পেঁপের উপকারিতা ও অপকারিতা

পেঁপে বিশ্বের গ্রীষ্মমন্ডলীয় এবং উপ-ক্রান্তীয় অঞ্চলের একটি প্রধান ফল। আমেরিকার গ্রীষ্মমন্ডলীয় অঞ্চলে স্থানীয়রা পেঁপের চাষাবাদ করেন কিন্তু এর প্রথম উৎপত্তি হয় মেক্সিকোতে। পর্তুগিজরা ভারতে পেঁপে নিয়ে আসেন। ভারতের পর বাংলাদেশে পেঁপের চাষ শুরু হয়। পেঁপেকে প্রায়শই তরমুজের সাথে তুলনা করা হয় তবে এটি তরমুজের চেয়ে কম মিষ্টি। পেঁপের আসল স্বাদ পেতে হলে শুধু পাকা পেঁপে খেতে হবে। কাচা পেঁপে সবুজ রঙের হয় এবং অর্ধেক পাকা পেঁপে অর্ধেক সবুজ ও অর্ধেক হলুদ হয়। পেঁপে সম্পূর্ণ পাকলে হলুদ থেকে কমলা হয়ে যায়।

এই ফলটির রয়েছে অনেক উপকারিতা। স্বাদ ও নানা উপকারিতার কারণে পেঁপে একটি জনপ্রিয় ফল। পেঁপের বিশেষত্ব হলো এটি কোনো মৌসুমি ফল নয়, সারা বছরই পাওয়া যায়। সাধারণত মানুষ সকালের নাস্তায় এবং ফলের সালাদে পেঁপে খান।

পেঁপে ভিটামিনে ভরপুর । পেঁপের স্বাদ বাড়াতে লবণ , মরিচ, চিনি বা লেবু মিশিয়ে খেতে পারেন । কাঁচা পেঁপের সবজিও তৈরি করা যায় এবং তা থেকে আচারও তৈরি করা যায়। পেঁপেতে প্যাপেইন নামক একটি এনজাইম রয়েছে, যা প্রসাধনী, চুইংগামে ব্যবহৃত হয়। সারা বিশ্বে প্রায় ৪০ জাতের পেঁপে চাষ করা হয়। নাশপাতি আকৃতির পেঁপে ২০ ইঞ্চি পর্যন্ত লম্বা হতে পারে। পেঁপেতে শত শত নরম, কালো আঠালো বীজ থাকে। প্রতিটি পেঁপের ওজন ০.৪৯ কেজি থেকে ১ কেজি পর্যন্ত হতে পারে।

পেঁপে স্মুদি বা মিল্কশেকেও যোগ করা যেতে পারে। এটি প্রাকৃতিকভাবে ফাইবার , ক্যারোটিন, ভিটামিন সি এবং অন্যান্য প্রয়োজনীয় খনিজ পদার্থে সমৃদ্ধ। পেঁপে গাছের মূল, ছাল, খোসা, বীজ এবং সজ্জাতেও ঔষধি গুণাবলী পাওয়া যায়।

এশিয়া মহাদেশের মধ্যে ভারত এবং বাংলাদেশ হলো বিশ্বের বৃহত্তম পেঁপে উৎপাদনকারী দেশ। ভারতে প্রায় ৩ মিলিয়ন টন পেঁপে উৎপাদিত হয়, যা বিশ্বের মোট পেঁপে উৎপাদনের অর্ধেক। বাংলাদেশ এবং ভারত তাদের প্রতিবেশী দেশ যেমন বাহরাইন, সৌদি আরব, সংযুক্ত আরব আমিরাত, কুয়েত, কাতার এবং নেদারল্যান্ডে পেঁপে রপ্তানি করে।

পেঁপে সম্পর্কে তথ্যঃ

বোটানিক্যাল নাম: Carica papaya
প্রচলিত নাম: পেঁপে
সংস্কৃত নাম: এরন্দ কারকাটি
দরকারী অংশ: ফল, পাতা, ফুল, মূল, কান্ড এবং বীজ
উৎপত্তিস্থল: যদিও পেঁপে মেক্সিকো এবং উত্তর দক্ষিণ আমেরিকার স্থানীয় বলে মনে করা হয়, তবে এটি এখন বিশ্বের প্রায় সমস্ত গ্রীষ্মমন্ডলীয় অঞ্চলে জন্মে।
আকর্ষণীয় তথ্য: জাতীয় পেঁপে মাস জুনে পালিত হয়।

কিভাবে পেঁপে খাবেন?

