ভিটামিন সি জাতীয় খাবার, এর উপকারিতা, অভাবের কারণ ও লক্ষণ

শরীর সুস্থ থাকার জন্য অনেক ধরনের পুষ্টির প্রয়োজন। ভিটামিন সিও সেই প্রয়োজনীয় পুষ্টি উপাদানগুলির মধ্যে একটি। ভিটামিন সি এর ঘাটতি মেটানো যায় খাবারের মাধ্যমে। যাইহোক, কখনও কখনও একটি খারাপ খাদ্য শৈলী ভিটামিন C এর অভাবের কারণ হয়ে ওঠে। এমন পরিস্থিতিতে সময়মতো ভিটামিন সি-এর অভাবের লক্ষণগুলি চিনতে হবে, যাতে শরীরকে সুস্থ রাখা যায়।

ভিটামিন সি জাতীয় খাবার গুলো কি কি, ভিটামিন সি এর উপকারিতা, এর অভাবের কারণ ও লক্ষণ সম্পর্কে আজকের পোস্টে সবকিছু আলোচনা করা হবে।

প্রথমেই জানবো ভিটামিন সি কী এবং কেনো এটি শরীরের জন্য গুরুত্বপূর্ণ।

শরীরের সুস্থ বিকাশের জন্য বিভিন্ন ধরনের ভিটামিনের প্রয়োজন, তার মধ্যে একটি হল ভিটামিন সি। এটি একটি পানিতে দ্রবণীয় ভিটামিন, যা শরীরের স্বাভাবিক বিকাশের জন্য অপরিহার্য।

১. এটি এক ধরনের অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট যা ত্বক, হাড় এবং সংযোগকারী টিস্যুর জন্য গুরুত্বপূর্ণ। নিরাময় প্রক্রিয়া বাড়াতে সাহায্য করার পাশাপাশি, এটি শরীরে আয়রন শোষণেও সহায়ক ভূমিকা পালন করে।

২. ভিটামিন সি অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট-সমৃদ্ধ হওয়ায় ফ্রি র‍্যাডিকেল দ্বারা সৃষ্ট শারীরিক ক্ষতি থেকে শরীরকে প্রতিরোধ করতে সাহায্য করে।

৩. ভিটামিন সি অনেক ধরনের সমস্যায় উপকারী কারণ এটি শরীরে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা অনেক গুন বাড়িয়ে দেয়। সেই সঙ্গে এর ঘাটতির কারণে অনেক রোগও হয়ে থাকে।

পোস্টের পরবর্তী অংশে আমরা এসব সম্পর্কে বিস্তারিত জানবো।

আমাদের শরীরে ভিটামিন সি এর অভাবের কারণ কী কী?

ভিটামিন সি এর অভাবের কারণ

শরীরে ভিটামিন সি-এর অভাবের অনেক কারণ থাকতে পারে। এমতাবস্থায় ভিটামিন সি-এর ঘাটতির কারণসমূহ জানা গেলে এর ঘাটতি রোধ করা সম্ভব হয়। শরীরে কি কি কারণে ভিটামিন সি এর অভাব দেখা দেয় এর কিছু কারণ নিম্নরূপ :

১. শুধুমাত্র গরুর দুধের উপর নির্ভরশীল হওয়া (যে সব শিশু শুধুমাত্র দুধের উপর নির্ভরশীল)।
২. অ্যালকোহল সেবনের কারণে ।
৩. যেসব মানুষ সকালের নাস্তায় শুধুমাত্র চা আর টোস্টের উপর নির্ভরশীল।
৪. দারিদ্র্যতার কারণে (যাদের মাথাপিছু আয় এতটাই কম যে তারা ফল ও সবজি কিনতে অক্ষম)।
৫. ধূমপানের কারণে।
৬. খাওয়ার ব্যাধির কারণ যেমন একটি নির্দিষ্ট খাবারের প্রতি প্রবণতা বা একেবারেই না খাওয়া।
৭. টাইপ ১ ডায়াবেটিসের কারণে (এই সমস্যায় রোগীর স্বাভাবিকের চেয়ে বেশি ভিটামিন সি প্রয়োজন)।
৮. হজমের ব্যাধির কারণে ।
৯. আয়রনের আধিক্যের কারণে।
১০. খাবারে অ্যালার্জি হওয়ার কারণে।

ভিটামিন সি এর অভাবের লক্ষণ

আমরা ইতোমধ্যে ভিটামিন সি-এর অভাবের কারণগুলি জেনেছি। এখন আমরা ভিটামিন সি-এর অভাবের ফলে শরীরে কি কি লক্ষণ প্রকাশ পায় সেসব সম্পর্কে জানবো। ভিটামিন সি-এর ফলে শরীরে যেসব অভাব দেখা দেয় সেসব লক্ষণগুলো জানলে সেগুলোর প্রতি মনোযোগ দিয়ে সময়মতো ভিটামিন সি-এর অভাব এড়ানো সম্ভব।ভিটামিন সি-এর অভাবের লক্ষণগুলি নিম্নরূপঃ

