আখের রসের উপকারিতা ও অপকারিতা এবং স্বাস্থ্য ও রূপচর্চায় ব্যবহার

আখের রসের উপকারিতা ও অপকারিতা জানতে পুরো পোস্ট মনোযোগ দিয়ে পড়ুন। আখ গাছের লম্বা কাণ্ড থেকে যে মিষ্টি রস বের করা হয় তাকে আখের রস বলে। আখের রস শুধু গ্রীষ্মকালেই তৃষ্ণা মেটায় না, এর ঔষধি গুণের কারণে শরীরকেও রক্ষা করে।

আখের রস যেমন স্বাস্থ্যকর তেমনি স্বাদেও ভরপুর। আপনি জেনে অবাক হবেন যে আখের গুণাবলী দাঁতের সমস্যা থেকে ক্যান্সারের মতো প্রাণঘাতী রোগ থেকে রক্ষা করতে পারে। এমন অনেক প্রয়োজনীয় পুষ্টি উপাদান এতে পাওয়া যায়, যা শরীরের নানাভাবে উপকারে কাজ করে।

আমাদের এই প্রবন্ধে জেনে নিন আখের রস পানের উপকারিতা ও অপকারিতা। এর সাথে, আপনি এই নিবন্ধে এটি ব্যবহারের বিভিন্ন উপায় সম্পর্কেও জানতে পারবেন।

অনেক রোগ থেকে আপনাকে সুরক্ষিত রাখার পাশাপাশি এটি আপনার ত্বককেও উজ্জ্বল করে। ক্লান্ত দিনে এক গ্লাস আখের রস পান করলে স্বাদ পাওয়া যায়। কিন্তু আপনারা হয়তো খুব কমই জানেন যে এই রসের মধ্যে লুকিয়ে আছে স্বাস্থ্যের জন্য উপকারী অনেক রহস্য।

আখের রস খুবই স্বাস্থ্যকর ও উপকারী পানীয়

এতে ক্যালসিয়াম, পটাসিয়াম, আয়রন, ম্যাগনেসিয়াম এবং ফসফরাসের মতো প্রয়োজনীয় পুষ্টি রয়েছে। এগুলো হাড় মজবুত করে এবং দাঁতকে শক্তিশালী করে। আখের রসের এই পুষ্টিগুণ শরীরে রক্ত ​​চলাচলও ঠিক রাখে। সেই সঙ্গে এই জুস ক্যান্সার ও ডায়াবেটিসের মতো মারণ রোগের সঙ্গে লড়াই করার ক্ষমতাও রাখে।

আখের রস দিয়ে গুড় ও চিনি তৈরি করা হয়

মিষ্টি রসের জন্য আখ চাষ করা হয়। আখ থেকে চিনি ও গুড় তৈরি হয়। এসব ছাড়াও আখের রস গ্রীষ্মের সবচেয়ে বিশেষ পানীয়। এটি শরীরকে সতেজ রাখতে সাহায্য করে।

আখের রস বাংলাদেশে ব্যাপকভাবে জন্ডিস, বদহজম এবং অনেক প্রস্রাবের রোগের চিকিৎসায় ব্যবহৃত হয়। অভ্যন্তরীণ স্বাস্থ্য ছাড়াও, এটি ত্বকের জন্যও ব্যবহৃত হয়। নিচে জেনে নিন আখের রস কীভাবে আপনাকে শারীরিক উপকার দিতে পারে।

আখের রস প্রস্তুত করার জন্য প্রথমে জমি থেকে আখ সংগ্রহ করা হয় পরে আখের মাথা কেটে আখ পরিষ্কার করা হয়। এতে প্রথমে আখের গায়ের ময়লা পরিষ্কার করে পরিষ্কার পানিতে ধুয়ে নিতে হবে।

তারপর আখ মাড়াই করার মেশিন চালু করে মেশিনের মাঝখানে আখ দিতে হবে। এতে মেশিনের ৩ টি রোলারের চাপে আখ পিষ্ট হয় এবং রস আলাদা হয়ে যায়৷ তারপর এই রস সংগ্রহ করা হয়। 

গরমের দিনে ও রোজার দিনে  ইফতারে  ক্লান্তি দূর করতে আখের রস বাংলাদেশে খুব জনপ্রিয়। এই রস একটি গ্লাসে বরফ বা শুধু রস দিয়ে পরিবেশন করা হয়।