পেঁপে, আনারস এবং আম থেকে ফ্রুট সালাদ তৈরি করতে পারেন।
লেবু জল, বরফ চা বা পানির সাথে পেঁপে মিশিয়ে পান করুন। এটি আপনাকে সতেজ বোধ করতে সাহায্য করবে।

কাঁচা পেঁপে, আম, লাল মরিচ ও অন্যান্য মসলা দিয়ে খাওয়া যেতে পারে। এটি মাছ, ডালের সঙ্গে তরকারি হিসেবেও খাওয়া যায়।

অন্যান্য ফলের রস বা স্মুদির সাথে ঠাণ্ডা পেঁপে মিশিয়ে নিন। আনারসের রস, কলা ও দই দিয়ে খেতে পারেন।

পেঁপের স্বাদঃ পাকা পেঁপের স্বাদ সুস্বাদু। কাচা পেঁপের স্বাদ তেমন ভালো না। এটি পেটের ভিতর খুবই গরম পরিবেশ বানিয়ে দেয়। তাই গর্ভাবস্থায় পেঁপে খুব ক্ষতিকর কারণ গর্ভবতী মহিলাদের জন্য গরম প্রভাব ভাল নয়।

পেঁপের উপকারিতা

পেঁপের আরও কিছু উপকারিতা নিম্নরূপ:

  • এটি আপনার হজম শক্তি বাড়ায়।
  • এতে আপনার ওজন কমে।
  • এই কারণে আপনার মাসিকের সময় খুব বেশি ব্যথা হয় না।
  • এতে সংক্রমণের ঝুঁকি কমে।
  • এটি দাঁতের ব্যথা থেকে মুক্তি দেয়।
  • এটি খেলে ক্যান্সার হওয়ার ঝুঁকি কমে।
  • এটি শরীরে খোসপাঁচড়া সৃষ্টি করে না।
  • এটি আপনার রেটিনাকে প্রভাবিত করে না, যা আপনার চোখকে সুস্থ রাখে।
  • গাউট হওয়ার ঝুঁকি কমায়।

হৃদরোগের জন্য পেঁপের ভূমিকা

পেঁপেতে রয়েছে ফাইবার, পটাশিয়াম এবং ভিটামিন, যা হৃদরোগ নিরাময় করে। বেশি পটাশিয়াম খেলে এবং কম সোডিয়াম খেলে হৃদরোগের ঝুঁকি অনেক কমে যায়। আপনার খাদ্যতালিকায় এই পরিবর্তন আনতে হবে।

হজম শক্তি বৃদ্ধিতে পেঁপের ভূমিকা –

পেঁপেতে প্যাপেইন নামক একটি পরিপাক এনজাইম বেশি থাকায় এটি হজম প্রক্রিয়াকে ত্বরান্বিত করতে সহায়তা করে। এই ঔষধি ফলটিতে উপস্থিত উচ্চ মাত্রার পানি এবং দ্রবণীয় ফাইবার হজম প্রক্রিয়াকে সহজ করে। এটি পালাক্রমে অন্ত্রের কার্যকারিতা বাড়ায় এবং কোষ্ঠকাঠিন্য প্রতিরোধ করতে সহায়তা করে। এছাড়াও পেঁপেতে প্রচুর পরিমাণে ফোলেট, বিটা ক্যারোটিন, ভিটামিন ই এবং সি পাওয়া যায় যা কোলন ক্যান্সারের ঝুঁকি কমাতে সাহায্য করে।

পেঁপের বীজ অন্ত্রের কৃমি এবং পরজীবী থেকে মুক্তি পেতে সাহায্য করে কারণ তারা প্রোটিওলাইটিক এনজাইম এ সমৃদ্ধ।

চোখের সমস্যা নিরসনে পেঁপের ভূমিকা –

বয়স্করা প্রয়োজনবোধে প্রতিদিন তিনশ গ্রাম বা ততোধিক পেঁপে খেতে পারেন। এতে বয়স-সম্পর্কিত ম্যাকুলার ডিজেনারেশন (এআরএমডি) হওয়ার ঝুঁকি কমাতে পারে, যা বয়স্ক ব্যক্তিদের দৃষ্টিশক্তি হ্রাসের একটি প্রধান কারণ।