১. অ্যানিমিয়া (রক্তের অভাব) ।
২. মাড়ি থেকে রক্তপাত ।
৩. সংক্রমণের বিরুদ্ধে লড়াই করার ক্ষমতা কমে যায়।অর্থাৎ শরীরে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা কমে যায়।
৪. শরীরে কোনো স্থানে ক্ষত হলে তা নিরাময় হতে স্বাভাবিকের চেয়ে বেশি সময় নেয়।
৫. শুষ্ক এবং বিভক্ত চুল।
৬. ত্বকের অতিরিক্ত পাতলা হওয়ার কারণে সামান্য আঁচড় থেকে রক্তপাত বা ঘা।
৭. মাড়ির প্রদাহ।
৮. নাক দিয়ে রক্ত ​​পড়া ।
৯. হজম প্রক্রিয়া ধীর গতিসম্পন্ন হওয়ার কারণে দ্রুত ওজন বৃদ্ধি পায়।
১০. শুষ্ক এবং আঁশযুক্ত ত্বক ।
১১. জয়েন্টে ব্যথা এবং ফোলাভাব ।
১২. দাঁতের বাইরের স্তর দুর্বল হয়ে যাওয়া, একে এনামেল বলা হয়।

ভিটামিন সি-এর উপকারিতা

আমরা জেনেছি ভিটামিন সি শরীরের জন্য কতটা গুরুত্বপূর্ণ। এখন আমরা জানবো শরীরের জন্য ভিটামিন সি এর উপকারিতাসমূহ। ভিটামিন সি এর উপকারিতাসমূহ নিম্নরূপ:

১। রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়ঃ শরীরে তুলনামূলক দুর্বল রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতার কারণে অনেক ধরনের সংক্রমণ ও রোগের ঝুঁকি দেখা দেয়। ভিটামিন সি শরীরে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে সাহায্য করে। বিশেষজ্ঞদের মতে, ভিটামিন সি যুক্ত খাবারে কোষের কার্যক্ষমতা ও রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা উন্নত করার বিশেষ ক্ষমতা রয়েছে।

অন্য একটি গবেষণা অনুসারে, ভিটামিন সি ইমিউন কোষের কার্যকারিতা উন্নত করতে এবং শ্বাসযন্ত্রের সংক্রমণ থেকে রক্ষা করতেও গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে থাকে। এ কারণে বলা যায়, শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বজায় রাখতে ভিটামিন সি-এর প্রয়োজনীয়তা অনেক বেশি।

২। সর্দি এবং ভাইরাল সংক্রমণ রোধেঃ সাধারণ সর্দি-কাশির নিরাময়ে ভিটামিন সি অনেক উপকারী। এই বিষয়ে এনসিবিআই (ন্যাশনাল সেন্টার ফর বায়োটেকনোলজি ইনফরমেশন) ওয়েবসাইটে প্রকাশিত একটি গবেষণা অনুসারে, ভিটামিন সি কিছুটা হলেও ভাইরাল সংক্রমণের বিরুদ্ধে সুরক্ষায় কার্যকর বলে প্রমাণিত হয়েছে, যেমন সর্দি, কাশি, সর্দি এবং নিউমোনিয়া।

একই সময়ে, এই বিষয়ে কিছুটা মিশ্র মতামত রয়েছে কারণ কিছু গবেষণা অনুসারে, ভাইরাল সংক্রমণের পরে ভিটামিন সি কে কার্যকর হিসাবে বিবেচনা করা হয় না। হ্যাঁ, এটি কিছু পরিমাণে সর্দি-কাশির উপসর্গ কমাতে পারে, তবে এটি খেলেই যে সর্দি কাশি ভালো হয়ে যাবে সেটি ঠিক নয়। যদিও এই বিষয়ে আরও গবেষণা প্রয়োজন, তারপরও ভিটামিন সি-সমৃদ্ধ খাবার খাওয়া যে সর্দি-কাশি প্রতিরোধের জন্য উপকারী সে বিষয়ে কোনো সন্দেহ নেই।

