টমেটোর উপকারিতা ও অপকারিতা এবং খাওয়ার নিয়ম

টমেটোর উপকারিতা ও অপকারিতা এবং খাওয়ার নিয়ম সম্পর্কে আজকের পোস্টে বিস্তারিত জানতে পারবেন।

টমেটোতে রয়েছে ভিটামিন-সি, ভিটামিন-এ, ভিটামিন-কে, ফলিক এসিড লাইকোপিন, ক্রোমিয়াম ও আরও গুরুত্বপূর্ণ ভিটামিনসমূহ। টমেটো আমাদের দেশের একটি প্রধান শীতকালীন সবজি, তবে গ্রীষ্মকালেও টমেটো সাফল্যের সাথে চাষ করা যায় এবং পাওয়া যায়।

সবজি এবং সালাদ হিসেবে ভিটামিন এবং খনিজ সমৃদ্ধ টমেটোর বেশ চাহিদা সারাদেশে। ক্ষুদ্র ও মাঝারি চাষীদের জন্য এটি একটি বিশেষ অর্থকরী সবজি হিসেবে চলে আসছে।

সবজি হিসাবে এর ব্যবহার ছাড়াও খাদ্য প্রক্রিয়াকরণ শিল্পেও এর ব্যবহার সুপরিচিত। দেশের বাজারের চাহিদা মিটিয়ে টমেটো রপ্তানিরও প্রচুর অর্থ উপার্জন করে আসছে। রান্নার উপকরণ হিসেবে এবং খাবারের সাথে টমেটো সসও বেশ পরিচিত হয়ে আসছে।

সর্বত্রই এটি জনপ্রিয় কারন এর আকর্ষণীয়তা, ভাল স্বাদ, উচ্চ পুষ্টিমান এবং বহুবিধ উপায়ে ব্যবহারযোগ্যতার ফলে। এ জনপ্রিয় সবজিতে প্রচুর পরিমাণে আমিষ, ক্যালসিয়াম, ভিটামিন-এ এবং ভিটামিন-সি রয়েছে। আর এই টমেটোতে লাইকোপেন নামে বিশেষ উপাদান রয়েছে, যা ফুসফুস, পাকস্থলী, অগ্ন্যাশয়, কোলন, স্তন, মূত্রাশয়, প্রোস্টেট ইত্যাদি দেহের ক্যান্সার প্রতিরোধে সাহায্য করতে পারে।

গবেষণায় দেখা গেছে, প্রতি সপ্তাহে ৭-১০ কাপ টমেটো খেলে অনেকটা হৃদরোগ প্রতিরোধ করা যায়। আর যদি পরিমিত তেল দিয়ে রান্না করে টমেটো খাওয়া হয় তাহলে উপকার বেশি পাওয়া যায়। থ্রম্বোসিসের পরিমাণও কমায় এই টমেটো।

টমেটো ছাড়া রান্নাঘর অসম্পূর্ণ বলে মনে করা হয়। সবজি হিসেবে এর ভূমিকা গুরুত্বপূর্ণ। কারণ এটি শুধু স্বাদই বাড়ায় না স্বাস্থ্যের জন্যও উপকারী। টমেটোতে বিদ্যমান গুণাবলীর কারণে এটিকে সুপার ফুড হিসেবে গণ্য করা হয়। তাই এই পোস্টে আমরা এই শক্তিশালী টমেটো খাওয়ার উপকারিতা, পুষ্টিগুণ, ব্যবহার এবং অপকারিতা সম্পর্কে কথা বলব।

টমেটো খাওয়ার উপকারিতা

টমেটো খাওয়ার উপকারিতা অনেক। পোস্টের এই অংশে, আমরা টমেটোর উপকারিতা সম্পর্কে বলতে যাচ্ছি, তবে তার আগে আমরা এটি পরিষ্কার করতে চাই যে টমেটো কোনও গুরুতর রোগের নিরাময় নয়। এটি শুধুমাত্র কিছু পরিমাণে তাদের উপসর্গ কমাতে পারে। চলুন এবার জেনে নিই, টমেটো খাওয়ার উপকারিতাঃ