আরো পড়ুনঃ ডাবের পানির উপকারিতা ও অপকারিতা এবং খাওয়ার নিয়ম

আখের রসের পুষ্টির উপাদান

পুষ্টি উপাদানপ্রতি 100 মিলি
শক্তি49 কিলোক্যালরি
কার্বোহাইড্রেট11.51 গ্রাম
চিনি8.55 গ্রাম
ক্যালসিয়াম10 মিলিগ্রাম
আয়রন0.18 মিলিগ্রাম
ম্যাগনেসিয়াম12 মিলিগ্রাম
পটাসিয়াম160 মিলিগ্রাম

আখের রসের ব্যবহার

  • আখের রস জুস হিসেবে পান করা যেতে পারে।
  • এটি মুলতানি মাটি বা বেসনের সাথে মিশিয়ে ফেসপ্যাক তৈরি করা যেতে পারে।
  • স্বাদের জন্য আখের রস তৈরি করার সময় পুদিনা পাতা, লেবু এবং আদাও মেশাতে পারেন।

কিভাবে আখের রস তৈরি করবেন?

নিচের উপায়ে ঘরেই আখের রস তৈরি করা যায়।

উপাদানঃ

  • একটি আখ
  • 1 টেবিল চামচ আদা কাটা
  • পরিমাণমত লেবুর রস
  • কালো লবণ স্বাদমতো

পদ্ধতিঃ

  • আখের খোসা ছাড়িয়ে ছোট ছোট টুকরো করে কেটে নিন।
  • এবার ব্লেন্ডারে সব উপকরণ দিয়ে কিছুক্ষণ ভালো করে ব্লেন্ড করুন।
  • এবার হাতের সাহায্যে ব্লেন্ড করা উপাদান থেকে রস ছেঁকে নিয়ে গ্লাসে ঢেলে দিন।
  • বের করা রস কিছুক্ষণ ঠাণ্ডা করে স্বাদ অনুযায়ী কালো লবণ ও লেবুর রস মিশিয়ে পান করুন।

আখের রস কীভাবে সংরক্ষণ করবেন

দীর্ঘ মেয়াদের জন্য আখ নির্বাচন এবং সংরক্ষণ

আখের রসের উপকারিতা ও অপকারিতা
আঁখের ছবি

নির্বাচনঃ আখের রস উপভোগ করতে হলে এর সঠিক পছন্দও প্রয়োজন। সব সময় হলুদ আখ বেছে নিন, যার পাতা শুকনো। আঙুল দিয়ে হালকাভাবে আখে টোকা মারার চেষ্টা করুন, যদি শব্দে কোনো ধাতু আঘাত করার মতো শোনায়, তার মানে আখ পুরোপুরি পেকে গেছে।

সংরক্ষণঃ যখনই আপনি একটি বড় বেত কিনবেন, এটি ছোট ছোট টুকরো করে কেটে নিন যাতে আপনি এটি ফ্রিজে ভালভাবে সংরক্ষণ করতে পারেন।

রেফ্রিজারেটরে রাখার আগে আখের খোসা ছাড়তে ভুলবেন না। আপনি আখের টুকরোগুলিকে বাহ্যিক আর্দ্রতা থেকে রক্ষা করতে প্লাস্টিক দিয়ে ঢেকে রাখতে পারেন। প্রক্রিয়াটি সঠিকভাবে অনুসরণ করা হলে, আখ দুই সপ্তাহ পর্যন্ত ফ্রিজে সংরক্ষণ করা যেতে পারে।

আখের রসের উপকারিতা

আখের রস খুবই সহজলভ্য এবং খুবই উপকারী একটি পানীয়। আখ অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট সমৃদ্ধ। এই সুস্বাদু পানীয় বিষাক্ত পদার্থ দূর করে শরীরে প্রচুর শক্তি যোগাবে। শুধু তাই নয়, আখের রসে রয়েছে  প্রচুর ফাইবার এবং মাইক্রো-মিনারেলস। 

এটি রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায় এবং অনেক রোগের বিরুদ্ধে লড়াই করার ক্ষমতা দেয়। এই রস মিষ্টি হলেও এতে উপস্থিত চর্বির পরিমাণ খুবই কম।