৩। কোলাজেনের জন্যঃ ভিটামিন সি কোলাজেন (এক ধরনের প্রোটিন) উৎপাদনে সাহায্য করে।ভিটামিন সি-এর অভাবের কারণে সৃষ্ট স্কার্ভি রোগ কোলাজেন ফাইবারের উপর নেতিবাচক প্রভাব ফেলতে পারে, যার ফলে মাড়ি থেকে রক্তপাত হয় এবং ক্ষত নিরাময়ে বিলম্ব হয়। সেই সঙ্গে পর্যাপ্ত পরিমাণ ভিটামিন সি স্কার্ভি রোগের সমস্যায় উপকারী বলে বিবেচিত হয়েছে। এছাড়াও, ভিটামিন সি কোলাজেনের গঠন বজায় রাখার জন্যও উপকারী।

৪। ক্যান্সার প্রতিরোধঃ এনআইএইচ (ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অফ হেলথ) অনুসারে, ভিটামিন সি ব্যবহার ক্যান্সার রোগীদের জীবনযাত্রার উন্নতিতে সাহায্য করতে পারে। আসলে, ভিটামিন সি ক্যান্সার কোষের বিরুদ্ধে লড়াই করার ক্ষমতা রাখে। এই ক্ষমতার কারণে, ভিটামিন সি ব্যবহার ক্যান্সার রোগীদের মধ্যে ইতিবাচক প্রভাব ফেলতে পারে।

অন্যদিকে, এটি উল্লেখ করা প্রয়োজন যে কিডনি রোগ এবং হেমোক্রোমাটোসিস (আয়রনের আধিক্যের কারণে বিষক্রিয়া) সমস্যায় ভুগছেন এমন ব্যক্তিদের শুধুমাত্র ডাক্তারের পরামর্শে এটি খাওয়া উচিত। কারণ হল এই পরিস্থিতিতে ভিটামিন সি-এর ওভারডোজ কিছু পার্শ্বপ্রতিক্রিয়ার কারণ হতে পারে।

উপরন্তু, ভিটামিন সি একটি অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট, যা ফ্রি র‍্যাডিক্যাল দ্বারা সৃষ্ট ক্যান্সারের ঝুঁকি কমাতে সহায়ক। সেই সাথে এটাও পরিষ্কার করে দিই যে ক্যান্সার একটি মারাত্মক রোগ। এমতাবস্থায় যদি কোনো ব্যক্তি এই রোগে আক্রান্ত হন, তাহলে শুধুমাত্র ভিটামিন সি যুক্ত খাবার বা সম্পূরক খাবারের ওপর নির্ভর না করে চিকিৎসকের পরামর্শকে অগ্রাধিকার দিতে হবে।

৫। হাড়ের জন্য উপকারীঃ ভিটামিন সি হাড়ের জন্যও কিছু গুরুত্বপূর্ণ কাজ করে থাকে। আসলে, দুর্বল হাড়ের কারণে অনেক ধরনের সমস্যা হতে পারে। যার মধ্যে একটি হল অস্টিওআর্থারাইটিস। ভিটামিন সি এর উপকারিতার মধ্যে অস্টিওআর্থারাইটিসের চিকিৎসাও অন্তর্ভুক্ত।

বিশেষজ্ঞদের মতে, ভিটামিন সি-এর অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট (ফ্রি র‍্যাডিক্যাল ধ্বংসকারী) বৈশিষ্ট্য রয়েছে। এই বৈশিষ্ট্যের কারণে, ভিটামিন সি জয়েন্টগুলির মধ্যে তরুণাস্থি (জয়েন্টগুলির মধ্যে পাওয়া টিস্যুর গ্রুপ, যা রাবারের মতো কাজ করে এবং জয়েন্টগুলিতে চাপ দেয় না) ধ্বংস থেকে রক্ষা করতে সাহায্য করে। একই সাথে, এতে অ্যান্টি-ইনফ্ল্যামেটরি (প্রদাহ কমানোর) বৈশিষ্ট্যও এতে পাওয়া যায়।

শুধু তাই নয়, ভিটামিন সি হাড়ের ক্ষতি থেকেও রক্ষা করে। যদিও এই বিষয়ে আরও গবেষণা প্রয়োজন, ভিটামিন সি জাতীয় খাবার হাড় সুস্থ রাখার জন্য উপকারী।

৬। চোখের স্বাস্থ্য বজায় রাখতে উপকারীঃ ভিটামিন সি এর চোখের স্বাস্থ্যের জন্যও খুব উপকারী। বিশেষজ্ঞদের মতে, ভিটামিন সি-তে উপস্থিত অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট (ফ্রি র‌্যাডিকেল ধ্বংস করে) এবং অ্যান্টি-ইনফ্লেমেটরি (প্রদাহ কমানো) বৈশিষ্ট্য কর্নিয়ার সংক্রমণ (চোখের একটি গুরুত্বপূর্ণ অংশ যার মাধ্যমে আলো চোখে প্রবেশ করে) প্রতিরোধ করতে পারে। একই সময়ে, এটি কর্নিয়ার অস্বচ্ছতার মতো চোখের রোগ নিরাময়েও সাহায্য করতে পারে, কর্ণিয়ার অস্বচ্ছতা হলো, যেখানে কর্নিয়া ঘোলাটে হয়ে যায় এবং সবকিছু ঝাপসা দেখায়। এই কারণে, এটা বলা ভুল হবে না যে এটি চোখের স্বাস্থ্য বজায় রাখার জন্য অন্যতম একটি কার্যকরী বিকল্প।