দাঁত এবং হাড়ের জন্যঃ দাঁত ও হাড় সুস্থ রাখতে টমেটো উপকারী প্রমাণিত হতে পারে। NCBI (ন্যাশনাল সেন্টার অফ বায়োটেকনোলজি ইনফরমেশন) এর ওয়েবসাইটে প্রকাশিত গবেষণা অনুসারে, টমেটোতে প্রচুর পরিমাণে লাইকোপিন রয়েছে, যা হাড়ের ক্ষতি থেকে রক্ষা করতে পারে।

এছাড়াও টমেটোতে প্রচুর পরিমাণে ক্যালসিয়াম রয়েছে। ব্যাখ্যা করুন যে শরীরের 99 শতাংশের বেশি ক্যালসিয়াম হাড় এবং দাঁতে জমা হয়, যা তাদের শক্তিশালী রাখতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। এমন পরিস্থিতিতে, এটা বিশ্বাস করা যেতে পারে যে টমেটো খাওয়া দাঁত ও হাড়ের স্বাস্থ্যের জন্য উপকারী হতে পারে।

চোখের রোগে উপকারীঃ টমেটো খেলে চোখের রোগ এড়ানো যায়। এর জন্য টমেটোতে পাওয়া ভিটামিন-সি উপকারী প্রমাণিত হতে পারে। অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট হিসেবে ভিটামিন-সি কোষকে সুস্থ রাখতে সাহায্য করে। এছাড়া এটি চোখকে রোগমুক্ত রাখতেও সহায়ক হতে পারে। এমন পরিস্থিতিতে চোখ সুস্থ রাখতে টমেটো খাওয়া উপকারী বলে বিশ্বাস করা যায় ।

ওজন কমাতে সহায়কঃ NCBI-এর ওয়েবসাইটে প্রকাশিত গবেষণা অনুসারে, টমেটোর রস খাওয়া শরীরের ওজন এবং চর্বি কমাতে পারে। উপরন্তু, টমেটো ফাইবারের একটি ভাল উৎস হিসেবে বিবেচিত হয়। একই সময়ে, ফাইবার ওজন নিয়ন্ত্রণে অনেকাংশে সহায়ক হতে পারে। এমন পরিস্থিতিতে ওজন কমাতে টমেটোর রস পানের উপকারিতা দেখা যায় বললে ভুল হবে না ।

ডায়াবেটিসের জন্যঃ ডায়াবেটিসের সমস্যায়ও টমেটোর উপকারিতা দেখা যায়। প্রকৃতপক্ষে, নরিংগিন টমেটোর বিদ্যমান যৌগটি হ’ল অ্যান্টিডেবিটিক প্রভাব দেখা দিতে পারে যা রক্তে গ্লুকোজের মাত্রা কমাতে সহায়ক হতে পারে।

এছাড়াও, টমেটোর রস লাইকোপিন, বিটা-ক্যারোটিন, পটাসিয়াম, ভিটামিন সি, ফ্ল্যাভোনয়েড, ফোলেট রয়েছে এবং ভিটামিন ই সমৃদ্ধ, যা টাইপ 2 ডায়াবেটিসের ঝুঁকির অগ্রগতি রোধ করতে পারে। এর ভিত্তিতে বলা যায়, ডায়াবেটিসের খাবারে টমেটোর রস পানের উপকারিতা থাকতে পারে।

ক্যান্সারের জন্যঃ লাল টমেটোতে লাইকোপিন পাওয়া যায় যা ক্যারোটিনয়েড। এই যৌগ ক্যান্সারের বিরুদ্ধে কেমোপ্রেভেন্টিভ বৈশিষ্ট্য প্রদর্শন করতে পারে। এছাড়াও, লাইকোপিনে অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট এবং অ্যান্টি-কার্সিনোজেনিক বৈশিষ্ট্য রয়েছে, যা ক্যান্সারকে বাড়তে বাধা দিতে সাহায্য করতে পারে। এর ভিত্তিতে ধারণা করা যায় টমেটো খাওয়ার উপকারিতা ক্যান্সারের ঝুঁকি কমাতে দেখা যায়।