আখের রসে কয়েক ফোঁটা লেবুর রস এবং সামান্য লবণ যোগ করলে এটি খেতে আরো সুস্বাদু হয়। এই রস শরীরে শক্তি জোগাতে সাহায্য করে এবং শরীর ভালো রাখে। জন্ডিস, রক্তশূন্যতা এবং অম্বল জ্বালায় আখের রস খুবই উপকারী। শরীর ঠান্ডা রাখা এবং গ্যাস্ট্রিকের সমস্যা নিয়েও এর কোন সম্পর্ক নেই।

আসুন আখের রস খাওয়ার কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ উপকারিতা সম্পর্কে জেনে নেয়া যাক ~ 

ক্যান্সার প্রতিরোধঃ ক্যান্সার প্রতিরোধেও আখের রস পানের উপকারিতা দেখা গেছে। এই রসে টাইরোসিন নামক একটি ফ্লেভোন পাওয়া যায়, যা অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট বৈশিষ্ট্যে সমৃদ্ধ। এই রসে টাইরোসিন নামক একটি ফ্লেভোন পাওয়া যায়, যা অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট বৈশিষ্ট্যে সমৃদ্ধ।

আখের রসে ক্যালসিয়াম, পটাসিয়াম, আয়রন এবং ম্যাগনেসিয়ামের পরিমাণ এর স্বাদকে ক্ষার করে, এই রসে উপস্থিত এই উপাদানগুলো আমাদের ক্যান্সার থেকে রক্ষা করে।

এছাড়াও, এর অ্যান্টি-প্রলিফারেটিভ কার্যকলাপের কারণে, আখের রস অনেক ধরণের ক্যান্সার কোষের বৃদ্ধিকে বাধা দিতে পারে এটি প্রোস্টেট এবং স্তন ক্যান্সারের বিরুদ্ধে লড়াইয়েও কার্যকর বলে প্রমাণিত হয়েছে। মনে রাখতে হবে যে, ক্যান্সার এমন একটি রোগ, যার জন্য সময়মতো চিকিৎসা করানো প্রয়োজন।

আরো পড়ুনঃ ক্যান্সারের চিকিৎসা, মলদ্বারে ক্যান্সারের লক্ষণ

হজমশক্তির উন্নতি ঘটায়ঃ আখের রসে প্রচুর পরিমাণে পটাশিয়াম থাকায় এটি শরীরের পরিপাকতন্ত্রের জন্য খুবই উপকারী। হজম ঠিক রাখার পাশাপাশি এই জুস পেটের ইনফেকশনও প্রতিরোধ করে। আখের রস কোষ্ঠকাঠিন্যের সমস্যাও দূর করে।

হৃদরোগ প্রতিরোধঃ এই রস হার্ট অ্যাটাকের মতো হৃদরোগের বিরুদ্ধেও সুরক্ষা দেয়। আখের রস শরীরে কোলেস্টেরল ও ট্রাইগ্লিসারাইডের মাত্রা কমায়। এইভাবে, ধমনীতে চর্বি জমে না এবং হৃৎপিণ্ড এবং শরীরের অঙ্গগুলির মধ্যে একটি ভাল প্রবাহ থাকে।

ওজন কমাতে সহায়কঃ আখের মধ্যে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে ফাইবার, যা ওজন কমাতে সাহায্য করে। এটি শরীরের বিপজ্জনক কোলেস্টেরলের মাত্রা কমায়, ওজন নিয়ন্ত্রণ করে এবং হার্টকে সুস্থ রাখে।

আরো পড়ুনঃ ওজন কমাতে দই ও তিসি বীজ এইভাবে খান, 15 দিনে ওজন কমানোর ডায়েট প্ল্যান

ত্বক উজ্জ্বল করেঃ গরমের রোদ এবং ঘামের কারণে ত্বক তার উজ্জ্বলতা হারায়। আখের রস ত্বককে সুস্থ ও উজ্জ্বল রাখতে সাহায্য করে। আখের রসে রয়েছে আলফা হাইড্রক্সি অ্যাসিড (AHAs), যা ত্বক সংক্রান্ত সমস্যা দূর করে এবং তাতে টানটানতা আনে।

AHA ব্রণ দূর করে, দাগ কমায়, ত্বককে ময়শ্চারাইজ করে এবং বলিরেখা কমায়। আখের রস ত্বকে লাগিয়ে শুকিয়ে গেলে পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। শুধু এই পরিশ্রমেই আপনার ত্বক উজ্জ্বল ও পরিষ্কার দেখাবে।