৭। মাড়ি সুস্থ রাখতে উপকারীঃ মাড়ির স্বাস্থ্য বজায় রাখার জন্য বিশেষজ্ঞরা ভিটামিন সি-সমৃদ্ধ খাবারের পরামর্শ দেন। অন্যদিকে, এটিও উল্লেখ করা হয়েছে যে ভিটামিন সি-এর অভাবের কারণে স্কার্ভি রোগ হয়, যার মধ্যে মাড়ি থেকে রক্তপাতের মতো লক্ষণগুলিও প্রকাশ পায়। তাই দাতের মাড়ি ঠিক রাখতে ভিটামিন সি এর প্রয়োজনীয়তা অপরিসীম।

৮। হাঁপানির সমস্যায় উপকারীঃ অক্সিডেটিভ ক্ষতির কারণে ঘটে যাওয়া প্রদাহ হাঁপানির অবস্থাকে আরও খারাপ করতে পারে । একই সময়ে, গবেষণায় দেখা গেছে যে ভিটামিন সি-এর অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট প্রভাব রয়েছে, যা অক্সিডেটিভ ক্ষতি প্রতিরোধ করে প্রদাহজনিত অ্যাজমার সমস্যায় উপকারী ভূমিকা পালন করে। এছাড়াও, গুরুতর হাঁপানি রোগীদের ভিটামিন সি গ্রহণের পরামর্শ দেওয়া হয়। তবে কিছু বিজ্ঞানী এও বিশ্বাস করেন যে ভিটামিন সি গ্রহণ হাঁপানির সমস্যায় কোনো প্রভাব দেখায় না। তাই এই বিষয়ে আরো গবেষণা প্রয়োজন। এমতাবস্থায় কারো যদি হাঁপানির সমস্যা থাকে, তাহলে চিকিৎসকের পরামর্শ অনুযায়ী ভিটামিন সি যুক্ত খাবার খাদ্যতালিকায় অন্তর্ভুক্ত করাই ভালো।

৯। অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট প্রভাবঃ অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট হল এক ধরনের পদার্থ, যা কোষের ক্ষতি প্রতিরোধ করতে সাহায্য করে। অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট শরীরে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। এটি শরীরকে ফ্রি র‌্যাডিক্যাল থেকে রক্ষা করতে সাহায্য করতে পারে। ফ্রি র‌্যাডিকেল দ্বারা সৃষ্ট অক্সিডেটিভ স্ট্রেস ক্যান্সার, হৃদরোগ, ডায়াবেটিস, আলঝেইমার রোগের ঝুঁকি বাড়ায়। একই সময়ে, ভিটামিন সি একটি অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট, যা উপরের সমস্যাগুলি প্রতিরোধে অনেক উপকারী।

১০। আয়রনের ঘাটতি কমায়ঃ শরীরে আয়রনের অভাবের কারণে অ্যানিমিয়া হতে পারে। একই সময়ে, ভিটামিন সি শরীরে আয়রন শোষণে সহায়ক হয়, যা আয়রনের ঘাটতি এবং শরীরে এর কারণে সৃষ্ট সমস্যা প্রতিরোধ করতে পারে।

১১। অ্যালার্জি সমস্যা নিরসন করেঃ আপনার অ্যালার্জি থাকলে ভিটামিন সি জাতীয় খাবার আপনার জন্য উপকারী হতে পারে। আসলে, একটি গবেষণা অনুসারে, অক্সিডেটিভ স্ট্রেস অ্যালার্জির সমস্যার কারণ হতে পারে। অ্যালার্জি-সম্পর্কিত রোগগুলি রক্তে অ্যাসকরবেট (ভিটামিন সি) এর অভাবের সাথেও যুক্ত হয়েছে। প্রকৃতপক্ষে, অ্যালার্জিক রোগগুলি অ্যাসকরবেটের কম প্লাজমা স্তরের সাথে যুক্ত। অ্যাসকরবেট ইমিউন সিস্টেমের ক্ষমতা হ্রাস না করে অতিরিক্ত প্রদাহ প্রতিরোধ করতে পারে। একই সময়ে, গবেষণায় আরও উল্লেখ করা হয়েছে যে ভিটামিন সি দিয়ে নিয়মিত গ্রহণ করলে তা অ্যালার্জির সমস্যা অনেকটাই দূর করতে পারে।