যাইহোক, আমরা এটা পরিষ্কার করতে চাই যে ক্যান্সার একটি মারাত্মক রোগ। এই ক্ষেত্রে, এর জন্য চিকিৎসা নিন। ঘরোয়া উপায়ে এই রোগ সারানো সম্ভব নয়।

রক্তচাপের জন্যঃ উচ্চ রক্তচাপের সমস্যায়ও টমেটো খাওয়ার উপকারিতা দেখা যায়। আমরা আপনাকে বলি যে টমেটোর নির্যাসে লাইকোপিন, বিটা-ক্যারোটিন এবং ভিটামিন-ই-এর মতো অনেক ক্যারোটিনয়েড রয়েছে। এই সব একটি কার্যকর অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট হিসাবে কাজ করতে পারে যা বিনামূল্যে র্যাডিকেলের বিরুদ্ধে লড়াই করতে সাহায্য করতে পারে। এছাড়াও, লাল টমেটোর ভিতরে পাওয়া এই সমস্ত পুষ্টি রক্তচাপ কমাতে কার্যকর প্রমাণিত হতে পারে।

বিরোধী প্রদাহজনকঃ প্রদাহজনিত সমস্যায় টমেটো ব্যবহার করা যেতে পারে। টমেটোতে লাইকোপেন, বিটা-ক্যারোটিন, ভিটামিন সি, ভিটামিন ই এর মতো অনেক জৈব সক্রিয় যৌগ রয়েছে বলে জানা যায়, যা প্রদাহ-বিরোধী বৈশিষ্ট্য প্রদর্শন করতে পারে। এর ভিত্তিতে, এটা বললে ভুল হবে না যে প্রদাহজনিত সমস্যা থেকে মুক্তি পেতে টমেটোর উপকারিতা দেখা যায়।

গর্ভাবস্থায়ঃ টমেটোর ঔষধি গুণের কারণে গর্ভাবস্থায়ও এর ব্যবহার উপকারী হতে পারে। প্রকৃতপক্ষে, টমেটোতে প্রচুর পরিমাণে ফোলেট থাকে, যা অনাগত ভ্রূণকে নিউরাল টিউবের ত্রুটি, অর্থাৎ মেরুদন্ড এবং মস্তিষ্ক সম্পর্কিত রোগ থেকে রক্ষা করতে সাহায্য করতে পারে। এই ভিত্তিতে, এটি বলা যেতে পারে যে টমেটোর বৈশিষ্ট্যগুলি গর্ভাবস্থায় মহিলাদের প্রচুর পরিমাণে উপকার করতে পারে।

ব্যথা উপশমকারীঃ মটরের বৈশিষ্ট্য সম্পর্কে কথা বললে, এটি ব্যথা থেকেও মুক্তি দিতে পারে। প্রকৃতপক্ষে, টমেটো ফ্ল্যাভোনয়েড সমৃদ্ধ, যা ব্যথানাশক বৈশিষ্ট্য প্রদর্শন করতে পরিচিত। এই কারণেই ব্যথাজনিত সমস্যার জন্য টমেটো ব্যবহার করা উপকারী বলে বিবেচিত হতে পারে।

হৃদরোগেরঃ বৈজ্ঞানিক গবেষণা নিশ্চিত করেছে যে টমেটোতে কার্ডিও-প্রতিরক্ষামূলক বৈশিষ্ট্য রয়েছে। এছাড়াও এটি লাইকোপিন, বিটা-ক্যারোটিন, ফোলেট, পটাসিয়াম, ভিটামিন-সি, ফ্ল্যাভোনয়েড এবং ভিটামিন-ই এর সমৃদ্ধ উৎস। এসব গুণের কারণে টমেটো কোলেস্টেরল ও রক্তচাপ প্রতিরোধে সহায়ক। কোলেস্টেরল ও রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে থাকলে হৃদরোগের ঝুঁকি কমে।

রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়ঃ টমেটো রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতেও উপকারী প্রমাণিত হতে পারে। টমেটোর উপর একটি গবেষণা অনুসারে, টমেটোতে উপস্থিত ক্যারোটিনয়েড একটি শক্তিশালী অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট হিসাবে কাজ করতে পারে, যা রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধিতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করতে পারে। এইভাবে উন্নত রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতাও টমেটোর বৈশিষ্ট্যে অন্তর্ভুক্ত করা যেতে পারে।
424.8K

রক্ত ​​জমাট বাঁধতে বাধা দেয়ঃ টমেটো রক্ত ​​জমাট বাঁধা প্রতিরোধে সহায়ক হতে পারে। বৈজ্ঞানিক গবেষণায় পাওয়া গেছে যে টমেটোতে উপস্থিত লাইকোপিন কোলেস্টেরল কমানোর পাশাপাশি রক্তের জমাট বাঁধা প্রতিরোধে সহায়ক হতে পারে। এর ভিত্তিতে, এটি বিশ্বাস করা যেতে পারে যে টমেটো খাওয়ার উপকারিতা রক্তের জমাট বাঁধা প্রতিরোধে দেখা যায়।

পেশী তৈরিতে সহায়কঃ টমেটো এবং টমেটো পণ্য পটাসিয়াম সমৃদ্ধ। একই সাথে, আমরা আপনাকে বলে রাখি যে পটাসিয়াম শরীরের জন্য গুরুত্বপূর্ণ খনিজগুলির মধ্যে একটি। একটি পটাসিয়াম-সমৃদ্ধ খাদ্য গ্রহণ করা পেশী গঠনে সাহায্য করতে পারে। যদিও টমেটোর রস নিজেই টমেটো থেকে তৈরি করা হয়, টমেটোর রস পান করার উপকারিতাগুলি পেশী তৈরিতেও সহায়ক হতে পারে।

হজমের সমস্যাঃ হজমের সমস্যায় টমেটো খেলে উপকার পাওয়া যায়। NCBI-এর গবেষণা অনুসারে, টমেটোতে লাইকোপিন পাওয়া যায়, যা পরিপাকতন্ত্রের জন্য সহায়ক হতে পারে। একই সময়ে, অন্য একটি গবেষণা অনুসারে, টমেটোকে ক্লোরাইডের একটি ভাল উত্স হিসাবে বিবেচনা করা হয়, যা পাকস্থলীর একটি অপরিহার্য অঙ্গ, যা শরীরের তরলের ভারসাম্য বজায় রাখার জন্য প্রয়োজন। এই ভিত্তিতে, এটা অনুমান করা যেতে পারে যে টমেটো হজমের জন্য ভাল হতে পারে।

লিভারের জন্যঃ গবেষণা অনুসারে, টমেটোতে উপস্থিত লাইকোপিন অ্যালকোহলযুক্ত লিভারের রোগ প্রতিরোধে সহায়ক হতে পারে। একই সময়ে, অন্য একটি গবেষণায় বলা হয়েছে যে টমেটো খাওয়ার মাধ্যমে লিভার ক্যান্সারের ঝুঁকি হ্রাস করা যেতে পারে। টমেটো এবং টমেটোর রসের উপকারিতা লিভারের স্বাস্থ্যের জন্য ভালো হতে পারে।