ভিটামিন এ, সি এবং ই থাকার কারণে পেঁপে আপনার চোখের জন্য একটি ভালো খাবার। এতে ক্যারোটিনয়েড লুটেইন এবং জেক্সানথিন রয়েছে যা আপনার চোখকে উচ্চ-শক্তির নীল আলো থেকে রক্ষা করে। এই নীল আলো আপনার চোখের রেটিনার ক্ষতি করতে পারে। এটি ছানি এবং অন্যান্য দীর্ঘস্থায়ী চোখের রোগ প্রতিরোধেও কাজ করে।

বাতের ব্যথায় পেঁপে খাওয়ার উপকারিতা –

পেঁপেতে বেশ কিছু অ্যান্টি-ইনফ্লেমেটরি এনজাইম রয়েছে যা আর্থ্রাইটিসের কারণে যে ব্যথা হয়ে থাকে তা উপশম করতে সাহায্য করে। পেঁপেতে প্যাপেইন এবং কাইমোপেইন নামক দুটি প্রোটিন পাচক এনজাইম রয়েছে যা রিউমাটয়েড আর্থ্রাইটিসের সাথে যুক্ত সংক্রমণকে ব্যাপকভাবে কমাতে পারে।

আরো পড়ুনঃ বাত বা আর্থ্রাইটিস রোগের ঘরোয়া চিকিৎসা

প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন এ, সি এবং ই এবং বিটা ক্যারোটিন সংক্রমণ কমাতেও বেশ কার্যকরী। অ্যানালস অফ রিউমাটয়েড আর্থ্রাইটিসের একটি গবেষণা অনুসারে, যারা নিয়মিত পেঁপের মতো খাবার খাচ্ছে না তাদের বাত হওয়ার সম্ভাবনা বেশি থাকে।

ত্বকের স্বর উন্নত করতে পেঁপের উপকারিতা –

পেঁপেতে অনেক স্বাস্থ্যকর উপাদান রয়েছে যা আপনার ত্বকের জন্য দারুণ উপকারী। সর্বাধিক ত্বকের উপকারিতা উপভোগ করতে পেঁপে একটি ফেসপ্যাক হিসাবে ব্যবহার করা যেতে পারে। পাকা পেঁপে ফেসপ্যাক হিসেবে ব্যবহার করা হয়। এটি ত্বকের পোরস বা ছিদ্র খুলতে সাহায্য করে যা ব্রণ নিরাময়ে এবং ত্বকের সংক্রমণ প্রতিরোধে সহায়ক। পেঁপে ত্বকের মৃত কোষ দূর করে আপনাকে সতেজ ও উজ্জ্বল ত্বক দিতে সক্ষম। এটি ত্বকে বার্ধক্যের ছাপ পড়তে দেয় না।

চুল মজবুত করতে পেঁপের ভূমিকা –

পেঁপে আপনার চুলের জন্য খুবই উপকারী। অনেক খনিজ, ভিটামিন এবং এনজাইম সমৃদ্ধ পেঁপে চুলের বৃদ্ধি এবং শক্তি বৃদ্ধি করে। এটি আপনার চুলের ভলিউম বাড়ানোর পাশাপাশি চুলের খুশকি দূর করতে সাহায্য করে।

চুলের বিশেষজ্ঞদের মতে, আপনি নিয়মিত পেঁপে যুক্ত হেয়ার প্রোডাক্ট ব্যবহার করে চুলের জন্য পেঁপের উপকারিতা উপভোগ করতে পারেন। আপনার নিস্তেজ, প্রাণহীন এবং ঝরঝরে চুলে ভলিউম বা ঘনত্ব এবং চকচকে ভাব নিয়ে আসতে কন্ডিশনার হিসেবেও পেঁপে পাতার নির্যাস ব্যবহার করতে পারেন।

আরো পড়ুনঃ চুল থেকে খুশকি দূর করার উপায়, 8 টি খাবার যা চুল পড়ার কারণ, চুলের জন্য আমলকির উপকারিতা এবং ব্যবহারের নিয়ম