গবেষণায় দেখা গেছে যে এটিতে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট বৈশিষ্ট্যের পাশাপাশি অ্যান্টি-এলার্জিক প্রভাব রয়েছে, যা অ্যালার্জি সম্পর্কিত অনেক সমস্যা থেকে মুক্তি দিতে সাহায্য করে, যেমন: – অ্যালার্জিক রাইনাইটিস , হাঁপানি এবং ত্বকের অ্যালার্জি। এ কারণে বলা ভুল হবে না যে অ্যালার্জি প্রতিরোধে ভিটামিন সি অনেক উপকারী।

১৩। ব্লাড সুগার নিয়ন্ত্রণ করেঃ NCBI ওয়েবসাইটে প্রকাশিত ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণ সম্পর্কিত একটি গবেষণা নিশ্চিত করে যে ভিটামিন সি প্রতিদিন ১০০০ মিলিগ্রাম পর্যন্ত ওষুধ হিসাবে গ্রহণ করলে রক্তে শর্করা নিয়ন্ত্রণে ইতিবাচক প্রভাব দেখা যায়। এছাড়াও, এটি ডায়াবেটিস রোগীদের ডায়াবেটিসের কারণে জটিলতার ঝুঁকিও কমাতে পারে। এমতাবস্থায় বলা যায় যে ভিটামিন সি গ্রহণ ডায়াবেটিস রোগীদের জন্য অনেক উপকারী। এমন পরিস্থিতিতে খাবারের মাধ্যমে ডায়াবেটিক ডায়েটে ভিটামিন সি সমৃদ্ধ খাবার যোগ করা একটি ভালো বিকল্প বলা চলে। এছাড়া আপনি যদি ভিটামিন সি সাপ্লিমেন্ট খেতে চান তাহলে আগে অবশ্যই চিকিৎসকের পরামর্শ নিন।

১৪। মানসিক চাপ কমাতে সাহায্য করেঃ কিছু শিক্ষার্থীর উপর পরিচালিত একটি গবেষণায় দেখা গেছে যে ভিটামিন সি গ্রহণকারী শিক্ষার্থীদের অন্য শিক্ষার্থীর তুলনায় কম রাগ, মানসিক চাপ এবং ক্লান্তি ছিল। একই সময়ে, তারা স্বাভাবিকের তুলনায় মানসিক অবস্থার দিক থেকেও উন্নত ছিলো। এই ভিত্তিতে, গবেষণার শেষে, এটি নিশ্চিত করা হয়েছে যে ভিটামিন সি গ্রহণ মানসিক ক্লান্তি এবং চাপের পাশাপাশি মেজাজের পরিবর্তন থেকে মুক্তি দিতে পারে। এছাড়াও, ভিটামিন সি যুক্ত কিউই ফল মেজাজ উন্নতির জন্য উপকারী বলে প্রমাণিত হয়েছে।

১৫। ওজন কমাতে সহায়কঃ বিশেষজ্ঞদের মতে, ভিটামিন সি খেলে শরীরে জমে থাকা চর্বি কমতে শুরু করে। তবে সুষম খাদ্যের পাশাপাশি নিয়মিত ব্যায়ামেরও প্রয়োজন আছে। বিভিন্ন গবেষণায় ও ওজন কমাতে এবং স্থূলতা প্রতিরোধের জন্য ভিটামিন সি দরকারী বলে প্রমান করা হয়েছে। তাই এটি বলা যেতে পারে যে, যারা ওজন কমাতে চান তাদের জন্য ভিটামিন সি গ্রহণ তাদের চেষ্টাকে আরও ত্বরান্বিত করতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করতে পারবে।

১৬। শক্তি উৎপাদনে সহায়কঃ বিশেষজ্ঞদের মতে, এল-কার্নিটাইন একটি বিশেষ যৌগ, যা শরীরের শক্তি উৎপাদন প্রক্রিয়ায় গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। একই সময়ে, এটিও বিশ্বাস করা হয় যে ভিটামিন সি-এর অভাবের কারণে শরীরে কার্নিটিনের অভাব হতে পারে। এমতাবস্থায় বলা ভুল হবে না যে কার্নিটাইন বাড়িয়ে ভিটামিন সি শক্তি উৎপাদন প্রক্রিয়ায় সাহায্য করতে পারে।