আরো পড়ুনঃ অতিরিক্ত গ্যাস্ট্রিক থেকে মুক্তির উপায়

মস্তিষ্কের জন্যঃ টমেটো খাওয়া মস্তিষ্কের জন্যও উপকারী হতে পারে। গবেষণা অনুসারে, টমেটোতে উপস্থিত লাইকোপিন অ্যালঝাইমার’স এর মতো গুরুতর রোগ প্রতিরোধেও সহায়ক হতে পারে । একই সময়ে, টমেটোতে উপস্থিত ভিটামিন সি নিউরোট্রান্সমিটার, নরপাইনফ্রাইন তৈরিতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করতে পারে। ভিটামিন সি এর পরিমাণ কম হলে, এটি একজন ব্যক্তির মেজাজের পাশাপাশি মস্তিষ্কের কার্যকারিতাকে প্রভাবিত করতে পারে। এর ভিত্তিতে বলা যায় টমেটোর ঔষধি গুণ মস্তিষ্কের জন্য ভালো প্রমাণিত হতে পারে।

ত্বকের স্বাস্থ্যের জন্যঃ টমেটো ত্বকের জন্য ভালো বিবেচিত হতে পারে। এতে পাওয়া লাইকোপিন ত্বকে UV রশ্মি সুরক্ষা প্রদানের পাশাপাশি রোদে পোড়া সমস্যায় সহায়ক হতে পারে। শুধু তাই নয়, লাইকোপেন সমৃদ্ধ টমেটো একটি দুর্দান্ত ক্লিনজার হিসাবেও কাজ করতে পারে, যা ত্বকের ময়লাকে এক্সফোলিয়েট করতে সাহায্য করতে পারে।

চুলের জন্যঃ লাল টমেটো চুলের ভালো স্বাস্থ্যের জন্য উপকারী হতে পারে। টমেটো ফ্ল্যাভোনয়েড সমৃদ্ধ, যা চুল পড়া রোধে সহায়ক হতে পারে। একই সময়ে, টমেটোতে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন-এ রয়েছে, যা চুলকে চকচকে ও মজবুত রাখতে কার্যকরী প্রমাণিত হতে পারে।

চর্মরোগ নিরাময়েঃ চর্মরোগের জন্য টমেটো অত্যন্ত কার্যকারি উপাদান। আপনার ত্বকে যদি কোনো সমস্যা হয়ে থাকে, তবে টমেটোর ব্যবহার করে দেখতে পারেন। আশা করি উপকার পাবেন। চর্মরোগ নিরাময়ে টমেটোর রস একটি গুরুত্বপূর্ণ উপাদান হিসেবে কাজ করে থাকে। একটি টাটকা টমেটো নিয়ে তার রস করে। তারপর সে রস ত্বকের যে স্থানটি রোগাক্রান্ত সেখানে মাখিয়ে রাখুন। এভাবে দিনে দুই থেকে তিনবার মাখিয়ে রাখলে। দেখবেন আপনার সমস্যার সমাধান হয়ে যাবে।

মুখের সৌন্দর্য ধরে রাখতে এবং বয়সের ছাপ দুর করতেঃ টাটকা টমেটো কেটে টুকরো টুকরো করার পর সেগুলো থেকে রস করে নেন। তারপর এই রসের সাথে খানিকটা চিনি মেশান। এই চিনিমিশ্রিত রস প্রতিদিন মুখে মাস্ক হিসেবে ব্যবহার করতে হবে। এতে মুখের ত্বক মসৃণ ও কোমল হবে। বয়স বাড়তে থাকলে মানুষের মুখে যে বয়সের ছাপ পড়ে, এই টমেটো দেওয়ার ফলে সেই ছাপ লুকিয়ে যেতেও টমেটা সাহায্য করবে।

উচ্চ রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণেঃ উচ্চ রক্তচাপের সমস্যা যে কোন রোগীর জন্য অনেক কঠিন একটা সমস্যা। তাই এখন থেকে প্রতিদিন সকালে খালি পেটে একটি বা দুটি টমেটো খাবেন। সাথে কিছু চিনিও মিশিয়ে নিতে পারেন। এটি উচ্চ রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে অনেক ইতিবাচক ভূমিকা রাখতে সাহায্য করবে।