ক্যান্সার প্রতিরোধে পেঁপে বীজের উপকারিতা –

পেঁপেতে বেশ কিছু গুরুত্বপূর্ণ উপাদান রয়েছে যা নির্দিষ্ট ধরণের ক্যান্সার হওয়ার ঝুঁকি কমাতে পারে । এতে থাকা অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট, বিশেষ করে লাইকোপিন, বিটা-ক্যারোটিন এবং বিটা-ক্রিপ্টোক্সানথিন (ক্যারোটিনয়েড) ক্যান্সারের ঝুঁকি কমাতে খুবই উপকারী।

এই অ্যান্টি-ক্যান্সার ফলটিতে আইসোথিওসায়ানেটস নামক যৌগ রয়েছে যা শরীর থেকে সম্ভাব্য কার্সিনোজেনগুলি দূর করে এবং ক্যান্সার প্রতিরোধে টিউমার-দমনকারী প্রোটিনের কার্যকলাপকে বাড়িয়ে তোলে। তারা ক্যান্সার কোষ গঠনের পাশাপাশি এর বৃদ্ধিতেও বাধা প্রদান করে।

ওজন কমাতে পেঁপের ভূমিকা –

পেঁপে ওজন কমাতে সাহায্য করে। পেঁপে ভিটামিন এ, সি, ফোলেট, ফাইবার এবং পটাসিয়ামের একটি সমৃদ্ধ উৎস। এই পুষ্টিগুণ আপনার স্বাস্থ্যের জন্য খুবই উপকারী। তাছাড়া, এই ফলটিতে প্রচুর পরিমাণে ফাইবার রয়েছে যা আপনার পেটকে বেশিক্ষণ ভরা অনুভব করায় এবং আপনাকে অতিরিক্ত খাওয়া থেকে বিরত রাখার পাশাপাশি কোষ্ঠকাঠিন্য প্রতিরোধ করে।

এটিতে প্যাপেইন রয়েছে, একটি অনন্য প্রাকৃতিক এনজাইম যা হজমে সহায়তা করে এবং আপনার পেট থেকে অন্ত্রে খাবারের চলাচলকে ত্বরান্বিত করে। বদহজমকে প্রায়ই অপুষ্টির পাশাপাশি অতিরিক্ত ওজন এর জন্য দায়ী করা হয়। এ কারণে ওজন কমানোর জন্য পেঁপেকে একটি ভালো পথ্য হিসেবে বিবেচনা করা হয়।

পেঁপে কোলেস্টেরল এবং চর্বি থেকে মুক্ত এবং ক্যালোরিতেও খুব কম । তাই এই খাদ্য ডায়েটিং এর জন্য একটি চমৎকার একটি খাবার। আপনি যদি স্বাস্থ্যকর ওজন বজায় রাখতে আগ্রহী হন তবে আপনি কাঁচা বা রান্না করে পেঁপে খেতে পারেন।

উচ্চ রক্তচাপের চিকিৎসায় কাঁচা পেঁপের ভূমিকা-

উচ্চ রক্তচাপের জন্য কাচা পেঁপে অনেক উপকারী। পেঁপে পটাশিয়ামের ভালো উৎস।পটাসিয়াম হল এক ধরনের খনিজ যা সোডিয়ামের প্রভাবকে প্রতিরোধ করে এবং রক্তচাপ স্বাভাবিক মাত্রায় রাখতে সাহায্য করে।

এই কারণেই স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা পরামর্শ দিয়েছেন যে উচ্চ রক্তচাপের রোগীদের প্রতিদিনের খাদ্যতালিকায় পেঁপে অন্তর্ভুক্ত করা উচিত।আপনার খাদ্যতালিকায় পেঁপের পরিমাণ বাড়াতে, সালাদে এই ফলটি অন্তর্ভুক্ত করতে পারেন।এছাড়া উচ্চ রক্তচাপে কাঁচা পেঁপে সেবনও উপকারী।

ইমিউন সিস্টেমের জন্য পেঁপের উপকারিতা-

পেঁপে ইমিউন সিস্টেমের জন্য ভালো। পেঁপেতে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন সি রয়েছে যা শ্বেত রক্তকণিকা বাড়াতে সাহায্য করে এবং কোষকে ফ্রি-র্যাডিক্যাল ড্যামেজ থেকে রক্ষা করে।