১৭। পোড়া এবং ক্ষত নিরাময়ে সাহায্য করেঃ কারো যদি ভিটামিন সি-এর অভাব হয়, তাহলে ক্ষত নিরাময়ের প্রক্রিয়াও ধীর হয়ে যেতে পারে। আসলে, ভিটামিন সি এর অন্যান্য বৈশিষ্ট্যের পাশাপাশি এতে ক্ষত নিরাময়ের বৈশিষ্ট্যও রয়েছে। উপরন্তু, ভিটামিন সি ক্ষত নিরাময় উন্নত করতে পারে এবং গুরুতর পোড়া রোগীদের নানাভাবে সাহায্য করতে পারে। গবেষণায় দেখা গেছে যে, ভিটামিন সি-তে উপস্থিত অ্যান্টিঅক্সিডেন্টগুলি পোড়া ক্ষতগুলির চিকিৎসার সাহায্য করতে পারে। তাই বলা যায়, ভিটামিন সি গ্রহণ স্বাভাবিক বা পোড়া এরকম বিভিন্ন ক্ষত নিরাময়ে সহায়ক ভূমিকা পালন করে থাকে।

১৮। নখে লাল দাগ বা রেখাঃ নখের লাল দাগ বা রেখার সমস্যা এড়াতেও ভিটামিন সি কার্যকর বলে বিবেচিত হয়। একটি গবেষণা অনুসারে, ভিটামিন সি-এর ঘাটতি কোইলোনিচিয়া এবং স্প্লিন্টার হেমোরেজের মতো রোগের ঝুঁকি বাড়ায়। এটি ‘কোইলোনিচিয়া চামচ নখ’ নামেও পরিচিত এবং নখগুলি চামচ আকৃতির হয়ে থাকে। তাই বলা যায় যে, পর্যাপ্ত পরিমাণে ভিটামিন সি এই উভয় নখের সমস্যা থেকে রক্ষা করতে সহায়ক ভূমিকা পালন করে।

১৯। ত্বকের জন্য উপকারিঃ ভিটামিন সি ত্বককে সুস্থ রাখতে এবং ত্বক সংক্রান্ত সমস্যা দূর করতে খুবই গুরুত্বপূর্ণ বলে বিবেচিত হয়। একটি গবেষণা অনুসারে, ভিটামিন সি সূর্যের পোড়া সমস্যা থেকে মুক্তি দিয়ে ইউভি রশ্মি দ্বারা সৃষ্ট ত্বক সম্পর্কিত সমস্যাগুলিকে দূর করতে পারে। ভিটামিন সি যুক্ত ফল ও শাকসবজি সেবন করলে সূর্যের ক্ষতিকর রশ্মির কারণে বা বার্ধক্যজনিত কারণে ত্বকে ব্রণ বা ফাইন লাইনের মতো উপসর্গ দেখা দেয়। ভিটামিন সি হাইপারপিগমেন্টেশনের সমস্যা কমিয়ে ত্বকের রং উজ্জ্বল করতে পারে । ক্ষত নিরাময়ের উন্নতির পাশাপাশি, এটি কোলাজেন বৃদ্ধি করতে পারে। এছাড়াও, ভিটামিন সি শুষ্ক ত্বকের সমস্যার জন্যও উপকারী হতে পারে।

২০। চুল সুস্থ রাখতে সাহায্য করেঃ ভিটামিন সি স্বাস্থ্য এবং ত্বকের পাশাপাশি চুলের জন্যও উপকারী। গবেষণা অনুসারে, আয়রনের ঘাটতির কারণে যে চুল পড়ার সমস্যা হয়ে থাকে ভিটামিন সি সেই সমস্যাকে দূর করতে পারে। আসলে, ভিটামিন সি শরীরে আয়রন ঘাটতি কমায়। একই সাথে, স্কার্ভি রোগ, চুল পড়ার সমস্যা ও ভিটামিন সি-এর অভাবের কারণেই হয়। এমন পরিস্থিতিতে, অন্যান্য পুষ্টির সাথে ভিটামিন সি গ্রহণ চুল পড়া এবং টাক পড়া রোধে উপকারী হয়। তবে চুল পড়ার সমস্যা বেশি হলে শুধুমাত্র ভিটামিন সি যুক্ত খাবারের ওপর নির্ভর না করে এ বিষয়ে চিকিৎসক বা বিশেষজ্ঞের সঙ্গে কথা বলুন।

ভিটামিন সি এর প্রধান উৎস

ভিটামিন সি সাপ্লিমেন্ট ছাড়াও প্রাকৃতিক খাবার থেকে ভিটামিন সি পাওয়া যায়। ভিটামিন সি এর উৎসগুলো নিচে দেওয়া হলোঃ