রক্ত স্বল্পতা দূরীকরণেঃ যারা রক্ত স্বল্পতা বা এনিমিয়ায় ভুগছেন, তাদের জন্য টমেটো বেশ উপকারী একটি সবজি বা ফল। একটি আপেল, একটি টমেটো এবং ১৫ গ্রাম তিল একসাথে খাবেন। প্রতিদিন এক বা দুইবার খেতে পারেন। এতে রক্ত স্বল্পতার সমস্যা অনেকটাই দূর হতে পারে।

ক্ষত রোগ নিরাময়েঃ আমাদের অনেকের মুখগহ্বরে মাঝে মাঝে ক্ষতের সৃষ্টি হয়। এই সমস্যা অনেকের হয়ে থাকে। আমি মনে করি এখন থেকে আর চিন্তা করার প্রয়োজন নেই। টমেটো রস আমাদের সাহায্য করতে পারে। প্রতিদিন সকাল ও সন্ধ্যায় একবার করে টমেটোর রস খান। দেখবেন, দিন কয়েকের মধ্যে মাথার ক্ষত দূর হয়ে যাবে।

হেপাটাইটিসের নিরাময়েঃ টমেটোর জুড়ি নেই, টমেটো, সেলারি, গাজর এবং চাল। এ ছাড়া, পরিমাণমতো লবণ দিয়ে একটি ডিশ তৈরী করে নিতে পারেন। এই ডিশ হেপাটাইটিসের নিরাময়ে খুব কার্যকর ভূমিকা পালন করে।

সর্দি-কাশি প্রতিরোধেঃ সর্দি-কাশি প্রতিরোধেও টমেটো বেশ কার্যকর। সর্দি-কাশি হলে এক বা দুটি টমেটো নিয়ে স্লাইস করে অল্প চিনি বা অল্প লবণ দিয়ে পাত্রে গরম করে স্যুপ তৈরি করে খেতে পারেন। এর ফলে সর্দি-কাশিতে উপকার পাবেন।

জ্বরের নিরাময়েঃ গায়ের তাপমাত্রা নানান কারণে বাড়তে পারে। সামান্য জ্বর হলে টমেটো খেলেই আরাম পেতে পারেন।

মাড়ি থেকে রক্তপাত নিয়ন্ত্রণেঃ ভিটামিন সির অভাবে মাড়ি থেকে যদি রক্তপাত হয়। টমেটোতে প্রচুর পরিমাণ ভিটামিন সি রয়েছে। তাই প্রতিদিন একটি করে টমেটো খেলে মাড়ি থেকে যদি রক্তপাতের বিষয় থাকে উপকার পাবেন।

অ্যাজমা নিয়ন্ত্রণেঃ টমেটোর মধ্যে রয়েছে লাইকোপেন এবং ভিটামিন এ। যা অ্যাজমা নিয়ন্ত্রণে সাহায্য করে। এই রোগকে নিয়ন্ত্রণে রাখতে তাই নিয়মিত টমেটো খেতে পারেন।