পেঁপেতে অন্যান্য শক্তিশালী ইমিউন প্রোটিন, অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট, ভিটামিন এ এবং ই রয়েছে। ভিটামিন এ এবং ই উভয়ই একটি সুস্থ ইমিউন সিস্টেমের সঠিক কার্যকারিতার জন্য অপরিহার্য। যারা প্রায়ই সর্দি, কাশি বা ফ্লুতে ভোগেন তাদের জন্য পেঁপে খুব ভালো।

পেঁপের অপকারিতা বা পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া

যদিও পেঁপে খাওয়ার অনেক উপকারিতা রয়েছে, তবে পেঁপের কিছু পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া এবং এর ব্যবহার সম্পর্কিত কিছু সতর্কতা রয়েছে, যা সবার জানা প্রয়োজন। এগুলো বিশেষভাবে কাচা পেঁপে, পেঁপের বীজ, পেঁপের পাতা এবং পেপেইন এনজাইম ব্যবহারের সাথে সম্পর্কিত। তাই আসুন আমরা পেঁপের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া গুলো সম্পর্কে জেনে নেই, যাতে করে আমরা এর পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া এড়ানোর পাশাপাশি পেঁপের স্বাস্থ্যগত উপকারিতাও সঠিকভাবে উপভোগ করতে পারি:-

ল্যাটেক্সের উপস্থিতির কারণে, পেঁপে জরায়ুর সংকোচন ঘটাতে পারে, যা গর্ভপাত, অকাল প্রসব বেদনা, শিশুর অস্বাভাবিকতা এবং এমনকি মৃত প্রসবের কারণ হতে পারে। তাই গর্ভাবস্থায় পেঁপে কঠোরভাবে খাওয়া উচিত নয়।

বুকের দুধ খাওয়ানো মায়েদেরও ডাক্তারের পরামর্শের পরই পেঁপে খাওয়া উচিত।

পেঁপে বেশি পরিমাণে খাওয়া হলে, পেঁপেতে বিটা ক্যারোটিনের উপস্থিতি ত্বকের বিবর্ণতা ঘটাতে পারে, যা ডাক্তারি ভাষায় ক্যারোটেনমিয়া নামে পরিচিত। এটি এমন একটি অবস্থা যেখানে আপনার চোখ, পায়ের পাতা এবং তালুর রঙ হলুদ হয়ে যায় এবং দেখে মনে হয় হয়তো আপনি জন্ডিসে ভুগছেন।

পেঁপেতে উপস্থিত এনজাইম Papain হল একটি শক্তিশালী অ্যালার্জেন। অতএব, পেঁপের অত্যধিক সেবন আপনার শরীরকে বিভিন্ন শ্বাসকষ্টের শিকার করে তুলতে পারে যেমন নাক বন্ধ, শ্বাসকষ্ট, খড় জ্বর , হাঁপানি ইত্যাদি।

অত্যধিক পেঁপে খাওয়ার ফলে গ্যাস্ট্রোইনটেস্টাইনাল সিস্টেমে সমস্যা হতে পারে, যার ফলে ফুলে যাওয়া, পেটে ব্যথা , বেলচিং ইত্যাদি নানা সমস্যার সম্মুখীন হবার সম্ভাবনা থাকে।

যারা রক্ত ​​পাতলা করার ওষুধ খান তাদেরও পেঁপে খাওয়া উচিত নয়।

এক বছরের কম বয়সী শিশুদের জন্য পেঁপে খাওয়া উপযুক্ত নয়।

পেঁপে কোষ্ঠকাঠিন্যের প্রাকৃতিক প্রতিষেধক হলেও এটি যদি সর্বোচ্চ পরিমাণে সেবন করা হয় তবে এর প্রভাবও বিপরীত হতে পারে।

পেঁপে মানুষের জন্য প্রকৃতির এক অপূর্ব উপহার। তবে সঠিকভাবে ব্যবহার না করা হলে এটি উপরে উল্লেখিত পার্শ্বপ্রতিক্রিয়ার মূল কারণ হতে পারে।

আরো পড়ুনঃ

5/5 - (9 Reviews)

Leave a Reply

Your email address will not be published.