  • কাঁচা মরিচ
  • কমলা এবং কমলার রস
  • আঙ্গুরের রস
  • কিউই ফল
  • লাল মরিচ
  • ব্রকলি রান্না করা অথবা কাঁচা
  • স্ট্রবেরি
  • ব্রাসেল স্প্রাউট
  • জাম্বুরা
  • টমেটো রস
  • muskmelon
  • বাঁধাকপি, রান্না করা
  • ফুলকপি
  • আলু
  • টমেটো
  • পালং শাক
  • সবুজ মটর (হিমায়িত অথবা রান্না করা)

আরো পড়ুনঃ ভিটামিন ডি সমৃদ্ধ খাবারের তালিকা ও ভিটামিন ডি এর উপকারিতা

ভিটামিন সি এর ঘাটতি এড়ানোর উপায়ঃ

ভিটামিন সি এর অভাব এড়াতে কিছু ব্যবস্থা গ্রহণ করা যেতে পারে। এর মধ্যে কয়েকটি ব্যবস্থা নিম্নরূপ:

১| ভিটামিন সি খাদ্যের মাধ্যমে অর্জন করা যায়। তাই ভিটামিন সি এর ঘাটতি এড়াতে যতটা সম্ভব আপনার খাদ্যতালিকায় ভিটামিন সি যুক্ত ফল ও সবজির ব্যবহার বাড়াতে হবে।

২| খাবার রান্না করলে ভিটামিন সি এর পুষ্টিমান কমে যায়, তাই খাবার রান্না করতে চাইলে ভিটামিন সি যুক্ত খাবার বাষ্প বা মাইক্রোওয়েভে রান্না করে খান।

৩। ভিটামিন সি সরবরাহের জন্য, যতটা সম্ভব শুধুমাত্র কাঁচা ফল এবং সবজি খান। মনে রাখবেন কাঁচা ফল ও সবজি খাওয়ার আগে ভালো করে ধুয়ে নিন। বাহির বা বাজার থেকে কোন ফল আনলে তা কিছুক্ষণ পানিতে বা ভিনেগার এ ভিজিয়ে রাখতে পারেন। এতে খাবার গুলো জীবানুমুক্ত হয়।

৪। ভিটামিন সি যুক্ত ফল ও শাকসবজিকে রোদ থেকে দূরে রাখুন। এতে তাদের মধ্যে উপস্থিত ভিটামিনের পরিমাণ ঠিক থাকে।

৫। অন্যদিকে, আপনি যদি ভিটামিন সি-এর ঘাটতি এড়াতে এর পরিপূরক বা মেডিসিন গ্রহণ করতে চান, তাহলে অবশ্যই ডাক্তারের পরামর্শ অনুযায়ী কোন সাপ্লিমেন্ট গ্রহণ করবেন না প্রতিদিন কতটা গ্রহণ করা উচিত সে সম্পর্কে জেনে নিন।

ভিটামিন সি এর পরিমাণ কত হওয়া উচিত?

লিঙ্গ এবং বয়সভেদে ভিটামিন সি এর পরিমাণ পরিবর্তিত হতে পারে। সে সম্পর্কে নিচে তথ্য দেওয়া হলোঃ

বয়স পুরুষ মহিলাভেদেঃ

  • ০ থেকে ৬ মাস ৪০ মিলিগ্রাম ৪০ মিলিগ্রাম
  • ৭ থেকে ১২ মাস ৫০ মিলিগ্রাম ৫০ মিলিগ্রাম
  • ১ থেকে ৩ বছর ১৫ মিলিগ্রাম ১৫ মিলিগ্রাম
  • ৪ থেকে ৮ বছর ২৫ মিলিগ্রাম ২৫ মিলিগ্রাম
  • ৯ থেকে ১৩ বছর ৪৫ মিলিগ্রাম ৪৫ মিলিগ্রাম
  • ১৪ থেকে ১৮ বছর ৭৫ মিলিগ্রাম ৬৫ মিলিগ্রাম
  • ১৪ থেকে ১৮ বছরের গর্ভবতী মহিলারা ৮০ মিলিগ্রাম
  • ১৪ থেকে ১৮ বছরের স্তন্যদানকারী মহিলারা ১১৫ মিলিগ্রাম
  • ১৯ বছর এবং তার বেশি ৯০ মিলিগ্রাম ৭৫ মিলিগ্রাম
  • ১৯ বছর বা তার বেশি বয়সী গর্ভবতী মহিলারা ৮৫ মিলিগ্রাম
  • ১৯ বছর বা তার বেশি বয়সী স্তন্যদানকারী মহিলারা ১২০ মিলিগ্রাম

ভিটামিন সি অতিরিক্ত গ্রহণের অসুবিধাঃ

অতিরিক্ত পরিমাণে ভিটামিন সি সেবন করলে অনেক সমস্যা হতে পারে। কিছু কিছু সময় এর পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া জটিল রুপ নেয়। যেমন:

  • ডায়রিয়া
  • বমি বমি ভাব
  • পেট বাধা
  • গ্যাস্ট্রোইনটেস্টাইনাল সমস্যা
  • হৃদরোগের
  • কিডনি পাথর
  • এলার্জি
  • প্রো-অক্সিডেন্ট হিসাবে অক্সিডেটিভ ক্ষতি হতে পারে।
  • ক্যান্সার বাড়তে পারে।
  • দাঁতের সমস্যা হতে পারে।

এখন ভিটামিন সি এর ঘাটতি কি তা নিয়ে আপনার কোন সন্দেহ থাকবে না। এর সাথে, আপনি ভিটামিন সি এর উপকারিতা সম্পর্কিত প্রতিটি বিশেষ তথ্যও পেয়েছেন। এতদিন যদি আপনি খাদ্যতালিকায় ভিটামিন সি-সমৃদ্ধ খাবার না রাখেন, তাহলে আজ থেকে ভিটামিন সি-এর সুবিধার কথা বিবেচনা করে নিত্যদিনের খাবারে ভিটামিন সি জাতীয় খাবার রাখুন। সেই সঙ্গে ভিটামিন সি-এর ক্ষতি এড়াতে পোস্টে দেওয়া ভিটামিন সি-এর পরিমাণও মাথায় রাখে গ্রহণ করুন। আশা করি এই পোস্টটি আপনার কাজে লেগেছে। এছাড়া ভিটামিন সি এর গুরুত্ব সম্পর্কে সবাইকে সচেতন করতে অন্যদের সাথে পোস্টটি শেয়ার করুন।

সচরাচর জিজ্ঞাস্য

আমি কি প্রতিদিন ভিটামিন সি নিতে পারি?

হ্যাঁ, ভিটামিন সি সমৃদ্ধ খাবার প্রতিদিন পরিমান মতো খাওয়া যেতে পারে।

আপনি ভিটামিন সি ট্যাবলেট গ্রহণ করলে কি হবে?

ভিটামিন সি ট্যাবলেট খেলে ভিটামিন সি এর ঘাটতি দূর করা যায়। তবে ভিটামিন সি ট্যাবলেট খাওয়ার আগে অবশ্যই চিকিৎসকের পরামর্শ নিন।

ভিটামিন সি এর অভাব হলে কি হয়?

ভিটামিন সি-এর অভাবের ফলে বিভিন্ন ধরনের স্বাস্থ্য সমস্যা দেখা দিতে পারে, যেমন রক্তাল্পতা (লাল রক্ত ​​কণিকার অভাব), মাড়ি থেকে রক্তপাত, সংক্রমণের বিরুদ্ধে লড়াই করার ক্ষমতা কমে যাওয়া, ক্ষত সারাতে স্বাভাবিকের চেয়ে বেশি সময় লাগে এবং শুষ্কতা। এবং চুল ভেঙে যাওয়া।

ভিটামিন সি এর সেরা উৎস কি?

ভিটামিন সি-এর সর্বোত্তম উৎস হিসেবে মনে করা হয় লাল মরিচ এবং কমলার রসকে।

সূর্য কি ভিটামিন সি এর একটি ভাল উৎস?

না, সূর্যকে ভিটামিন C.v এর উৎস হিসেবে বিবেচনা করা হয় না। উল্টো এটি কখনো কখনো ভিটামিন সি এর পুষ্টিগুন নষ্ট করে দেয়।

ভিটামিন সি সাপ্লিমেন্ট নেওয়ার সঠিক সময় কী?

চিকিৎসকের পরামর্শে যেকোনো সময় ভিটামিন সি সাপ্লিমেন্ট গ্রহণ করা যেতে পারে।

ভিটামিন সি ঝরনা কি?

আজকাল বড় বড় হোটেল ও রিসোর্টে এর প্রবণতা বেড়েছে। এতে গোসলের পানির সাথে শাওয়ারের সাহায্যে পুষ্টিগুণও নির্গত হয়। এটি একটি জলের ফিল্টার, যা জল থেকে ক্লোরিন, ক্লোরামাইনের মতো উপাদানগুলিকে সরিয়ে দেয়। ঘরের বাথরুমেও লাগানো যেতে পারে। এটি আপনার চুল এবং ত্বকের জন্য উপকারী। যাইহোক, এটি কতটা কার্যকর তা নিশ্চিত করার জন্য বর্তমানে কোন সঠিক বৈজ্ঞানিক প্রমাণ নেই।

আরো পড়ুনঃ

5/5 - (12 Reviews)
Subna Islam
Subna Islam
Articles: 36

Leave a Reply

Your email address will not be published.