টমেটোর পুষ্টি উপাদান

টমেটোতে পাওয়া এই সমস্ত পুষ্টিগুলি অনেক স্বাস্থ্য সমস্যাকে উপকৃত করতে পারে।

পুষ্টি উপাদানপ্রতি 100 গ্রাম পরিমাণ
জল94.52 গ্রাম
শক্তি18 কেসিএল
প্রোটিন0.88 গ্রাম
চর্বি0.2 গ্রাম
কার্বোহাইড্রেট3.89 গ্রাম
ফাইবার1.2 গ্রাম
চিনি2.63 গ্রাম
ক্যালসিয়াম10 মিলিগ্রাম
আয়রন0.27 মিলিগ্রাম
ম্যাগনেসিয়াম11 মিলিগ্রাম
ফসফরাস24 মিলিগ্রাম
পটাসিয়াম237 মিলিগ্রাম
সোডিয়াম5 মি.গ্রা
দস্তা0.17 মিলিগ্রাম
তামা0.059 মিলিগ্রাম
ভিটামিন সি13.7 মিলিগ্রাম
থায়ামিন0.037 মিলিগ্রাম
রিবোফ্লাভিন0.019 মিলিগ্রাম
নিয়াসিন0.594 মিগ্রা
ভিটামিন বি৬0.08 মিলিগ্রাম
ফোলেট15 মাইক্রোগ্রাম
ভিটামিন এ RAE42 মাইক্রোগ্রাম
বিটা ক্যারোটিন499 মাইক্রোগ্রাম
ভিটামিন ই0.54 মিলিগ্রাম
ভিটামিন কে7.9 মাইক্রোগ্রাম
ফ্যাটি অ্যাসিড মোট স্যাচুরেটেড0.028 গ্রাম
ফ্যাটি অ্যাসিড মোট মনোস্যাচুরেটেড0.031 গ্রাম
ফ্যাটি অ্যাসিড মোট পলিআনস্যাচুরেটেড0.083 গ্রাম

টমেটো খাওয়ার উপকারিতা ও অপকারিতা জানার পর এবার চলুন জেনে নিই টমেটোর বিশেষ কিছু রেসিপির কথা।

টমেটোর ব্যবহার

আসুন জেনে নিই কিভাবে টমেটো ব্যবহার করে পুষ্টিগুণে ভরপুর টমেটোর উপকারিতা পেতে পারেন:

টমেটো স্যুপ

উপাদান:
400 গ্রাম টমেটো
1 চা চামচ লাল লঙ্কা গুঁড়ো
1 কাপ ফ্যাট মুক্ত দুধ
1 চা চামচ রসুনের গুঁড়া
চা চামচ কালো মরিচ
2 টেবিল চামচ তাজা তুলসী
1 টি স্লাইস টোস্ট

ব্যবহারবিধি:
একটি ব্লেন্ডারে টমেটো এবং লাল মরিচ ভালো করে পিষে নিন।
একটি প্যানে টমেটো এবং মরিচের প্রস্তুত মিশ্রণটি রাখুন এবং মাঝারি আঁচে 10 মিনিটের জন্য সিদ্ধ করুন।
এবার দুধ, রসুনের গুঁড়া ও কালো মরিচ দিয়ে ৫ মিনিট ফুটিয়ে নিন।
এবার এতে তুলসী দিন এবং পরিবেশন করুন।

তরমুজ এবং টমেটো সালাদ

উপাদান:
2টি বড় টমেটো
2 টেবিল চামচ আপেল সিডার ভিনেগার
1 টেবিল চামচ অলিভ অয়েল
1 টেবিল চামচ তাজা তুলসী
4 কাপ বীজ ছাড়া তরমুজ
আধা চা চামচ লবণ
1 চা চামচ কালো মরিচ

ব্যবহারবিধি:
টমেটোগুলোকে বড় টুকরো করে কেটে প্লেটে রাখুন।
তারপর একটি পাত্রে আপেল সিডার ভিনেগার, তেল এবং তুলসী ভালো করে মিশিয়ে পেস্ট তৈরি করুন।
সবকিছু মিশ্রিত করার পরে, এতে তরমুজ যোগ করুন এবং পেস্টটি তরমুজে প্রলেপ না হওয়া পর্যন্ত এটি ভালভাবে মেশান।
এরপর টমেটোর উপরে লেপা তরমুজ দিন।
এবার লবণ ও গোলমরিচ দিয়ে পরিবেশন করুন।

টমেটো ব্যবহারের পর জেনে নিন সঠিক টমেটো বেছে নেওয়ার টিপস এবং নিরাপদে রাখার উপায়।

কীভাবে ভাল টমেটো চয়ন করবেন এবং সেগুলি সংরক্ষণ করার জন্য কী কী জিনিস মাথায় রাখা উচিত, নীচে বিশদভাবে ব্যাখ্যা করা হয়েছে:

কীভাবে চয়ন করবেন:
পাকা এবং শক্ত টমেটো বেছে নিন যেগুলো কোনোভাবেই নরম ও খসখসে নয়।
টমেটো ঠান্ডার জন্য খুবই সংবেদনশীল। এটি পাকা প্রক্রিয়াকে প্রভাবিত করে টমেটোর স্বাদও কমাতে পারে।

স্টোরেজ পদ্ধতি:
টমেটো রোদে রাখা উচিত নয়। এটি ঘরের তাপমাত্রায় সংরক্ষণ করা যেতে পারে এবং যত তাড়াতাড়ি সম্ভব ব্যবহার করা উচিত।
সম্পূর্ণ পাকা টমেটো ফ্রিজে রাখুন। তারা ফ্রিজে 2-3 দিন সতেজ থাকবে।
টিনজাত টমেটো অনেক রকমের হয় যেমন কাটা, কেচাপ, স্যুপ এবং চাটনি ইত্যাদি।
টিনজাত টমেটো ছয় মাসের মধ্যে খাওয়া যেতে পারে।
টমেটো বেশি থাকলে ফ্রিজেও টমেটো রাখতে পারেন।

এবার টমেটোর অপকারিতা সম্পর্কে জানার পালা।

টমেটো খাওয়ার অপকারিতা

টমেটো খাওয়ার উপকারিতা জানার পাশাপাশি টমেটোর অপকারিতা সম্পর্কেও সচেতন হওয়া জরুরি, কারণ এটি অতিরিক্ত পরিমাণে খাওয়া ক্ষতিকর হতে পারে। তাই আমরা এখানে টমেটোর অপকারিতাগুলো বলছি, যা নিম্নরূপ:

যদিও টমেটোতে অ্যালার্জি বিরল, তবে তাদের পরাগ একটি শ্বাস-প্রশ্বাসের অ্যালার্জির কারণ হতে পারে, যাকে ওরাল অ্যালার্জি সিন্ড্রোম বলা হয়। এ ছাড়া কেউ হৃদরোগের ওষুধ সেবন করলে চিকিৎসকের পরামর্শ নিয়েই টমেটো খাওয়া উচিৎ। আসলে, টমেটো পটাসিয়াম সমৃদ্ধ বলে পরিচিত। এটি রক্তে পটাসিয়ামের মাত্রা বাড়াতে পারে, যা কার্ডিওভাসকুলার ঝুঁকি বাড়াতে পারে।

শুধু তাই নয়, কেউ যদি কিডনি সংক্রান্ত সমস্যায় ভুগে থাকেন, তাহলে টমেটো খাওয়ার আগে একবার চিকিৎসকের পরামর্শও নেওয়া উচিৎ।
গ্যাস্ট্রোইসোফেজিয়াল রিফ্লাক্স ডিজিজের সমস্যায় টমেটো খাওয়া বাঞ্ছনীয় নয়। টমেটোতে উপস্থিত অ্যাসিড এই সমস্যাটিকে আরও বাড়িয়ে তুলতে পারে।

টমেটো খাওয়ার উপকারিতা ও অপকারিতা দুটোই আছে। এমন পরিস্থিতিতে টমেটোর অপকারিতা এড়িয়ে টমেটো খাওয়ার উপকারিতা পেতে চাইলে তা সীমিত পরিমাণে খান। এর সবচেয়ে বড় বৈশিষ্ট্য হল এটি একা বা অন্যান্য সবজির সাথে একত্রে রান্না করা যায়। এছাড়াও টমেটো স্বাস্থ্যের পাশাপাশি ত্বক ও চুলের জন্যও ব্যবহার করা যেতে পারে। এমন পরিস্থিতিতে এখন আপনি নির্দ্বিধায় আপনার ডায়েটে টমেটো অন্তর্ভুক্ত করতে পারেন।

আরো পড়ুনঃ

5/5 - (26 Reviews)

Leave a Reply

Your email address will not be published.