আখের রসের মধ্যে থাকা আলফা হাইড্রক্সি অ্যাসিড(Hydroxy acid) ত্বকের কুঁচকে যাওয়া রোধ করতে সাহায্য করে। আখের রস অ্যাকনি ও মাথায় খুসকিও দূর করে

আখের রস এবং মুলতানি মাটির ফেসপ্যাক

উপাদানঃ

  • আখের রস (প্রয়োজনমত)
  • মুলতানি মাটি (প্রয়োজনমত)

পদ্ধতিঃ

  • মুলতানি মাটিতে আখের রস যোগ করে পেস্ট তৈরি করুন।
  • এবার এই পেস্টটি মুখে ও ঘাড়ে লাগান।
  • পেস্টটি মুখে প্রায় 20 মিনিটের জন্য রেখে দিন এবং তারপরে ঠান্ডা জল দিয়ে মুখ ধুয়ে ফেলুন।
  • এই প্রতিকার সপ্তাহে একবার বা দুইবার ব্যবহার করা যেতে পারে।

আরো পড়ুনঃ মুলতানি মাটি দিয়ে ফর্সা হওয়ার উপায়, এলোভেরা দিয়ে ফর্সা হওয়ার উপায়

ত্বকের বার্ধক্য রোধ করে

ত্বকে অতিবেগুনী রশ্মি এবং ফ্রি র‍্যাডিক্যালের প্রভাবের কারণে অকাল বার্ধক্য ঘটতে পারে। এই লক্ষণগুলির মধ্যে রয়েছে বলিরেখা এবং পিগমেন্টেশন ইত্যাদি। তাদের থেকে ত্রাণ পেতে কার্যকর অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট ব্যবহার করার সুপারিশ করা হয়।

আখের রসে প্রচুর পরিমাণে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট পাওয়া যায়, যা ফ্রি র‍্যাডিক্যালের প্রভাব কমাতে সহায়ক। আখের রস খাওয়াও ত্বকের ক্যান্সার থেকে রক্ষা করতে সহায়ক হতে পারে

আখের রস এবং হলুদের ফেসপ্যাক

উপাদান :

  • 2-3 চামচ আখের রস
  • এক চিমটি হলুদ

পদ্ধতি:

  • আখের রসে হলুদ মিশিয়ে নিন।
  • এটি সারা মুখে লাগান এবং 10-12 মিনিটের জন্য রেখে দিন।
  • এবার কুসুম গরম পানি দিয়ে মুখ ধুয়ে ফেলুন।
  • এই প্রতিকার সপ্তাহে দুইবার করা যেতে পারে।

আরো পড়ুনঃ টক দই দিয়ে ফর্সা ও উজ্জ্বল ত্বক পেতে ৫টি ফেসপ্যাক, এলোভেরা দিয়ে মুখের যত্ন নেয়ার নিয়ম, এলোভেরার উপকারিতা ও অপকারিতা, চন্দন দিয়ে রূপচর্চাঃ ব্রণ দূর করতে ব্যবহার করুন

আখের রসের উপকারিতা
আখের রসের উপকারিতা

যকৃতের স্বাস্থ্য বা জন্ডিসঃ আখের রস লিভার সংক্রান্ত জন্ডিসের জন্য উপকারী বলে মনে করা হয়। ইউনানী ঔষধ অনুসারে, আখের রসের উপকারিতা জন্ডিস থেকে তাৎক্ষণিক উপশম পেতে সাহায্য করতে পারে। যকৃতের কাজকর্মে বাধা সৃষ্টি হলে জন্ডিস হয়।

শরীরে বিলিরুবিন বেড়ে গেলে এই অবস্থা হয়। বিলিরুবিন হল একটি হলুদ রঙ্গক যা লিভারের লোহিত রক্তকণিকা ভেঙ্গে দিয়ে তৈরি হয়। এই অবস্থা কাটিয়ে উঠতে প্রতিদিন এক গ্লাস তাজা আখের রস পান করা যেতে পারে।

রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়ঃ রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে আখ খাওয়ার উপকারিতা পাওয়া যায়। ইমিউন সিস্টেম অনেক ধরনের সংক্রমণ এবং রোগ থেকে শরীরকে রক্ষা করতে সহায়ক।

এটি নিশ্চিত করার জন্য, যখন আখের বৈশিষ্ট্যগুলি নিয়ে গবেষণা করা হয়েছিল, তখন এর হেপাটোপ্রোটেকটিভ এবং অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট বৈশিষ্ট্যগুলি প্রকাশিত হয়েছিল। এর ফলাফল প্রকাশ করেছে যে আখের নির্যাস অনেক ধরনের ব্যাকটেরিয়া এবং ভাইরাল সংক্রমণ থেকে রক্ষা করতে পারে, সেইসাথে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে সাহায্য করে।

একই সাথে, আমরা এটি পরিষ্কার করি যে এই গবেষণাটি আখের নির্যাসের সাথে সম্পর্কিত, আখের রস পান করার উপকারিতা সম্পর্কে আরও গবেষণা এখনও প্রয়োজন।

জ্বরে উপকারীঃ আমাদের শরীর যখন কোনো রোগের সঙ্গে লড়াই করার চেষ্টা করে তখন জ্বর হয়। বেশিরভাগ জ্বর আসে কোনো না কোনো সংক্রমণের কারণে। এই সময়, শরীর সংক্রমণের কারণ ব্যাকটেরিয়া বা ভাইরাস নির্মূল করার চেষ্টা করে।

এমন পরিস্থিতিতে আখের রস পানের উপকারিতা জ্বর কমাতে সহায়ক হতে পারে। বর্তমানে, এর কার্যকারিতা সম্পর্কে আরও গবেষণা প্রয়োজন। শরীরে উচ্চমাত্রার জ্বর কেবলমাত্র ফেবব্রাল ডিজঅর্ডার এর কারণে হয়।

আর এই গোত্রের জ্বর শরীরের প্রচুর পরিমাণে প্রোটিনের ঘাটতি সৃষ্টি করে থাকে। একমাত্র আখের রসই পারে এই প্রোটিন(Protein) আপনার শরীরে পুনরায় ফিরিয়ে দিতে।

গলার সমস্যাঃ আখের রসের উপকারিতা এখানেই শেষ নয়, গলা ব্যথার জন্যও আখের রস খাওয়া যেতে পারে। যখন কেউ টনসিলের মতো গলা সংক্রান্ত সমস্যায় অস্থির থাকেন, তখন আখের রস খেলে উপকার পেতে পারেন।

যখন টনসিল (গলার পিছনের টিস্যু) স্ফীত হয়, তখন তারা ব্যথা এবং অস্বস্তি সৃষ্টি করতে পারে। একই সময়ে, আখের রস গলা ব্যথা, সর্দি এবং ফ্লু এর মতো সমস্যা নিরাময়েও সাহায্য করতে পারে।

ক্ষত নিরাময়ে উপকারীঃ অনেক ধরনের ক্ষত সারাতেও আখের রস পানের উপকারিতা দেখা গেছে। NCBI ওয়েবসাইটে প্রকাশিত একটি গবেষণায় বলা হয়েছে যে আখের রস খাওয়া ক্ষত নিরাময়ে সহায়ক হতে পারে।

আরেকটি গবেষণায় এটাও বলা হয়েছে যে আখ থেকে তৈরি চিনিও ক্ষত সারাতে ব্যবহার করা যায়। চিনিতে অ্যান্টিমাইক্রোবিয়াল বৈশিষ্ট্য পাওয়া যায়, যা ক্ষত নিরাময়ে সহায়ক।

প্রস্রাব সংক্রান্ত সমস্যায় উপকারীঃ কখনও কখনও প্রস্রাব করার সময় ব্যথা, জ্বালা বা অস্বস্তি অনুভূত হতে পারে। এই সমস্যাটিকে ডিসুরিয়া বলা হয়। এটি মূত্রনালীতে কিছু সংক্রমণের কারণে হতে পারে।

প্রস্রাবজনিত এই সমস্যা থেকে মুক্তি পেতে আখের রস পান করা যেতে পারে। এটা বলা হয় যে এটি ডিসুরিয়া এবং অ্যানুরিয়া (অল্প পরিমাণে প্রস্রাব) এবং প্রস্রাব সংক্রান্ত অন্যান্য সমস্যা থেকে মুক্তি পেতেও সাহায্য করতে পারে।

নখের জন্য আখের উপকারিতাঃ সুস্থ ও সুন্দর নখ কে না চায়। তাদের সুস্থ রাখতে ক্যালসিয়াম একটি অপরিহার্য খনিজ। এমন পরিস্থিতিতে নখ মজবুত ও সুস্থ রাখতে আখের রস খাওয়া যেতে পারে। এটি ক্যালসিয়াম সমৃদ্ধ, যা নখ মজবুত রাখতে সাহায্য করতে পারে।

ব্রণের জন্য উপকারীঃ আখের রস আলফা হাইড্রক্সি অ্যাসিড (AHA) এর একটি ভাল উৎস, তাই এটি ত্বকের জন্য একটি বিশেষ উপাদান হিসেবে বিবেচিত হয়।

গ্লাইকোলিক অ্যাসিড, ল্যাকটিক অ্যাসিড, ম্যালিক অ্যাসিড, টারটারিক অ্যাসিড এবং সাইট্রিক অ্যাসিডে উপস্থিত আলফা হাইড্রক্সি অ্যাসিডগুলি কসমেটিক পণ্যগুলিতে ব্যাপকভাবে ব্যবহৃত হয়। এই অ্যাসিড ব্রণ পরিত্রাণ পেতে একটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করতে পারে।

আরো পড়ুনঃ প্রতিদিন মুখে টমেটো লাগানোর উপকারিতা, টক দই মুখে মাখার উপকারিতা এবং নিয়ম, ত্বকের উজ্জ্বলতা বাড়ানোর জন্য সেরা ১০টি ফল

ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণঃ আখ আমাদের শরীরে গ্লুকোজের পরিমাণ নিয়ন্ত্রণ করতে সাহায্য করে। আপনার ডায়াবেটিস থাকলেও আখের রস পান করা নিরাপদ। আখের রসের মধ্যে রয়েছে প্রাকৃতিক মিষ্টি যা ডায়াবেটিস রোগীদের জন্য উপকারী।

আরো পড়ুনঃ ঘরোয়া পদ্ধতিতে ডায়াবেটিস কমানোর উপায়, ডায়াবেটিসের সাধারণ লক্ষণগুলো

লিভার ভাল রাখেঃ যখন একজন ব্যক্তির জন্ডিস হয়, তখন তাকে আখের রস দেওয়া উচিত। আখের রস লিভারের জন্য অত্যন্ত উপকারী। এটি লিভারকে সুস্থ রাখে এবং লিভারকে সঠিকভাবে কাজ করতে সাহায্য করে।

রোগপ্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়ঃ আখের রস পান করলে শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি পায়। এটি শরীরে একটি শক্তিশালী ইমিউন সিস্টেম তৈরি করতে পারে যা শরীরকে অনেক রোগ থেকে রক্ষা করে।

ব্রণ দূর করেঃ আখের রস ব্রণ থেকে মুক্তি পেতে সাহায্য করতে পারে। আখের মধ্যে রয়েছে উচ্চ মাত্রার সুক্রোজ, যা ক্ষত সারাতে সাহায্য করে। এটি মুখের দাগ দূর করে এবং শরীরকে বিষাক্ত বা বিষাক্ত পদার্থ থেকে পরিষ্কার করে।

হাড় শক্ত করেঃ আখের রসে রয়েছে ক্যালসিয়াম, ম্যাগনেসিয়াম, ফসফরাস, আয়রন এবং পটাশিয়াম – এগুলো সবই হাড়ের স্বাস্থ্যের জন্য ভালো।

গর্ভবতীদের জন্যঃ আখের রসে থাকা ফলিক এসিড মায়ের শরীরে প্রবেশ করার পর, খেলা দেখায় যে গর্ভাবস্থা সম্পর্কিত একাধিক সমস্যা দূরে থাকতে বাধ্য হয়। একই সঙ্গে শিশুর শারীরিক বিকাশ ঘটতে বেশি সময় লাগে না।

আরো পড়ুনঃ প্রসূতি মায়ের খাদ্য তালিকা, গর্ভবতী হওয়ার লক্ষণ, কিভাবে বুঝবেন আপনি প্রেগন্যান্ট?

দেহের প্রতিটা অঙ্গের ক্ষমতা বৃদ্ধি পায়ঃ যখন আপনি নিয়মিত আখের রস খাওয়া শুরু করেন, তখন শরীরের প্রতিটি গুরুত্বপূর্ণ অঙ্গের ক্ষমতা এত বেড়ে যায় যে, বড় বা ছোট কোন রোগই ধারে কাছে আসতে পারে না। ইন্দ্রিয় অঙ্গ, প্রজনন অঙ্গ এবং বিশেষ করে মস্তিষ্কের ক্ষমতা বৃদ্ধি করলে আয়ু বৃদ্ধি পায়।

কোষ্ঠকাঠিন্য দূরে পালায়ঃ আয়ুর্বেদ অনুযায়ী, আখের রসে উপস্থিত রেচক বৈশিষ্ট্য অন্ত্রের চলাচল উন্নত করে। ফলে কোষ্ঠকাঠিন্যের মতো সমস্যা কমতে সময় লাগে না। একই সময়ে, আখের ক্ষারীয় বৈশিষ্ট্যগুলিও বুক জ্বালাপোড়া কমাতে বিশেষ ভূমিকা পালন করে।

কিডনির কর্মক্ষমতা বৃদ্ধি পায়ঃ আখের রসে একাধিক উপকারী উপাদান মূত্রনালীর সংক্রমণ সারাতে বিশেষ ভূমিকা পালন করে। এটি কিডনিতে পাথরের মতো সমস্যা দূর করতেও সাহায্য করে।

এনার্জির ঘাটতি দূর হয়ঃ দীর্ঘ সময় শরীরে শক্তি বজায় রাখতে এবং পেশীতে শক্তি বজায় রাখতে কার্বোহাইড্রেট প্রয়োজন। আখের রসে থাকা কার্বোহাইড্রেট, প্রোটিন, আয়রন, পটাসিয়াম এবং অন্যান্য উপকারী উপাদান শরীরে প্রবেশের পর শক্তির ঘাটতি দূর করে।

ফলস্বরূপ, মন এবং শরীর উভয়ই স্বাভাবিকভাবে সজাগ হয়ে ওঠে। একভাবে এগুলোকে শক্তির জ্বালানি হিসেবে বিবেচনা করা যেতে পারে। আখের রসে প্রচুর পরিমাণে কার্বোহাইড্রেট থাকার কারণে এটির ব্যবহার আপনাকে দীর্ঘ সময়ের জন্য শক্তিমান রাখতে সহায়ক।

একটি গবেষণা অনুসারে, ব্যায়ামের পরে শরীরকে রি-হাইড্রেটিং এবং সতেজ করতে আখের রস অন্যান্য স্পোর্টস ড্রিংকগুলির চেয়ে বেশি কার্যকরী হতে পারে।

বন্ধ্যাত্ব প্রতিরোধ করতে আখের রসঃ আখের রস বন্ধ্যাত্ব প্রতিরোধ করতেও সক্ষম। গর্ভবতী মায়ের জন্য আখের রস(Sugarcane juice) খুবই উপকারী একটি পানীয়। স্পার্ম কাউন্ট বৃদ্ধি করতেও এটি ভূমিকা রাখে।

খালি পেটে আখের রস খাওয়ার উপকারিতা

তীব্র গরমের মধ্যেই আবার রয়েছে করোনার ভয়াবহতাও। এই ভয়াবহ সময়ে সুস্থ থাকাটা খুব জরুরি। এজন্য প্রতিদিনের খাদ্য তালিকায় রাখুন পুষ্টিকর(Nutritious) আখের রস। গরমে সহজে তৃপ্তি দিতে আখের রসের কোনো জুড়ি নেই।

সুমিষ্ট এই রস কেবল খেতেই সুস্বাদু নয় বরং এটি স্বাস্থ্যের পক্ষেও অনেক উপকারী। আমাদের দেশে আখের রস(Sugarcane juice) খুব সহজলভ্য একটি পানীয়। এটি দামেও বেশ সস্তা। এই প্রচন্ড গরমে তেষ্টা মিটানোর পাশাপাশি শরীরের একাধিক উপকারও করে এই আখের রস।

চলুন তবে জেনে নেয়া যাক খালি পেটে আখের রসের উপকারিতাগুলো সম্পর্কে বিস্তারিত-

১. খালি পেটে আখের রস খেলে দেহে দুর্বলভাব কমে।

২. খালি পেটে আখের রস(Sugarcane juice) যকৃতের জন্য খুবই উপকারী।

৩. খালি পেটে আখের রস খেলে দেহের টক্সিন নির্মুল করে প্রচুর এনার্জি(Energy) বুস্ট করে।

৪. খালি পেটে আখের রস খেলে কোলেস্ট্রলকে নিয়ন্ত্রণে থাকে, শরীরের বাড়তি ওজন(Weight) কমাতে সাহায্য করে। কারন, আখের রসে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে ফাইবার ও মিনারেলস।

৫. খালি পেটে আখের রস সেবন, শরীরের ভেতর থেকে রোগ প্রতিরোধের ক্ষমতাকে বাড়িয়ে তোলে। কারন, আখের রসে প্রচুর পরিমাণ ভিটামিন ও মিনারেলস আছে। শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা(Immunity) বাড়াতে এই দুইটি এলিমেন্ট একদম পারফেক্ট। তাই বিভিন্ন ভাইরাস ঘটিত রোগের প্রাদুর্ভাব থেকে নিজেকে রক্ষা করতে এই আখের রসকেই প্রধান চাবিকাঠি হিসেবে গণ্য করা হয়।

খেতে মিষ্টি হলেও আখের রস খাওয়া ডায়াবেটিসের পক্ষে কি কার্যকর?

আখের রস খেলে সুগার বাড়তে পারে কিনা এই বিষয় নিয়ে তর্ক বহুদিনের। তাই যারা ডায়াবিটিসে (control blood sugar) ভুগছেন তাঁরা কষ্ট করেই আখের রস থেকে চোখ ফিরিয়ে রাখেন। বেশিরভাগ এর ধারণা, আখের রসে বুঝি চড়চড়িয়ে সুগার (blood sugar) বাড়ে।

কিন্তু, বিশেষজ্ঞদের মতে খেতে মিষ্টি হলেও আখের রস ডায়াবিটিসের (Diabetes) পক্ষে খুবই কার্যকরি। এতে জিআই-এর পরিমাণ খুব কম পরিমাণে থাকে। ফলে ডায়াবেটিস এ আক্রান্ত রোগীরা নিয়মিত আখ বা আখের রস (sugarcane juice) খেতেই পারেন।এতে কোনো বাধা নেই৷

আরো পড়ুনঃ কিসমিসের উপকারিতা ও অপকারিতা, দারুচিনির উপকারিতা ও অপকারিতা

আখের রসের অপকারিতা

এতে কোন সন্দেহ নেই যে আখের রস একটি শক্তিশালী পানীয়, তবে এটির অত্যধিক ব্যবহার নিম্নলিখিত সমস্যাগুলির কারণ হতে পারে:

  • আখের ঠান্ডা প্রভাব রয়েছে, তাই শীতকালে এর ব্যবহার এড়িয়ে চলুন, অন্যথায় ঠান্ডা এবং ঠান্ডা হতে পারে।
  • রাস্তার ধারে বিক্রি হওয়া আখের রস এড়িয়ে চলুন, কারণ এই রসে ক্ষতিকারক জীবাণু থাকতে পারে, যা পেটের সমস্যা সৃষ্টি করতে পারে।
  • ইস্ট, ব্যাকটেরিয়া এবং ছত্রাকের মতো জীবাণু দীর্ঘ সময়ের জন্য সংরক্ষণ করা আখের রসে জন্মাতে পারে, যা আখের রসের ক্ষতি করতে পারে।

আখের গুণাগুণ শুনে নিশ্চয়ই বুঝতে পেরেছেন গরমের সময় আখের রস কতটা উপকারী, তাই সুযোগ পেলেই আখের রস খান। এছাড়াও মনে রাখবেন এর রস পরিষ্কারভাবে বের করা হয়েছে। ময়লার সংস্পর্শে আসা আখের রস উপকারের পরিবর্তে ক্ষতির কারণ হতে পারে।

নিবন্ধে উল্লেখিত যেকোনো সমস্যায় আক্রান্ত হলে প্রাকৃতিক ওষুধ হিসেবে আখের রস খাওয়া যেতে পারে। আশা করি আপনি এই নিবন্ধটি থেকে আখের রস পান করার উপকারিতা এবং অপকারিতা ভালভাবে বুঝতে পেরেছেন এবং অবশ্যই এই সুস্বাদু রস আপনার জীবনে অন্তর্ভুক্ত করবেন।

আরো পড়ুনঃ

5/5 - (12 Reviews)

Leave a Reply

Your email address will not be published.