাস্থ্যকর মনোস্যাচুরেটেড ফ্যাটের একটি বড় উৎস। এগুলি ভিটামিন বি এর সাথে আপনার শরীরকে শক্তি ধরে রাখতে সহায়তা করে। এছাড়াও এতে উপস্থিত ম্যাগনেসিয়াম পেশীর ক্লান্তি দূর করে।

কলাঃ পটাসিয়াম সমৃদ্ধ, এই ফলটিতে প্রচুর পরিমাণে ফাইবার রয়েছে, যা রক্ত ​​​​প্রবাহে চিনির নিঃসরণকে ধীর করে দেয়। ম্যাগনেসিয়াম এবং ভিটামিন বি এর একটি দুর্দান্ত উৎস হওয়ায় এটি আপনাকে দীর্ঘ সময়ের জন্য শক্তি জোগায়। কলা পুষ্টিগুণে ভরপুর।

ডিমঃ ডিমে উচ্চ মানের প্রোটিন এবং স্বাস্থ্যকর চর্বি থাকে, যা আমাদের দীর্ঘ সময়ের জন্য পরিতৃপ্ত রাখে এবং সারা দিন পর্যাপ্ত শক্তি প্রদান করে। ডিম আয়রন, কোলিন, ভিটামিন ডি এবং ভিটামিন বি -12 সহ বিভিন্ন শক্তি-বর্ধক ভিটামিন এবং খনিজগুলির একটি দুর্দান্ত উৎস।

আরো পড়ুনঃ বাদামের উপকারিতা, গর্ভাবস্থায় কলা খাওয়ার উপকারিতা এবং সতর্কতা, ডিমের পুষ্টিগুণ

খেজুরঃ খেজুর সহজে হজম হয় এবং এটি আপনাকে তাৎক্ষণিক শক্তি প্রদান করে। এগুলি ক্যালসিয়াম, ফসফরাস, পটাসিয়াম, ম্যাগনেসিয়াম, জিঙ্ক এবং আয়রনের একটি দুর্দান্ত উৎস। রাতে আধা কাপ পানিতে পাঁচ থেকে সাতটি খেজুর ভিজিয়ে রাখুন এবং সকালে তা খেয়ে নিন। এটি আপনাকে ক্লান্তি দূর করতে সাহায্য করবে। সপ্তাহে দুবার এই পাল্প খেতে পারেন। আপনি যদি ক্রমাগত ক্লান্ত বোধ করেন তবে আপনি খেজুরের সাথে এক গ্লাস দুধ দিয়েও নাস্তা করতে পারেন।

অশ্বগন্ধাঃ অশ্বগন্ধা এটি অন্যতম জনপ্রিয় আয়ুর্বেদিক ভেষজ, যা কর্টিসলের মাত্রা কমাতে সাহায্য করে। ঘুমের সমস্যা হলে ঘুমানোর আগে দুধের সঙ্গে অশ্বগন্ধা খান। এটি শরীরে উদ্বেগ এবং প্রদাহ কমাতেও সাহায্য করে। এই আয়ুর্বেদিক ভেষজ আপনার স্বাস্থ্য বজায় রাখতে পারে।

আরো পড়ুনঃ খেজুরের উপকারিতা, অশ্বগন্ধার উপকারিতা ও অপকারিতা এবং খাওয়ার নিয়ম

পোলানঃ এটি উল্লেখযোগ্যভাবে একটি প্রাকৃতিক সুপারফুড, মৌমাছির পরাগ শক্তি এবং শারীরিক ক্ষমতা বৃদ্ধি করতে পারে। এতে ভিটামিন বি, অ্যামিনো অ্যাসিড এবং রুটিন নামক একটি অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট রয়েছে যা স্বাস্থ্যকর রক্তনালীগুলিকে সক্রিয় রাখে, রক্ত সঞ্চালন উন্নত করতে এবং প্রদাহের বিরুদ্ধে লড়াই করতে এটি গুরুত্বপূর্ণ।

আরো পড়ুনঃ

5/5 - (12 Reviews)

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *